৩১ অক্টোবর, ২০১৬

খায়বার যুদ্ধ - ১৬: মুহাম্মদকে হত্যা চেষ্টা! কারণ?: কুরানে বিগ্যান (পর্ব-১৪৫): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – একশত উনিশ

লিখেছেন গোলাপ

(আগের পর্বগুলোর সূচী এখানে)

"যে মুহাম্মদ (সাঃ) কে জানে সে ইসলাম জানে, যে তাঁকে জানে না সে ইসলাম জানে না।" 

সাফিয়া বিনতে হুয়েই বিন আখতাব নামের এক অসামান্য সুন্দরী সপ্তদশী ইহুদি তরুণীর পিতা, স্বামী, ভাই ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজনদের হত্যা করার পর যখন স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এই হতভাগ্য স্বজনহারা তরুণীটিকে তাঁর তাঁবুতে নিয়ে গিয়ে 'বিবাহ বাসর' উদযাপন করছিলেন, তখন আবু আইয়ুব আল-আনসারী নামের মুহাম্মদের এক আদি মদিনাবাসী বিশিষ্ট অনুসারী কী কারণে মুহাম্মদের জীবন আশংকায় আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন; মুহাম্মদকে রক্ষার চেষ্টায় তিনি কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন - তার বিস্তারিত আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খ্রিষ্টাব্দ), আল-ওয়াকিদি (৭৪৮-৮২২ খ্রিষ্টাব্দ), মুহাম্মদ ইবনে সা'দ (৭৮৪-৮৪৫ খৃষ্টাব্দ), ইমাম বুখারী (৮১০-৮৭০ খ্রিষ্টাব্দ), ইমাম আবু দাউদ (৮১৭-৮৮৯ খৃষ্টাব্দ) প্রমুখ ইসলামে নিবেদিতপ্রাণ আদি ও বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকদের বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে, আবু আউব আল-আনসারীর এই আশংকা ও আতঙ্ক তাঁর কল্পনাপ্রসূত মনের অবাস্তব চিন্তাধারার বহিঃপ্রকাশ ছিল না। তা ছিল বাস্তবতা! খায়বার জনপদবাসীদের ওপর মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা যে-সীমাহীন নৃশংসতা প্রদর্শন করেছিলেন, তারই প্রতিক্রিয়ায় মুহাম্মদকে হত্যা চেষ্টার সম্ভাবনা ছিল প্রত্যাশিত! খায়বারে মুহাম্মদকে সত্যিই হত্যা-চেষ্টা করা হয়েছিলো! আদি উৎসের মুসলিম ঐতিহাসিকরা সেই ঘটনার বর্ণনা বিভিন্নভাবে তাঁদের নিজ নিজ গ্রন্থে লিখে রেখেছেন; সবচেয়ে বেশি প্রাণবন্ত ও বিস্তারিত বর্ণনা লিপিবদ্ধ করেছেন আল-ওয়াকিদি, তাঁর 'কিতাব আল-মাগাজি' গ্রন্থে।

"কে এই অসীম সাহসী ব্যক্তি, যে 'স্বয়ং মুহাম্মদকে' হত্যার চেষ্টা করেছিলেন?”

আল-ওয়াকিদির (৭৪৮-৮২২ খ্রিষ্টাব্দ) অব্যাহত বিস্তারিত বর্ণনা: [1] [2] [3]
পূর্ব প্রকাশিতের (পর্ব-১৪৪) পর:

(আবু আল-কেইন আল-মুযাননির কন্যা হইতে > আবু হারমালার বোন উম্মে আবদুল্লাহ হইতে > আবু হারমালা হইতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ইবনে আবি সাবরা আমাকে বলেছেন [পর্ব- ১৪৩]---)

'--- তারা যা বলেছেন তা হলো: যখন মুহাম্মদ খায়বার বিজয় করেন ও ছিলেন আত্মবিশ্বাসী, যয়নাব বিনতে আল-হারিথ (‘সাললাম বিন মিশকাম এর স্ত্রী’- [ইবনে ইশাক/তাবারী]) জিজ্ঞাসা করা শুরু করে, "ভেড়ার কোন অংশের মাংসটি মুহাম্মদের সবচেয়ে বেশি পছন্দ?" তারা জানায়, "সামনের পায়ের উপরি ভাগ (Forearm) ও গর্দানের।" সে তার এক ভেড়াকে ধরে নিয়ে আসে ও তা জবেহ করে। অতঃপর সে ক্ষমতাসম্পন্ন কিছু বিষ নেয় - সে অন্যান্য ইহুদিদের সাথে এই বিষ সম্বন্ধে পরামর্শ করেছিলো ও তারা এই বিষের ব্যাপারে বিশেষভাবে রাজি হয়েছিলো। সে ভেড়ার মাংসে বিষ মিশ্রিত করে, সামনের পা ও গর্দানের অংশে বেশি করে।

যখন সূর্য অস্তমিত যায়, আল্লাহর নবী মাগরিবের নামাজ আদায় করে তাঁর আস্তানায় প্রত্যাবর্তন করেন। তিনি দেখতে পান যে, যয়নাব তাঁর বসার আসনটিতে বসে আছে। তিনি এ ব্যাপারে যখন খোঁজ-খবর নেন, তখন সে বলে, "আবুল কাসেম, এটি একটি উপহার, যা আমি আপনার জন্য এনেছি।"

আল্লাহর নবী উপহার সামগ্রীর খাবার খেতেন, কিন্তু তিনি খয়রাতের খাবার খেতেন না। তিনি আদেশ করেন যে, তার কাছ থেকে যেন উপহারটি নেয়া হয় ও সেটি তাঁর সম্মুখে রাখা হয়। আল্লাহর নবীর অনুসারীদের, অথবা তাঁর অনুসারীদের মধ্যে যারা সেখানে উপস্থিত ছিল তাদেরকে বলেন, "কাছে এগিয়ে এসো ও খাও।" তাই তারা কাছে এগিয়ে আসে ও খাওয়া শুরু করে। আল্লাহর নবী সামনের পায়ের উপরি ভাগটি নেন, যেখানে বিশর বিন আল-বারা নেয় পায়ের নলি। আল্লাহর নবী তার এক গ্রাস খাবার খায়, বিশর খায় তার খাবারের এক গ্রাস; যখন আল্লাহর নবী তার খাদ্য গলাধঃকরণ করেন, বিশর-ও তার খাদ্য গলাধঃকরণ করে।

আল্লাহর নবী বলেন,
"থামো! নিশ্চিতই এই পায়ের উপরি ভাগ ('হাড্ডি গুলো'- [ইবনে ইশাক/তাবারী]) আমাকে বলছে যে, তাতে বিষ মিশানো হয়েছে।"

বিশর বিন আল-বারা যা বলেছে তা হলো,
"আল্লাহর কসম, যে টুকরাটি আমি খেয়েছি, তা থেকে আমি তা জানতে পেরেছি, এবং যে বিষয়টি তা আমাকে থু-থু করে ফেলে দেয়া থেকে বিরত রেখেছিল তা হলো এই যে, খাবারের সময় আপনার খাওয়ার তৃপ্তি নষ্ট করা আমি ভীষণ অপছন্দ করি; কারণ আপনার হাতে যা ছিল, তা যখন আপনি খেয়ে ফেললেন, আমি আপনার ওপর আমার হস্তক্ষেপ ভদ্রতাপূর্ণ মনে করিনি। আমি একমাত্র যা আশা করেছিলাম, তা হলো এই যে, তাতে যা খারাপ ছিল তা যেন আপনি না খান।"

বিশর তার জায়গা থেকে নড়েনি যতক্ষণে না তার গায়ের রং মাথার শালের ("Taylasan") মত হয়ে যায়। তার কষ্ট বছর কাল স্থায়ী হয় না। যে পরিবর্তনটি হয়েছিলো, তা ছাড়া তার আর কোনো পরিবর্তন হয়নি, অতঃপর তার মৃত্যু হয়। বলা হয়, সে তার স্থান পরিত্যাগ করেনি যতক্ষণে না তার মৃত্যু হয়।

আল্লাহর নবী আরও তিন বছর বেঁচেছিলেন। আল্লাহর নবী যয়নাবকে তলব করেন ও বলেন, "তুমি কি গর্দানে বিষ মিশিয়েছ?" সে বলে, "কে তোমাকে তা বলেছে?" তিনি জবাবে বলেন, "গর্দানটি।" সে বলে, "হ্যাঁ।"

তিনি জিজ্ঞাসা করেন, "কী সেই কারণ, যা তোমাকে এটি করতে অনুপ্রাণিত করেছে?"

সে বলে, "তুমি আমার পিতা, আন্কেল ও স্বামীকে খুন করেছো। তুমি আমাদের লোকদের সম্পদ লুণ্ঠন করেছো। আমি নিজেকে বলেছি: যদি সে একজন প্রফেট হয় তবে সে অবহিত হবে। যা আমি করেছি, তা ভেড়াটি তাকে জানাবে। আর যদি সে রাজা হয়, তবে তার কাছ থেকে আমাদের পরিত্রাণ মিলবে।"

তার কী পরিণতি হয়েছিলো, সে ব্যাপারে আমাদের মধ্যে মতভেদ আছে। এক ভাষ্যকার বলেছেন: আল্লাহর নবী তার ব্যাপারে আদেশ করেন ও তাকে হত্যা করা হয়, অতঃপর তাকে করা হয় ক্রুশ বিদ্ধ। অন্যজন বলেন যে, আল্লাহর নবী তাকে ক্ষমা করে দেন।

তিনজন লোক সেই খাবার খেতে বসেছিল, কিন্তু তারা তার কিছুই গলধঃকরণ করেনি। এই ভেড়ার কারণে আল্লাহর নবী তাঁর অনুসারীদের আদেশ করেন যে, তাদের মাথার মধ্যখান থেকে যেন রক্ত টানা হয়। আল্লাহর নবী তাঁর বাম হাতের বাহুর নীচ থেকে রক্ত বাহির করে নেন। বলা হয়, তিনি তাঁর ঘাড়ের পিছন থেকে রক্ত বাহির করে নেন। এক শিঙা  (horn) ও ব্লেডের মাধ্যমে আবু হিন্দ  তা অপসারণ করে।

তারা যা বলেছেন: বিশর বিন আল-বারার মাতা যা বলতো তা হলো: আমি আল্লাহর নবীর মৃত্যুকালীন অসুস্থতার সময় তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলাম। তাঁর গায়ে ছিলো জ্বর ও আমি তা অনুভব করেছিলাম ও বলেছিলাম, "আমি এমন কিছু খুঁজে পাইনি, যা কিনা আপনাকে অসুস্থ করতে পারে।" 

আল্লাহর নবী বলেন, "যেমন করে আমাদের পুরস্কার প্রদান করা হয়, তেমনই করে আমাদের পরীক্ষা প্রদানও করা হয়। জনগণ জোর দিয়ে বলছে যে, আল্লাহর নবীর ফুসফুস আবরণের অসুখ (Pleurisy) হয়েছে। আল্লাহ আমার ওপর তা প্রদান করবে না। বরং, এটা হলো শয়তানের ছোঁয়া, যার কারণ হলো খাবার খাওয়া, যা আমি ও তোমার ছেলে খায়বারে খেয়েছিলাম। আমি এই ব্যথার কষ্ট অনুভব করতেই থাকবো, যতক্ষণে না মৃত্যু এসে আমাকে গ্রাস করে।"

আল্লাহর নবী শহীদ অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন। বলা হয়, যে ব্যক্তিটি ঐ ভেড়ার মাংসের জন্য মৃত্যুবরণ করেছিলো সে হলো মুবাশশির বিন আল-বারা। কিন্তু আমরা অধিকতর নিশ্চিত যে, বিশর হলো সেই লোক। এই ব্যাপারে ঐকমত্য আছে।

আবদুল্লাহ যা বলেছেন: "তুমি আমার পিতাকে হত্যা করেছো", আল-হারিথের কন্যা যয়নাব এর এই উক্তির বিষয়ে আমি ইবরাহিম বিন জাফরকে জিজ্ঞাসা করি। সে বলেছে: তার পিতা আল-হারিথ [পর্ব-১৩৩] ও চাচা ইয়াসার কে [পর্ব-১৩৪] খায়বার অভিযানে হত্যা করা হয়েছিলো। সে ছিলো ঐ সম্প্রদায়ের সবচেয়ে জ্ঞানী ব্যক্তি। এই সেই ব্যক্তি, যাকে আল-শিইক দুর্গ থেকে নামিয়ে আনা হয়েছিল। আল-হারিথ ছিলো ইহুদিদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সাহসী ব্যক্তি। সেই সময় তার ভাই যাবির-কে হত্যা করা হয়েছিলো। তার স্বামী ছিল তাদের মাস্টার, অবশ্য তাদের মধ্যে সবচেয়ে দুঃসাহসী ব্যক্তিটি ছিল সাললাম বিন মিশকাম [স্বামী] । যখন সে আল-নাটার [পর্ব-১৩৮] দুর্গ মধ্যে অবস্থান করছিলো তখন সে ছিলো অসুস্থ, তাকে বলা হয়েছিলো, "তোমার যুদ্ধ করার শক্তি নেই, সুতরাং তুমি আল-কাতিবায় [পর্ব-১৪০] অবস্থান করো।" সে জবাবে বলেছিলো, "আমি কখনোই তা করবো না।" তাকে অসুস্থ অবস্থাতেই হত্যা করা হয়েছিলো।---'

সুন্নাহ আবু দাউদ (৮১৭-৮৮৯ সাল) বর্ণনা: [4] 

‘আবু সালামাহ হইতে বর্ণিত: আবু সালামাহ হইতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ইবনে আমর বলেছেন, এবং তিনি আবু হুরাইরার উল্লেখ করেননি: আল্লাহর নবী (তার ওপর শান্তি বর্ষিত হোক) উপহার সামগ্রী গ্রহণ করতেন, কিন্তু খয়রাত সামগ্রী (sadaqah) নয়। ----তাই খায়বারে এক ইহুদি মহিলা একটি ভেড়ার মাংস রোস্ট করে তাঁর কাছে নিয়ে আসে, যাতে সে বিষ মিশ্রিত করেছিলো। আল্লাহর নবী (তার ওপর শান্তি বর্ষিত হোক) তা খেয়ে ফেলেন ও তাঁর শিষ্যবৃন্দরাও তা খায়। অতঃপর তিনি বলেন: তোমাদের হাতগুলো সরিয়ে ফেলো (এই খাবার থেকে), কারণ এটি আমাকে বলেছে যে, তাতে বিষ মেশানো হয়েছে। বিশর বিন আল-বারা ইবনে মারুর আল-আনসারি মৃত্যু বরণ করে।

অতঃপর তিনি (নবী) সেই মহিলাটিকে ধরে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করেন (ও তাকে বলেন): "কী সেই কারণ, যা তোমাকে এই কাজটি করতে অনুপ্রাণিত করেছে, যা তুমি করেছো?"

সে বলে: যদি তুমি নবী হতে, এটি তোমার কোনো ক্ষতি করতো না; কিন্তু যদি তুমি রাজা হতে, আমি আমার লোকদের তোমার হাত থেকে নিশ্চিতই রক্ষা করতাম।"

অতঃপর আল্লাহর নবী (তার ওপর শান্তি বর্ষিত হোক) তার ব্যাপারে আদেশ করেন ও তাকে হত্যা করা হয়।

যে ব্যথার প্রকোপে তিনি মৃত্যুবরণ করেছিলেন, তিনি বলেছিলেন: যে খাদ্যের টুকরাটি আমি খায়বারে খেয়েছিলাম, তার অব্যাহত ব্যথা আমি অনুভব করছি। এটি এমন একটি সময় যখন তা আমার মহাধমনী বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে।’ - (0৩৪:৪৪৯৮)

ইমাম বুখারীর (৮১০-৮৭০ সাল) বর্ণনা: [5]

‘---আয়েশা হইতে বর্ণিত: আল্লাহর নবী তাঁর মৃত্যুকালীন অসুস্থতার সময় যা বলতেন, তা হালো, "হে আয়েশা! খায়বারে যে খাবারটি আমি খেয়েছিলাম তার সৃষ্ট ব্যথা আমি এখনও অনুভব করি, এবং এই মুহূর্তে আমি যা অনুভব করছি, তা হলো এমন যে, সেই বিষের প্রতিক্রিয়া যেন আমার মহাধমনীটি কেটে ফেলেছে।"’ – (৫:৫৯:৭১৩)

- অনুবাদ, টাইটেল ও [**] যোগ - লেখক।

>>> আদি উৎসের বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকদের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে খায়বারে অবস্থানরত অবস্থায় মুহাম্মদকে বিষ প্রয়োগে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছিলো! আর যে-ব্যক্তিটি তাঁকে হত্যা চেষ্টা করেছিলেন, তিনি ছিলেন যয়নাব বিনতে আল-হারিথা নামের এক মহিলা! আদি উৎসের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যে বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো, এই হত্যাকাণ্ডের কারণ হিসাবে দু'টি "উদ্দেশ্য (Motive)" এর উল্লেখ করা হয়েছে:

১) যয়নাব বিনতে আল-হারিথা প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে মুহাম্মদকে হত্যা চেষ্টা করেছিলেন।
কারণ, মুহাম্মদের নেতৃত্বে তাঁর অনুসারীরা যয়নাব এর পিতা আল-হারিথ, অসুস্থ স্বামী সাললাম বিন মিশকাম, দুই চাচা মারহাব ও ইয়াসার ও ভাই যাবির-কে হত্যা করেছিলেন। সাফিয়ার পিতা-স্বামী ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনদের হত্যার মতই! মুহাম্মদের নেতৃত্বে তাঁর অনুসারীরা এই সংক্ষুব্ধ মহিলাটির এইসব একান্ত নিকট আত্মীয়দের অমানুষিক নৃসংসতায় কীভাবে হত্যা করেছিলেন, তার বিস্তারিত আলোচনা "আলী ইবনে আবু তালিবের বীরত্ব!" "রক্তের হোলি খেলা - ‘নাইম’ দুর্গ দখল!" পর্বে করা হয়েছে।

২) যয়নাব এই হত্যা চেষ্টার মাধ্যমে মুহাম্মদকে পরীক্ষা করতে চেয়েছিলেন!
কী পরীক্ষা? পরীক্ষাটি হলো, মুহাম্মদ কি আসলেই "সত্য নবী?" নাকি তিনি "ভণ্ড নবী?” যদি তিনি "সত্য নবী" হন, তবে তিনি বিষ প্রয়োগের বিষয়টি আগে থেকেই অবহিত হবেন ও খাবারটি তিনি খাবেন না; বিষের যাতনা ও তার প্রতিক্রিয়ায় মৃত্যুবরণ করা থেকে তিনি নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন! কে তাঁকে এই খবরটি অবহিত করাবে? মৃত ভেড়াটি অলৌকিক উপায়ে তাঁকে তা অবহিত করাবে!

ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যা স্পষ্ট, তা হলো, "মুহাম্মদ সেই বিষ মিশ্রিত খাবার খেয়েছিলেন! আর তা খাবার পর তিনি দাবি করেছিলেন যে, ঐ ভেড়ার মাংস বা হাড্ডি তাঁকে জানিয়েছে যে, সেখানে বিষ মিশানো হয়েছে। যার সরল অর্থ হলো, 'ঐ খাবারটি খাবার আগে' মুহাম্মদ জানতে পারেননি যে, সেখানে বিষ মিশ্রিত আছে।

অন্যদিকে, আদি উৎসের আল-ওয়াকিদির ওপরে বর্ণিত বিস্তারিত বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে, বিশর বিন আল-বারা তাঁর খাবারের টুকরাটি খেয়েই জানতে পেরেছিলেন যে, সেখানে বিষ মিশ্রিত আছে, কিন্তু তিনি তা থু-থু করে ফেলে দেননি এই কারণে যে, তাতে তাঁর নবীর খাওয়ার তৃপ্তি নষ্ট হবে; কিন্তু তিনি মনে-প্রাণে আশা প্রকাশ করেছিলেন যে, নবী তা খাবেন না। খাবারের স্বাদেই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, সেখানে 'বিষ মেশানো' আছে। এখানে কোনো 'অলৌকিকত্ব' নেই!

প্রশ্ন হলো,
“কী কারণে এই ভেড়ার মাংস বা হাড্ডিগুলো (কিংবা মুহাম্মদের আল্লাহ) মুহাম্মদকে আগে ভাগেই সজাগ করে দিলো না যে, খাবারে বিষ মেশানো আছে?” তারা যদি দয়াপরবশ হয়ে একটু আগে মুহাম্মদকে এই অতি গুরুত্বপুর্ণ খবরটি জানিয়ে দিতো, তবে মুহাম্মদকে আর এতো কষ্ট পেয়ে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুবরণ করতে হতো না! তাহলে কি মৃত ভেড়াটির (কিংবা মুহাম্মদের আল্লাহর) অভিপ্রায় ছিলো এই যে, মুহাম্মদ ঐ বিষ যুক্ত খাবার ভক্ষণ করুক ও অতঃপর সেই বিষের প্রতিক্রিয়ায় ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুবরণ করুক? মুহাম্মদ যে খায়বারের এই বিষ-মিশ্রিত খাবার খেয়ে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুবরণ করেছিলেন, তা আদি উৎসের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় অত্যন্ত স্পষ্ট। যার সরল অর্থ হলো, যয়নাবের পরীক্ষায় মুহাম্মদ ফেল করেছিলেন! অর্থাৎ, যয়নাবের এই পরীক্ষা মতে “মুহাম্মদ যে এক ভণ্ড নবী” তা আমরা নিশ্চিতরূপেই জানতে পারি!

সত্য হলো,

বিশর বিন আল-বারা যেমন তাঁর খাবারের টুকরাটি খেয়ে খাবারের স্বাদেই জানতে পেরেছিলেন যে, সেখানে 'বিষ মেশানো' আছে, মুহাম্মদও একইভাবে এক টুকরা খাবার খেয়ে সেই খাবার গ্রহণের মাধ্যমেই জানতে পেরেছিলেন যে, সেখানে বিষ মিশ্রিত আছে।  এখানে কোনই 'অলৌকিকত্ব' নেই! মুহাম্মদের নৃশংস অমানবিক কর্মকাণ্ডের বৈধতা প্রদানে নিবেদিতপ্রাণ মুহাম্মদ অনুসারীরা মুহাম্মদের মৃত্যু-পরবর্তী সময়ে তাঁর নামে এরূপ অসংখ্য অলৌকিক উদ্ভট গপ্পের অবতারণা করেছেন! কুরান সাক্ষী, মুহাম্মদ তাঁর সমগ্র নবী জীবনে "একটিও" অলৌকিকত্ব হাজির করতে পারেননি। এই বিষয়ের বিস্তারিত আলোচনা "মুহাম্মদের মোজেজা তত্ত্ব (পর্ব: ২৩-২৫)" পর্বে করা হয়েছে।

সত্য হলো, যয়নাব বিনতে আল-হারিথ ছিলেন সাফিয়া বিনতে হুয়েই বিন আখতাব এর মতই এক হতভাগ্য মহিলা! কিন্তু তিনি সাফিয়ার মত নরম প্রকৃতির মানুষ ছিলেন না। তাঁর অসীম সাহসী পিতা, চাচা, ভ্রাতা ও স্বামীর মতই তিনিও ছিলেন এক নির্ভীক ও দুঃসাহসী বীর যোদ্ধা! তিনি ছিলেন এমনই এক অকুতোভয় মহিলা, যিনি "স্বয়ং মুহাম্মদকে" হত্যা চেষ্টা করেছিলেন!

মুহাম্মদের নৃশংস কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে এটি ছিলো তাঁর যুদ্ধ!

ইসলামী ইতিহাসের ঊষালগ্ন থেকে আজ অবধি প্রায় প্রতিটি ইসলাম বিশ্বাসী প্রকৃত ইতিহাস জেনে বা না জেনে ইতিহাসের এ সকল অমানবিক অধ্যায়গুলো যাবতীয় চতুরতার মাধ্যমে বৈধতা দিয়ে এসেছেন। বিষয়গুলো অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় বাংলা অনুবাদের সাথে আল-ওয়াকিদির মূল ইংরেজি অনুবাদের অংশটিও সংযুক্ত করছি। ইবনে ইশাকের মূল ইংরেজি অনুবাদ ইন্টারনেটে বিনামূল্যে ডাউনলোড লিঙ্ক: তথ্যসূত্র [2]

The detailed narrative of Al-Waqidi (continued): [1]

‘They said: When Muhammad conquered Khaybar and was confident, Zainab bt. Al-Harith began to ask, “What part of lamb is most desirable to Muhammad?” They said, “The forearm and the shoulder.” She approached a goat of hers and slaughtered it. Then she took some potent poison - she had consulted the Jews about poison and they agreed over these poison specially. She poisoned the lamb, putting more on the forearms and shoulders.

When the sun went down, the Messenger of God prayed the Maghrib prayer and turned back to his house.  He found Zaynab sitting in his seat. He inquired about it and she says, “Abul Qasim, it is a gift I bring you.” The Messenger of God used to eat gifts, but he would not eat charity. He commanded that the gift be taken from her and placed before him. Then the Messeneger of God said to his companions who were attending, or those who attended among them: “Draw near and eat.” So they came close and put out their hands. The Messenger of God took the forearm, while Bishr b. Al-Bara took the shinbone. The Messenger of God took a bite of it, and Bishr took a bite, and when the Messenger of God swallowed his food, Bishr also swallowed his. The Messenger of God said, “Stop! Surely this forearm informs me that it is poisoned.” 

Bishr b. al-Bara said, “By God, I found that from the bite I ate, and what prevented me from spitting it out was that I hated to spoil your pleasure at your food, for when you swallowed what was in your hand I would not favor myself over you. I hoped only that you did not eat what was bad in it.” Bishr did not move from his place until his color became like a head shawl (taylasan). His pain did not last a year. He did not change, except what was changed, and he died of it. It was said that he did not leave his place until he died.

The Messenger of God lived for three more years. The Messenger of God called Zaynab, and said, “Did you poison the shoulder?” She said, “Who told you?” He replied, “The shoulder.” She said, “Yes.” He asked, “What persuaded you to do that?” She said, “You killed my father, my uncle and my husband. You took from my people what you took. I said to myself: If he is a prophet he will be informed. The sheep will inform him of what I did. If he is a king, we will be relieved of him.” There was disputation among us about her. A sayer said: The Messenger of God commanded about her and she was killed, then crucified. Another said that he had pardoned her. Three individuals put their hands in the food but did not swallow any of it. The Messenger of God commanded his companions to draw blood from the middle of their heads because of the sheep. The Messenger of God cupped blood from under his left arm. It was said he cupped blood from the nape of his neck. Abu Hind removed it with a horn and blade.

They said: The Mother of Bishr b.al-Bara used to say: I visited the Messenger of God during the sickness of which he died. He was feverish and I felt him and said, “I have not found what makes you sick on any other.” The Messenger of God said, “Just as rewards are given us, so are trials inflicted on us. People claim that the Messenger of God has pleurisy. God would not inflict it upon me. Rather, it is touch of Satan caused by eating what I, and your son ate on the day of Khaybar. I will continue to feel pain until the time of death overwhelms me.” The messenger of God died of martyr. It was said that he who died of the lamb was Mubashshir b. al-Bara. But Bishr is better confirmed with us. There is agreement upon it.

Abdullah said: I asked Ibrahim b Jafar about the words of Zaynab, daughter of al-Harith, “You killed my father.” He said: Her father al-Harith and her uncle Yasar were killed on the day of Khaybar. He was the most knowledgeable of the people. It was he who was brought down from al-Shiqq. Al-Harith was the bravest of the Jews. His brother Zabir was killed at that time. Her husband was their master, but the bravest of them was Sallam b. Mishkam. He was sick while he was in the fortress of al-Nata and it was said to him, “You have no strength to fight, so stay in al-Katiba.” He replied, “I will never do that.” He was killed when he was sick. ----‘  

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:

[1] “কিতাব আল-মাগাজি”- লেখক:  আল-ওয়াকিদি (৭৪৮-৮২২ খৃষ্টাব্দ), ed. Marsden Jones, লন্ডন ১৯৬৬; ভলুম ২, পৃষ্ঠা ৬৭৭-৬৭৯; ইংরেজি অনুবাদ: Rizwi Faizer, Amal Ismail and Abdul Kader Tayob; ISBN: 978-0-415-86485-5 (pbk); পৃষ্ঠা ৩৩৩-৩৩৪

[2] অনুরূপ বর্ণনা: “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ: A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৫১৬

[3] অনুরূপ বর্ণনা: “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৮, ইংরেজী অনুবাদ: Michael Fishbein, University of California, Los Angeles, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, ISBN 0-7914-3150—9 (pbk), পৃষ্ঠা (Leiden) ১৫৮৩-১৫৮৪

Narated By Abu Salamah: Muhammad ibn Amr said on the authority of Abu Salamah, and he did not mention the name of Abu Hurayrah: The Apostle of Allah (pbuh) used to accept presents but not alms (sadaqah). This version adds: So a Jewess presented him at Khaybar with a roasted sheep which she had poisoned. The Apostle of Allah (pbuh) ate of it and the people also ate. He then said: Take away your hands (from the food), for it has informed me that it is poisoned. Bishr ibn al-Bara' ibn Ma'rur al-Ansari died. So he (the Prophet) sent for the Jewess (and said to her): What motivated you to do the work you have done? She said: If you were a prophet, it would not harm you; but if you were a king, I should rid the people of you. The Apostle of Allah (pbuh) then ordered regarding her and she was killed. He then said about the pain of which he died: I continued to feel pain from the morsel which I had eaten at Khaybar. This is the time when it has cut off my aorta.


--- Narrated 'Aisha: The Prophet in his ailment in which he died, used to say, "O 'Aisha! I still feel the pain caused by the food I ate at Khaibar, and at this time, I feel as if my aorta is being cut from that poison."