১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

"যাহারা অপচয় করে, তাহারা শয়তানের ভাই"

লিখেছেন শেখ মিলন

ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী চলে কোটি কোটি টাকা আর লক্ষ লক্ষ প্রাণ নিয়ে ধর্ম-ধর্ম খেলা।

সারা বিশ্বের কথা বাদ দিয়ে আমাদের হতদরিদ্র এই বাংলাদেশের কথাতেই আসি। "বাংলাদেশ ট্যানার্স এসোসিয়েশনে" (বিটিএ)-এর তথ্যানুযায়ী - আমাদের দেশে গত বছর (২০১৫) প্রায় ৭০ লক্ষ গরু, খাসি ও অন্যান্য পশু কোরবানি হয়েছিল। তার মধ্যে ৩৩ লক্ষ ১২ হাজার ৮৫১ টি গরু এবং ৩৬ লক্ষ ৪৭ হাজার ১৪৯ লাখ খাসি ও অন্যান্য পশু কোরবানি করা হয়। 

গরু প্রতি গড় মূল্য নূন্যতম ৪০ হাজার টাকা ধরলে এই ৩৩ লক্ষ ১২হাজার ৮৫১ টি গরুর বাজারমূল্য হয় ১৩,২৫১ (তেরো হাজার দুশো একান্ন) কোটি ৪০ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা।

খাসি ও অন্যান্য পশুর প্রতি গড় মূল্য ১০,০০০ হাজার টাকা ধরলে এই ৩৬ লক্ষ ৪৭ হাজার ১৪৯ টির মূল্য - ৩,৬৪৭ (তিন হাজার ছ'শো সাতচল্লিশ) কোটি ১৪ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা। এবং শুধু কুরবানি খাতে মোট ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ১৬,৮৯৮ (ষোলো হাজার আটশো আটানব্বই) কোটি ৫৫ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা। 

আবার গত বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লক্ষ ৭ হাজার ২৯০ জন হজ্বে গিয়েছিলেন। প্রতি জনে গড়ে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় ধরলে মোট ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়ায় ১৭,০০৬ (সতেরো হাজার ছয়) কোটি ৫৫ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা।

এখন কুরবানি এবং হজ্ব মিলিয়ে মোট ব্যয়ের পরিমাণ দাঁড়াচ্ছে ৩৩,৯০৫ (তেত্রিশ হাজার ন'শো পাঁচ) কোটি ৭০ হাজার টাকা বা প্রায় ৩৪ হাজার কোটি টাকা। 

৩৪ হাজার কোটি লেখার জন্য কতটি শূন্য লাগে, একবারও কি ভেবে দেখেছেন?