২৪ মার্চ, ২০১৭

নিমো হুজুরের খুতবা - ৩৫

লিখেছেন নীল নিমো

গত শুক্রবার বয়ান দিচ্ছিলাম ঠিক এইভাবে:
- জাহান্নামি নাস্তিকরা মনে করে, আল্লাহ নাই, সবকিছু নাকি শূন্য থেকে আপনা-আপনি সৃষ্টি হয়েছে। নাউযুবিল্লাহ। কতটা মাথা খারাপ হলে মানুষ এই কথা বিশ্বাস করতে পারে? নাস্তিকদের আসলেই মাথা খারাপ।

পাশে একজন জাহান্নামি নাস্তিক বসা ছিল, সে উত্তর দিল:
- হুজুর, আপনি কি তাহলে শূন্যতে বিশ্বাস করেন না?

আমি উত্তর দিলাম:
- শূন্য থেকে কোনোকিছু সৃষ্টি হতে পারে না। তাই নাস্তিকদের শূন্য একটি অর্থহীন ধারণা। শূন্য বলে কিছু নাই। নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্বত্র বিরজমান। সৃষ্টির পূর্বে তিনি ছিলেন, এখনো আছেন।

তখন নাস্তিক হাসতে হাসতে বলিল:
- হুজুর, বর্তমান গণিত শাস্ত্র শূন্যের উপর দাড়িয়ে আছে। ০ থেকে ৯ - এই ১০টি সংখ্যার ভিতরে শূন্য আছে। আপনি যে কোনো গণনা পদ্ধতিই নিন না কেন, বাইনারি, অক্টাল, হেক্সাডেসিম্যাল সবগুলোতেই শূন্য আছে। এই শূন্য না থাকলে কোনোকিছু গণনা করা যেত না, সংখ্যা লেখা যেত না। তার মানে, শূন্য না থাকলে কম্পিউটারও চলত না। এই মহাবিশ্বের সব গণনা শুন্য থেকে শুরু হয়। এই যখন অবস্থা, তাহলে শূন্য ছাড়া কীভাবে সৃষ্টতত্ত্বের হিসাব বা গণনা শুরু করবেন? আস্তিকদের উচিত, আজ থেকে শূন্য সংখ্যাটা ব্যবহার করা বাদ দেওয়া। কারণ আস্তিকরা মনে করে, শূন্য বলে কিছু নাই। শূন্যের জায়গাতে সবসময় আল্লাহপাক ঘাপটি মেরে বসে থাকে।

নাস্তিকের কথা শুনে একটু ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম। আমি বলিলাম:
- আমার প্রশ্রাব ধরেছে, আমি একটু টয়লেট গিয়ে পেটের মূত্র ব্লাডারটা খালি করে আসি।

নাস্তিক হাসতে হাসতে বলিল:
- হুজুর, আপনারা আস্তিকরা তো শূন্যতে বিশ্বাস করে না। আপনারা বিশ্বাস করেন, সব জায়গাতে আল্লাহ আছে। পেটের মূত্রথলি কীভাবে খালি বা শূন্য করবেন? মূত্রথলিতে তো আল্লাহ এসে বসে আছে।

দুই কানে আঙুল দিয়ে পায়খানার দোয়া পড়তে পড়তে আমি দ্রুতপায়ে টয়লেটের দিকে এগিয়ে গেলাম:
- আল্লাহুম্মা ইন্নি আওযুবিকা মিনাল খুবুসি ওয়াল খবায়িস।