৪ মার্চ, ২০১৬

হুদাইবিয়া সন্ধি- ৬: উসমান ইবনে আফফান হত্যার গুজব! কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ১১৬): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – নব্বুই

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯ পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২ > পর্ব ৭৩ > পর্ব ৭৪ > পর্ব ৭৫ > পর্ব ৭৬ > পর্ব ৭৭ > পর্ব ৭৮ > পর্ব ৭৯ > পর্ব ৮০ > পর্ব ৮১ > পর্ব ৮২ > পর্ব ৮৩ > পর্ব ৮৪ > পর্ব ৮৫ > পর্ব ৮৬ > পর্ব ৮৭ > পর্ব ৮৮ > পর্ব ৮৯ > পর্ব ৯০ > পর্ব ৯১ > পর্ব ৯২ > পর্ব ৯৩ > পর্ব ৯৪ > পর্ব ৯৫ > পর্ব ৯৬ > পর্ব ৯৭ > পর্ব ৯৮ > পর্ব ৯৯ > পর্ব ১০০ > পর্ব ১০১ > পর্ব ১০২ > পর্ব ১০৩ > পর্ব ১০৪ > পর্ব ১০৫ > পর্ব ১০৬ > পর্ব ১০৭ > পর্ব ১০৮ > পর্ব ১০৯ > পর্ব ১১০ > পর্ব ১১১ > পর্ব ১১২ > পর্ব ১১৩ > পর্ব ১১৪ > পর্ব ১১৫

আগের পর্বগুলোর সূচী: এখানে

"যে মুহাম্মদ (সাঃ) কে জানে সে ইসলাম জানে, যে তাঁকে জানে না সে ইসলাম জানে না।"

মক্কা শহর থেকে ৯ মাইল দূরবর্তী ছোট্ট শহর হুদাইবিয়া নামক স্থানে অবস্থানকালে যখন বুদায়েল বিন ওয়ারকা আল-খুযায়ি নামের এক লোক ও তার সঙ্গীরা স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর সাথে দেখা করে তাঁর মক্কা আগমনের কারণ জানতে চেয়েছিলেন, তখন মুহাম্মদ তাদের কী জবাব দিয়েছিলেন; বুদায়েল বিন ওয়ারকার কাছ থেকে মুহাম্মদের সেই জবাবটি শোনার পর কুরাইশরা তা কী কারণে বিশ্বাস করেননি; বুদাইলের সংবাদের ওপর আস্থাহীন কুরাইশরা কী কারণে মুহাম্মদের কাছে তাঁদের বেশ কিছু প্রতিনিধি প্রেরণ করেছিলেন; কালো সেনাদলের ('আহাবিশ: বিভিন্ন ছোট ছোট গোত্র ও উপগোত্রের লোক সম্মিলিত বাহিনী, যারা কুরাইশদের সাথে মৈত্রী স্থাপন করেছিলেন') প্রধান আল-হুলায়েস বিন আলকামা নামের এক কুরাইশ প্রতিনিধি কী কারণে মুহাম্মদের কাছে না গিয়েই মাঝপথ থেকে তাঁদের কাছে ফিরে এসেছিলেন ও কী কারণে তিনি কুরাইশদের প্রতি ক্রুদ্ধ হয়েছিলেন; উরওয়া বিন মাসুদ আল-থাকাফি নামের কুরাইশদের আর এক প্রতিনিধি যখন মুহাম্মদের সাথে কথা বলছিলেন, তখন আবু বকর ইবনে কুহাফা তাঁকে কী কারণে অশ্রাব্য গালি বর্ষণ ও অপমান করেছিলেন;, সেই একই আলোচনাকালে আল-মুঘিরা বিন শুবা নামের মুহাম্মদের আর এক অনুসারী কুরাইশদের এই প্রতিনিধিকে কী কারণে শারীরিক আঘাত করেছিলেন - ইত্যাদি বিষয়ের আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের (৭০৪-৭৬৮ সাল) বর্ণনার পুনরারম্ভ: [1] [2] [3]

পূর্ব প্রকাশিতের (পর্ব: ১১৫) পর:

এক বিদ্বান ব্যক্তি আমাকে বলেছেন (আল-তাবারী: 'হুমায়েদ < সালামাহ < ইবনে ইশাক <এক বিদ্বান ব্যক্তি হইতে বর্ণিত): 'আল্লাহর নবী খিরাশ বিন উমাইয়া আল-খুযায়ি (Khirash b. Umayya al-Khuza'i)-কে তলব করেন ও তাকে আল-থালাব (al-Tha'lab) নামের তাঁর উটগুলোর একটির পিঠে আরোহী করান ও কী কারণে তিনি এখানে এসেছেন, তা তাঁর পক্ষ হতে কুরাইশ নেতাদের অবহিত করানোর জন্য মক্কায় কুরাইশদের কাছে প্রেরণ করেন। তারা আল্লাহর নবীর উটটির পেছনের পায়ের মাংসপেশি কেটে দেয়  (hamstrung) ও এই লোকটিকে হত্যা করতে চায়, কিন্তু কালো সৈন্যরা (তাবারী: 'আহাবিশ') তাকে রক্ষা করে ও তাকে তার রাস্তায় যেতে দেয়, তাই তিনি আল্লাহর নবীর কাছে ফিরে আসেন।' [4]  

ইবনে আব্বাসের নিকট আশ্রিত (Mawla) ইকরিমার কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এক সন্দেহাতীত ব্যক্তি আমাকে বলেছেন যে, কুরাইশরা ৪০-৫০ জন লোকের একটি দলকে আল্লাহর নবীর শিবির ঘেরাও ও তাঁর অনুসারীদের একজনকে তাদের কাছে ধরে নিয়ে আসার জন্য পাঠান; কিন্তু তারা ধরা পড়ে ও তাদেরকে আল্লাহর নবীর কাছে নিয়ে আসা হয়, তিনি তাদেরকে ক্ষমা করেন ও তাদের পথে ছেড়ে দেন। তারা পাথর ও তীর নিক্ষেপ করে শিবিরে হামলা চালিয়েছিল। [5]

অতঃপর তিনি উমর-কে একই বার্তাসহ মক্কায় প্রেরণ করার জন্য তলব করেন। কিন্তু উমর তাঁকে বলেন যে তিনি কুরাইশদের হাতে মৃত্যু ভয়ে ভীত এই কারণে যে, মক্কায় তাঁকে রক্ষা করার জন্য বানু আদি বিন কা'ব গোত্রের [6] কোনো লোক নেই ও কুরাইশদের বিরুদ্ধে তার শত্রুতা ও রুক্ষ আচরণের বিষয়ে তারা অবগত। তিনি সুপারিশ করেন যে, সেখানে তার চেয়ে বেশি পছন্দের কোনো লোককে যেন পাঠানো হয়, যেমন উসমান।

আল্লাহর নবী উসমানকে তলব করেন ও তাকে আবু সুফিয়ান ও অন্যান্য কুরাইশ নেতাদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দেয়ার জন্য প্রেরণ করেন যে, তিনি যুদ্ধ করার জন্য আসেননি, তিনি এসেছেন নিছক কাবা ঘর পরিদর্শন করতে ও এই পবিত্র স্থানে শ্রদ্ধা জানাতে। যখন উসমান মক্কায় প্রবেশ করেছেন অথবা প্রবেশ করতে যাচ্ছেন, এমন সময় আবান বিন সাইদ বিন আল-আস (Aban b. Sa'id b. al-'As) তার সাথে দেখা করেন ও তাকে নিয়ে যাওয়ার জন্য তার সম্মুখে হাজির হন। অতঃপর তিনি তার নিরাপত্তা দেন, যেন তিনি আল্লাহর নবীর বার্তা তাদেরকে জানাতে পারেন [7]

উসমান যা বলতে চায়, তা শোনার পর তারা বলেন, "যদি তুমি কাবা-শরীফ প্রদক্ষিণ করতে চাও, যাও প্রদক্ষিণ করো।" তিনি বলেন যে, মুহাম্মদের করার আগে তিনি তা করতে পারেন না; কুরাইশরা তাকে তাদের সঙ্গে ধরে রাখে। আল্লাহর নবী ও মুসলমানদের কাছে এই মর্মে খবর পৌঁছে যে, "উসমান-কে হত্যা করা হয়েছে।"’

'আবদুল্লাহ বিন আবু বকর আমাকে বলেছেন যে, যখন আল্লাহর নবী শুনতে পান, উসমানকে হত্যা করা হয়েছে, তিনি বলেন, শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ না করে তারা প্রস্থান করবেন না; তিনি তাঁর লোকদের অঙ্গীকারে (শপথ) আবদ্ধ করার জন্য তলব করেন। একটি গাছের নিচে এই ‘রিযওয়ানের শপথ (The pledge of al-Ridwan)'-টি সম্পন্ন হয়। লোকেরা যা বলতো, তা হলো - আল্লাহর নবী তাদেরকে আমরণের (unto death) অঙ্গীকার পাশে আবদ্ধ করেছিলেন। জাবির বিন আবদুল্লাহ (Jabir b. 'Abdullah)  যা বলতেন, তা হলো - আল্লাহর নবী তাদেরকে আমরণের জন্য এই অঙ্গীকারে আবদ্ধ করেননি, বরং তারা অঙ্গীকার করেছিলেন এই মর্মে যে, তারা পলায়ন করবে না। একমাত্র আল-জাদ বিন কায়েস নামের বানু সালিমা গোত্রের এক ভাই ছাড়া সেখানে উপস্থিত সকল মুসলমানই এই অঙ্গীকারে হাতে হাত মিলিয়েছিলেন। জাবির যা বলতেন, তা হলো: "আল্লাহর কসম, আমার এখনও প্রায়ই মনে পড়ে, কীভাবে সে লোকজনদের কাছ থেকে নিজেকে আড়াল করার চেষ্টায় ভয়ে কুঁকড়ে তার উটটির পাশে লেগেছিল (cringing)।"

অতঃপর আল্লাহর নবী জানতে পারেন, উসমান সম্পর্কিত ঐ খবরটি মিথ্যা।

আল-ওয়াকিদিরি (৭৪৮-৮২২ খ্রিষ্টাব্দ) অতিরিক্ত বর্ণনা:

'---আল-হুদাইবিয়ায় আল্লাহর নবী তাঁর অনুসারীদের এই আদেশ দেন, তারা যেন রাত্রিবেলা পাহারা বসায়। তাঁর অনুসারীদের একজন সকাল হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত সারা রাত জেগে ঘুরে ঘুরে পাহারা দেয়। যে-তিনজন অনুসারী পালাক্রমে এই পাহারায় অংশ নেন, তারা হলেন আউস বিন খাওলি, আব্বাস বিন বিশর ও মুহাম্মদ বিন মাসলামা [পর্ব- ৪৮]।

যে-রাত্রিতে উসমান মক্কায় গমন করেন, মুহাম্মদ বিন মাসলামা আল্লাহর নবীর মালিকানাধীন এক ঘোড়ায় ওপর ছিলেন। সেই রাত্রিতে কুরাইশরা মিখরাজ বিন হাফস-এর নেতৃত্বে ৫০ জন লোককে পাঠিয়েছিল। তাদের প্রতি নির্দেশ ছিল, তারা যেন আল্লাহর নবীর শিবিরের চারিদিকে যায় এই আশায় যে, যদি তারা তাদের একজনকে ধরতে পারে অথবা অতর্কিত আক্রমণে তাদেরকে বন্দী করতে পারে। কিন্তু তার পরিবর্তে মুহাম্মদ বিন মাসলামা ও তার সঙ্গীরা তাদেরকে ধরে ফেলে ও আল্লাহর নবীর সম্মুখে তাদেরকে নিয়ে আসে।

উসমান কুরাইশদের সাথে মধ্যস্থতা করার জন্য তিন রাত্রি মক্কায় ছিলেন, সে সময় আল্লাহর নবীর অনুমতিক্রমে কিছু মুসলমান তাদের পরিবারের লোকদের সাথে দেখা করার জন্য মক্কার ভেতরে প্রবেশ করে। অতঃপর আল্লাহর নবীর কাছে এই মর্মে খবর আসে যে উসমান ও তার সঙ্গীদের হত্যা করা হয়েছে, তাই তিনি আলোচনার আহ্বান জানান। কুরাইশ সঙ্গীদের ধৃত হওয়ার খবর কুরাইশদের কাছে পৌঁছে। একদল কুরাইশ আল্লাহর নবীর কাছে আসে ও তাঁকে লক্ষ্য করে তারা তীর ও প্রস্তর নিক্ষেপ করে। সেই সময় আবারও মুসলমানরা মুশরিকদের এই লোকগুলোকে বন্দী করে।' [3-পৃষ্ঠা ২৯৬]

(‘ --- Uthman stayed in Mecca for three nights to negotiate with the Quraysh, while some of the Muslims entered Mecca, with the permission of the Prophet, to visit their families. Then it reached the Messenger of God that Uthman and his companions had been killed, so he called for negotiations. The capture of their companions reached the Quraysh. A group of Quraysh came to the Prophet and aimed at him with arrows and stones. At that time the Muslims again took prisoners from the polytheists.’ [3]

- অনুবাদ, টাইটেল, ও [**] যোগ - লেখক।

>>> হ্যাঁ খবরটি ছিল মিথ্যা, গুজব!

ইসলামের ইতিহাসের আদি ও বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকদের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যে-বিষয়টি আবারও অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো - কুরাইশরা কোনো মুহাম্মদ অনুসারীকেই শুধু যে ধরে নিয়ে যাননি, তাইই নয়, নাগালের মধ্যে পেয়েও তাঁরা উসমান ও অন্যান্য মুহাম্মদ অনুসারী যারা তাঁদের আত্মীয়-স্বজনদের সাথে দেখা করতে গিয়েছিলেন, তাঁদের প্রতি কোনোরূপ শারীরিক আক্রমণ করেননি। তাঁদের বর্ণনায় আবারও যে-বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো - "শুধুমাত্র মুসলমান হওয়ার কারণে কুরাইশরা মুহাম্মদ অনুসারীদের অত্যাচার করতেন”, এমন দাবির কোনো ভিত্তি আদি উৎসের মুসলিম ঐতিহাসিকদের বর্ণনায় প্রতীয়মান হয় না; সত্য তার সম্পূর্ণ বিপরীত (পর্ব-৩৯)।

নব্য মুসলমানদের প্রতি কুরাইশদের অকথ্য অত্যাচারের যে-বিবরণ গত ১৪০০ বছর যাবত মুহাম্মদ অনুসারী পণ্ডিত ও অপণ্ডিতরা (অধিকাংশই না জেনে) বিশ্ববাসীদের উদ্দেশে প্রচার করে আসছেন, তা আসলে কী ও কেন, তার আংশিক আলোচনা '“শয়তানের বাণী”- প্রাপক ও প্রচারক মুহাম্মদ!' পর্বে (পর্ব: ৪২) করা হয়েছে। এ বিষয়ের বিস্তারিত আলোচনা আইয়্যামে জাহিলিয়াত' অধ্যায়ে করা হবে (এই পর্বের আলোচনা শুধু প্রাসঙ্গিক ঘটনা প্রবাহের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখছি)।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাক, আল-তাবারী ও আল-ওয়াকিদির এই বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে, উসমান ইবনে আফফান নিরাপদে মক্কায় প্রবেশ করেন, মক্কা প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গেই আবান বিন সাইদ বিন আল-আস নামের তাঁর এক কাজিন তাঁর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেন, কুরাইশ নেতৃবৃন্দরা তাঁর কথা শোনেন ও যখন তাঁরা জানতে পারেন যে, তিনি কাবা-শরীফ তওয়াফ করতে এসেছেন তখন তাঁরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাঁকে তা করার আহবান জানান। এই ঘটনার বর্ণনা কোনোভাবেই প্রমাণ করে না যে মুসলমানদের কাবা শরীফ তওয়াফ ও তাতে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে বাধা প্রদান করাই ছিল কুরাইশদের মুখ্য উদ্দেশ্য! তাঁদের মুখ্য উদ্দেশ্য যদি তাইই হতো, তবে তাঁরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে উসমানকে কাবা শরীফ তওয়াফের অনুমতি দিতেন না।

আর আল-ওয়াকিদির অতিরিক্ত বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে, উসমান মক্কায় তাঁর পরিবারের লোকদের কাছে ছিলেন তিন রাত্রি পর্যন্ত। কোনো কুরাইশ সদস্য তাঁকে কখনো কোন আক্রমণের চেষ্টা, কিংবা নিদেনপক্ষে তাঁরা তাঁকে কোনো কটুবাক্য বর্ষণ করেছিলেন - এমন আভাসে কোথাও উল্লেখিত হয়নি।

এমন কি হতে পারে না যে, "যেহেতু উসমান ইবনে আফফান ছিলেন মক্কার প্রভাবশালী বানু উমাইয়া বিন আবদ শামস গোত্রের (আবু সুফিয়ানের গোত্র) সদস্য, তাই তিনি কুরাইশদের কাছ থেকে রেহাই পেয়েছিলেন?" এর সংক্ষিপ্ত জবাব হলো, "না!" কারণ, আল-ওয়াকিদির বর্ণনায় আমরা জানতে পারি, শুধু উসমানই নয়, আরও কিছু মুসলমান মক্কায় তাঁদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন এবং একইভাবে উসমানের মত তাঁরাও ছিলেন নিরাপদ। যা বর্ণিত হয়েছে, তা হলো -  মুহাম্মদ নিজেই তাঁদেরকে এই অনুমতি দিয়েছিলেন। যদি মুহাম্মদ আশংকা করতেন যে, তাঁর এই অনুসারীরা কুরাইশদের কাছে নিরাপদ নয়, তবে এমন অনুমতি তিনি কেন দেবেন?

সুতরাং, প্রশ্ন হলো:
"যে কুরাইশ জনগণ নাগালের মধ্যে পেয়েও মুহাম্মদ অনুসারীদের ওপর কোনোরূপ কটুবাক্য বা শারীরিক আক্রমণ করেন না, তাঁরা কী কারণে ৪০-৫০ জন লোকের একটি দলকে মুহাম্মদের শিবির ঘেরাও ও তাঁর অনুসারীদের একজনকে তাদের কাছে ধরে নিয়ে আসার জন্য পাঠাবেন?" আর তা ছাড়া মুহাম্মদ অনুসারীদের সংখ্যা ছিল ১৪০০জন; এই বিশাল সংখ্যক লোককে মাত্র ৪০-৫০ জন লোকের একটি দল এসে তাদের শিবির ঘেরাও করে একজনকে ধরে নিয়ে আসার কাহিনী কতটা বিশ্বাসযোগ্য?

আদি উৎসের বর্ণনায় যা পরিলক্ষিত, তা হলো, মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীদের মক্কা প্রবেশে কুরাইশদের এই বাধা প্রদান মুলতঃ তাঁদের নিরাপত্তা রক্ষার কারণে (পর্ব: ১১১-১১২)। তাঁরা মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীদের গতিবিধির ওপর তীক্ষ্ণ নজর রাখছিলেন। ৪০-৫০ জনের যে-দলটি তাঁরা পাঠিয়েছিলেন বলে উল্লেখিত হয়েছে, তা সম্ভবত সে-কারণেই। কাউকে ধরে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে নয়। কোন ধর্মীয় উদ্দেশ্য সাধন কিংবা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার নিমিত্তে নয়।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:


[1] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৫০৩

[2] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৮, ইংরেজী অনুবাদ: Michael Fishbein, University of California, Los Angeles, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, ISBN 0-7914-3150—9 (pbk), পৃষ্ঠা (Leiden) ১৫৪২-১৫৪৩ http://books.google.com/books?id=sD8_ePcl1UoC&printsec=frontcover&source=gbs_ge_summary_r&cad=0#v=onepage&q&f=false

[3] অনুরূপ বর্ণনা (Parallel): “কিতাব আল-মাগাজি”- লেখক:  আল-ওয়াকিদি (৭৪৮-৮২২ খৃষ্টাব্দ), ed. Marsden Jones, লন্ডন ১৯৬৬; ভলুম ২, পৃষ্ঠা ৬০০-৬০২ http://www.britannica.com/biography/al-Waqidi
ইংরেজি অনুবাদ: Rizwi Faizer, Amal Ismail and Abdul Kader Tayob; ISBN: 978-0-415-86485-5 (pbk); পৃষ্ঠা ২৯৫-২৯৬

[4] 'আহাবিশ: বিভিন্ন ছোট ছোট গোত্র ও উপগোত্রের লোক সম্মিলিত বাহিনী (কেবল মাত্র একটি নির্দিষ্ট গোত্রের লোক সম্বলিত বাহিনী নয়), যারা কুরাইশদের সাথে মৈত্রী স্থাপন করেছিলেন।'

[5] ‘ইকরিমা ছিলেন ইবনে আব্বাসের পরিবারে আশ্রিত (Mawla) ও অত্যন্ত বিশিষ্ট হাদিস বর্ণনা কারীদের (transmitters) একজন। বলা হয়, তিনি আশি বছর বয়সে আনুমানিক ৭২২-৭২৫ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যু বরণ করেন।'

[6] ‘উমর ইবনে খাত্তাব ছিলেন বানু আদি বিন কা'ব গোত্রের। তাঁরা ছিলেন মক্কার কুরাইশ আল-যাওয়াহির ("বাইরের দিকে") নামের অপেক্ষাকৃত কম প্রভাবশালী বংশের, যাদের বসতি ছিল মক্কার কেন্দ্রস্থল থেকে অনেক দূরে’। - Ibid আল-তাবারী: নোট নম্বর ৩৫৩

[7] ‘উসমান ইবনে আফফান ছিলেন মক্কার প্রভাবশালী বানু উমাইয়া বিন আবদ শামস গোত্রের (আবু সুফিয়ান বিন হারব এর গোত্র)। আবান বিন সাইদ বিন আল-আস ছিলেন উসমান ইবনে আফফানের কাজিন’।  - Ibid আল-তাবারী: নোট নম্বর ৩৫৪