২৪ জুন, ২০১৬

'রঙ্গিলা রাসুল' সমাচার, পাকিস্তানের জন্মে এর সম্ভাব্য ভূমিকা এবং পাকিস্তানে ব্ল্যাসফেমি আইন

লিখেছেন মার্ক এন্টনি

রঙ্গিলা রাসুল এবং এবং একজন জাতীয় বীর ‘ইলমুদ্দিন’

১৯২০-এর দশকে পাঞ্জাবের মুসলিমরা এবং হিন্দু আর্য সমাজ একটি একটি রাজনৈতিক সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছিল। মুসলিমরা একটি পুস্তিকা বা প্যামফ্লেট প্রকাশ করে, যেখানে হিন্দুদের দেবী সীতাকে পতিতা হিসেবে দেখানো হয়। বলা হয়, এরই প্রতিশোধ নেবার জন্য আর্য সমাজের স্বামী দয়ান্দের এক অনুসারী কৃষ্ণ প্রসাদ প্রতাব, পণ্ডিত চামুপতি লাল ছদ্মনামে একটি পুস্তিকা লেখেন। এর নাম ছিল “রঙ্গিলা রাসুল।” লাহোরের এক প্রকাশক রাজপাল ১৯২৩ সালে পুস্তিকাটি প্রকাশ করেন। এই পুস্তিকায় নবী মুহম্মদের সাথে হজরত আয়শার বিবাহকে ফোকাস করা হয় যে, আয়শা ছিল নবী মুহম্মদের থেকে বয়সে অনেক ছোট। আর সেই সাথে প্রকাশ করা হয় বহুবিবাহের কুপ্রভাবসহ বিভিন্ন বয়সী নারীকে বিবাহের সমস্যাবলি। এই পুস্তিকাতে বেশ কিছু নির্দিষ্ট হাদিসেরও উল্লেখ ছিল।

মুসলিমরা এই পুস্তিকার বিষয়াবলির ওপর প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়ে এই ব্যাপারটিকে আদালতে নিয়ে যায়। আদালত রাজপালকে দোষী হিসেবে সাব্যস্ত করে। পরবর্তীতে আপিল করা হলে কোর্ট এই বিচারকে সমর্থন করে। যাইহোক, রাজপাল এরপর হাইকোর্টে যায়। হাইকোর্ট তাকে নির্দোষ প্রমাণ করে, কারণ তিনি যা করেছেন, তা ইন্ডিয়ান পেনাল কোড-এর ১৫৩ ধারা অনুযায়ী কোনো অপরাধের মধ্যে পড়ে না। হাইকোর্টের এই সিদ্ধান্ত মুসলিমদেরকে গভীরভাবে ক্ষুব্ধ করে।

ইলমুদ্দিন নামে ১৯ বছর বয়সী এক কাঠমিস্ত্রীর ছেলে তার বন্ধুদের সাথে লাহোরের মসজিদ ওয়াজির খান এর পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। তারা তখন মসজিদের মোল্লার জ্বালাময়ী ভাষণ শোনে, যেখানে ইসলামের নবীকে অমর্যাদাকারী ধর্মদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য লোকজনকে একত্রিত করা হচ্ছিল। বলা হয়, এই ভাষণদাতা ছিলেন সৈয়দ আতাউল্লাহ শাহ বুখারি, আর ভাষণটি দেয়া হয়েছিল ১৯২৯ সালের ৬ এপ্রিলে। ভাষণ শুনে ইলমুদ্দিন এক রুপি দিয়ে একটি ছুরি কেনে। এরপর সে লাহোরের ঊর্দু বাজারে রাজপালের দোকানে যায় এবং রাজপালকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। সে পালিয়ে যাবার কোনো চেষ্টা করেনি। এতে তাকে তৎক্ষণাৎ গ্রেফতার করা হয় এবং মিয়ানওয়ালি কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

ইলমুদ্দিন এমন একজনকে হত্যা করে, যিনি সেই লেখাটার লেখক ছিলেন না। হয়তো ইলমুদ্দিন এবং রাজপালের কেউই সেই পুস্তিকাটি পড়েনি। কিন্তু সেই মোল্লার তীব্র ভাষণ এই ১৯ বছরের কিশোরকে সেদিন জঘন্যতম অপরাধটি করতে প্রভাবিত করেছিল, তাও এমন একজনকে, যাকে সে কোনোদিন চোখেও দেখেনি।

বিচারে ইলমুদ্দিনের পক্ষের আইনজীবী ফারুক হুসাইন দাবি করেন, ইলমুদ্দিন দোষী নয়, তাকে প্রভাবিত করা হয়েছিল। কিন্তু আদালত ইলমুদ্দিনের বিরুদ্ধে রায় দেয় এবং তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। এরপর লাহোর হাইকোর্টে একটি আপিল করা হয়, যেই আপিলের আইনজীবী ছিলেন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। কিন্তু যাই হোক, মামলাটিতে তার পরাজয় হয়। পরবর্তীতে ইলমুদ্দিন রাজা পঞ্চম জর্জের প্রতি একটি মার্সি পিটিশন বা ক্ষমা চেয়ে দরখাস্ত করে, যাকে প্রত্যাখ্যান করা হয়।

১৯২৯ সালের ৩১ শে অক্টোবর ইলমুদ্দিনের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। মিয়ানওয়ালিতে ইলমুদ্দিনকে কবর দেয়া হয় যেখানে মুসলিমরা তার লাশকে লাহোরে দাফন করতে চেয়েছিল। ব্রিটিশরা ভয় পেয়েছিল যে, এটা এক ধরনের উত্তেজনা তৈরি করবে, যা হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা তৈরি করতে পারে। কেবল আল্লামা মুহম্মদ ইকবাল এবং মিয়া আবদুল আজিজ এর নিশ্চিন্তকরণের পরই তার দেহ কবর থেকে ১৫ দিন পর তুলে আনা হয় এবং লাহোরে আবার কবর দেয়া হয়।

ইলমুদ্দিনের লাশ ১৯২৯ সালের ১৪ই নভেম্বরে পুনরায় কবর থেকে তোলা হয়। দুই দিন পর লাশ লাহোরে পোঁছে। সমস্ত শহর এবং আশেপাশের অনেক অঞ্চল থেকে মুসলিমরা তার জানাজায় আসে। ডঃ আল্লামা ইকবালকে ইলমুদ্দিনের বাবা জানাজার নামাজের ইমাম হতে বলেন। কিন্তু ইকবাল সাহেব সেটা করতে চাননি। তিনি বলেন, “আমি একজন পাপী ব্যক্তি, ইসলামের এই বীরের জানাজার নামাজের ইমাম হবার যোগ্যতা আমার নেই।” দুই লক্ষ মুসলিম এই জানাজায় অংশগ্রহণ করেছিল, যা মসজিদ ওয়াজির খান-এর ইয়াম ইমাম মুহম্মদ শামসুদ্দীন নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কবি এবং সাংবাদিক মওলানা জাফর আলী সেখানে বলেন, “হায়! যদি আমি এরকম এক আশীর্বাদপুষ্ট সম্মান অর্জন করতে পারতাম!” আল্লামা ইকবাল এই লাশ বহন করে নিয়ে যান। যখন ইকবাল সাহেব এই লাশটিকে তার কবরে রাখতে যাচ্ছিলেন, তখন তিনি বলেন, “এই অশিক্ষিত তরুণটি আমাদের মত শিক্ষিতদেরকে ছাড়িয়ে গেছে।”

সেদিন মুসলিম নেতাদের আচরণ আশানুযায়ী ছিল না। স্যার মুহমদ ইকবাল, যিনি পরবর্তীতে পাকিস্তানের জাতীয় কবি হন, এবং মওলানা জাফর আলী খান কেবল তার প্রশংসাই করেননি, তাকে বীরের মর্যাদা দেন।

(চলবে)