২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

দু'টি ইছলামী বিনুদুন


ইরানে মানবাকৃতির রোবট তৈরি করা হয়েছে। তার নাম রাখা হয়েছে প্রাচীন এক যোদ্ধার নামে: Surena 2. রোবটটির উদ্বোধন করেছেন প্রেসিডেন্ট স্বয়ং।

আশা করেছিলাম, ইরানের রোবট হবে সাচ্চা মুসলিম চেহারার: দাড়িওয়ালা, টুপি পরা! দেখে হতাশ হলাম।

এই রোবট তৈরির লক্ষ্য কী, তা এখনও জানানো হয়নি। তবে আসুন, আমরা কল্পনা করি, এই রোবটটি ইরানে কী কী কাজে আসতে পারে:

১. আত্মঘাতী বোমা হামলায় (কিন্তু সুরেনা পরকালে ৭২টি কুমারী পাবে কি?),

২. মেয়েদের পাথর ছুঁড়ে হত্যা করার কাজটি "মানবিক" (বা রোবটিক) করার লক্ষ্যে,

৩. তসবিহ গণনা স্বয়ংক্রিয়করণে,

৪. ...

#


একটি ক্ষেত্রে তোতাপাখির সঙ্গে অধিকাংশ মুসলিমের কোনও তফাত নেই। তোতা যা বলে, না বুঝেই বলে। নামাজ পড়ার সময় সুরা উচ্চারণ করা বা কোরান মুখস্থ বলা মুসলিমরাও কাজটি করে কিন্তু না বুঝেই।

সে-কারণেই কি না, জানি না, তবে আরব দেশে কোরানের আয়াত জানা ও মোনাজাত করতে পারা তোতাপাখির বিপুল চাহিদা! একটি মাওলানা-তোতাপাখির মূল্য সর্বোচ্চ সাড়ে দশ হাজার ডলারেরও বেশি হতে পারে!

লতা মুঙ্গেশকর মুসলিম হলে এবং হামদ-নাত গেয়ে অভ্যস্ত হলে তাঁর গাওয়া একটি গানের কলির একটি শব্দ বদলে দিয়ে গাইতে পারতেন: "হতাম যদি তোতাপাখি, তোমায় কোরান শোনাতাম..."

(ধর্মকারীর আর্কাইভ থেকে)