২৮ এপ্রিল, ২০১৬

আজ কটি খুন হল?

বিএনপি-র শাসনামলে হুমায়ুন আজাদ রচিত নিচের কবিতাটি নজরে পড়লো বিকাশ মজুমদারের সৌজন্যে। এখনও তা কী ভীষণ সমসাময়িক! কী ভীষণ বাস্তব! ঘটনাক্রমে আজ হুমায়ুন আজাদ-এর জন্মদিন। 

আজ কটি খুন হল? মাত্র ৫২৫?
বেশ। আমি একটু বেশি ভাবি, ভেবেছিলাম ২,০২০;
তাহলে কমেছে খুন? বেশ। কটি নারী হয়েছে ধর্ষিতা?
মাত্র ৭৭০? বেশ; কী নাম তাদের? মনোয়ারা, মায়ারানী, গীতা,
আনোয়ারা, উর্মিলা? তাহলে ধর্ষণ কমেছে? পরিস্থিতি
এখন অনেক ভালো? আইনশৃঙ্খলার হয়েছে বিস্ময়কর উন্নতি?
কটি ছিনতাই হয়েছে আজ? বেশি নয়? ঢাকাতেই মাত্র ৮১৮?
বেশ, বেশ ভালো; আমি ভেবেছিলাম বুঝি ১০,০১২।
ততোটা হয় নি? বাসটাসট্রাক দুর্ঘটনায় মরেছে কজন?
মাত্র ১০টি বাস উলটে পরেছে খন্দে? এতো কম? আত্মীয়স্বজন
খুঁজছে লাশ? পাচ্ছে না? বেশ, না পাওয়াই ভালো।
লঞ্চ ডুবেছে ২খানি মাত্র? আবহাওয়া চমৎকার ছিলো? যাত্রীরা ঠাণ্ডা কালো
জল সাঁতরিয়ে ব্রজেন দাশের মতো নিশ্চয়ই উঠে গেছে পারে।
মাত্র ১,৫০০ লাশের জন্য ভাইবোন আত্মীয়রা হাহাকারে
নষ্ট করছে নদীর পারের স্নিগ্ধ নীরবতা? এ অন্যায়। কী দরকার বেঁচে?
কী সুখ বাঁচায়? ভালোই তো, আল্লার মাল আল্লা নিয়ে গেছে।
ক-শো কোটি খেয়েছে আমলারা? মাননীয় দরদী মন্ত্রীরা ক-শো
কোটি? ১০,০০০ কোটি নয়? বহু কম? বেশ, মাত্র ৬০০
কোটি? তাহলে চলবে কীভাবে গণতন্ত্র? এ কেমন কথা?
আপনি আচরি ধর্ম তারা অসৎ জনগণকে শেখাচ্ছে সততা?
হাজতে হৃদযন্ত্র থেমে গেছে কজনের? পুলিশ তাদের প্রহার না ক’রে
চুম্বন করছে? পুলিশের দৃঢ় আলিঙ্গনে, শৃঙ্গারে, পুলকের জ্বরে
ম’রে গেছে ১২৫ জন? তবু ভালো ৫২৫ জন নয়,
পুলিশের কী দোষ? ওদের দেহের অন্ত্রগুলো - বৃক্ক হৃৎপিণ্ড যকৃত হৃদয়
নিশ্চই রুগ্ন ছিলো; তবে মরে তারা ষড়যন্ত্র করে গেছে
রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে, যখন ওমরা করে পট্টি বেঁধে দেশে গণতন্ত্র এসেছে।
রংপুরে মঙ্গা চলছে? চলুক। মরছে? মরুক। পেঁয়াজের কেজি এখন ৪০?
এতো কম? এতো শস্তা? বেশ ভালো, হতে পারতো ১২০।
আমলারা ভালো আছে? মন্ত্রীরা? কাস্টমস? কালোবাজারিরা?
বেশ, তারা ভালো থাকলেই ভালো থাকব আমরা তুচ্ছ ভিখারিরা।
স্তব কর। কোনো কথা নয়। চুপ। গণতন্ত্র এসেছে, কথা অপরাধ,
মসজিদ তোল, পাড়ার মাইকে, টেলিভিশনে সম্প্রচার কর মৌলবাদ;
মানুষ মরুক, মঞ্জুরা ধর্ষিত হক, চলুক ছিনতাই; কী সুন্দর মেষে
পরিণত হয়ে সুখে আছি খালেদা আর গোলাম আজমের দেশে!

কবিতাটি তিনি যদি এখন লিখতেন, তাহলে তাতে ধারাবাহিক নাস্তিক হত্যার প্রসঙ্গও থাকতো নিশ্চয়ই এবং বদলে যেতো শেষ চরণটি।