২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

হুদাইবিয়া সন্ধি - ৫: অশ্রাব্য-গালি ও অসহিষ্ণুতা বনাম সহিষ্ণুতা: কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ১১৫): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – ঊননব্বই

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯ পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২ > পর্ব ৭৩ > পর্ব ৭৪ > পর্ব ৭৫ > পর্ব ৭৬ > পর্ব ৭৭ > পর্ব ৭৮ > পর্ব ৭৯ > পর্ব ৮০ > পর্ব ৮১ > পর্ব ৮২ > পর্ব ৮৩ > পর্ব ৮৪ > পর্ব ৮৫ > পর্ব ৮৬ > পর্ব ৮৭ > পর্ব ৮৮ > পর্ব ৮৯ > পর্ব ৯০ > পর্ব ৯১ > পর্ব ৯২ > পর্ব ৯৩ > পর্ব ৯৪ > পর্ব ৯৫ > পর্ব ৯৬ > পর্ব ৯৭ > পর্ব ৯৮ > পর্ব ৯৯ > পর্ব ১০০ > পর্ব ১০১ > পর্ব ১০২ > পর্ব ১০৩ > পর্ব ১০৪ > পর্ব ১০৫ > পর্ব ১০৬ > পর্ব ১০৭ > পর্ব ১০৮ > পর্ব ১০৯ > পর্ব ১১০ > পর্ব ১১১ > পর্ব ১১২ > পর্ব ১১৩ > পর্ব ১১৪

"যে মুহাম্মদ (সাঃ) কে জানে সে ইসলাম জানে, যে তাঁকে জানে না সে ইসলাম জানে না।"

স্বঘোষিত নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও তাঁর অনুসারীদেরকে কুরাইশরা কী রূপে মক্কা শহর প্রবেশে বাধা প্রদান করেছিলেন, মুহাম্মদ তাঁদের সেই বাধাকে অতিক্রম করার উদ্দেশ্যে কী পন্থা অবলম্বন করেছিলেন, বিশর বিন সুফিয়ান আল-কাবি নামের এক লোক যখন মুহাম্মদের সাথে দেখা করতে এসেছিলেন, তখন মুহাম্মদ তাঁকে কী জবাব দিয়েছিলেন - তার আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের (৭০৪-৭৬৮ সাল) বর্ণনার পুনরারম্ভ: [1] [2] [3] [4]

পূর্ব প্রকাশিতের (পর্ব:১১৪) পর:

আল-যুহরী তাঁর বর্ণনায় বলেছেন: 'যখন আল্লাহর নবী বিশ্রাম নিচ্ছিলেন, বুদায়েল বিন ওয়ারকা আল-খুযায়ি (Budayl b. Warqa' al-Khuza'i) নামের এক লোক খুযাআ গোত্রের কিছু লোকদের নিয়ে তাঁর কাছে আসে ও তাঁকে জিজ্ঞাসা করে জানতে চায়, কী জন্য তিনি এসেছেন। তিনি তাদের বলেন যে, তিনি যুদ্ধের জন্য আসেননি, তিনি এসেছেন তীর্থ করতে ও পবিত্র স্থানটিতে শ্রদ্ধা জানাতে। তারপর তিনি বিশর বিন সুফিয়ান (Bishr b. Sufyan)-কে যা বলেছিলেন (পর্ব: ১১৪), তাদেরকেও তা-ই বলেন।

অতঃপর তারা কুরাইশদের কাছে গমন করে ও তারা যা শুনেছে, তা কুরাইশদের অবহিত করায়; কিন্তু তারা তদেরকে সন্দেহ করে ও তাদের সাথে রুক্ষ ভাষায় যে-কথাগুলো বলে, তা হলো, "সে হয়তো যুদ্ধের অভিপ্রায় নিয়ে আসেনি, কিন্তু আল্লাহর কসম আমাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সে এখানে কিছুতেই ঢুকতে পারবে না, যেন আরবরা কখনো বলতে পারে যে, আমরা তাকে তা করার অনুমতি দিয়েছিলাম।" খুযাআ গোত্রের মুসলমান ও মুশরিক উভয় দলের লোকেরই মুহাম্মদের সাথে জোটবদ্ধ ছিলেন। মক্কার যা কিছু ঘটনা, তার সমস্ত খবরই মুহাম্মদের কাছে তারা সরবরাহ করে আসছিলেন।

অতঃপর কুরাইশরা বানু আমির বিন লুয়ভি গোত্রের মিকরায বিন হাফস বিন আল- আখিয়াফ (Mikraz b. Hafs b. al-Akhyaf) নামের এক ভাইকে তাঁর কাছে পাঠায়। যখন আল্লাহর নবী তাকে আসতে দেখেন, তখন তিনি বলেন, "এ হলো এক বিশ্বাসঘাতক ব্যক্তি!" যখন তিনি সেখানে আসেন ও তাঁর সাথে কথা বলেন, আল্লাহর নবী তাকে একই জবাব দেন, যা তিনি বুদায়েল ও তার সঙ্গীদের দিয়েছিলেন; অতঃপর তিনি কুরাইশদের কাছে ফিরে আসেন ও আল্লাহর নবী তাকে যা বলেছিলেন, তা তিনি তাদেরকে অবহিত করান।

তারপর তারা আল-হুলায়েস বিন আলকামা বা ইবনে যাববান (al-Hulays b. 'Alqama or Ibn Zabban)-কে তাঁর কাছে পাঠায়, তিনি ছিলেন বানু আল-হারিথ বিন আবদু মানাত বিন কিনানা গোত্রের এক লোক ও সেই সময়ের কালো সেনাদলের (black troops) প্রধান। যখন আল্লাহর নবী তাকে দেখেন, তখন বলেন, "এ হলো ধর্মপ্রাণ লোকদের একজন, সুতরাং কুরবানির পশুগুলোকে তার কাছে পাঠাও, যেন সে সেগুলো দেখতে পায়!" যখন তিনি দেখতে পান যে, সেই পশুগুলো উপত্যকার আশেপাশে ও তার পাশ দিয়ে বিচরণ করছে, যাদের গলায় আছে উৎসবের গলাবন্ধ (festive collars) ও চুলগুলো ছিল খাওয়া খাওয়া - এ কারণে যে তাদেরকে কুরবানি স্থানে না নিয়ে ধরে রাখা হয়েছে বহুদিন; এই দৃশ্যগুলো দেখে তিনি এতই প্রভাবিত হন যে, তিনি আল্লাহর নবীর কাছে না গিয়ে কুরাইশদের কাছে ফিরে আসেন। তিনি যখন তাদের এইসব ঘটনা বলেন, তারা বলে, "বসে পড়! তুমি শুধুই এক বেদুইন, একদম অজ্ঞ।"

আবদুল্লাহ বিন আবু বকর আমাকে বলেছেন যে, এই বিষয়টি আল-হুলায়েসকে করে ক্রুদ্ধ; তিনি বলেন, "হে কুরাইশরা, আমরা এ জন্য তোমাদের সাথে জোট ও চুক্তিবদ্ধ হইনি, আল্লাহর ঘরে যে মানুষ শ্রদ্ধা জানাতে আসে, তাকে কী বাধা দেয়া যায়? যার হাতে আমার জীবন তার কসম, মুহাম্মদ যা করতে এসেছে, তা হয় তাকে তোমরা করতে দেবে, নতুবা আমি আমার সমস্ত কালো সৈন্যদের নিয়ে প্রস্থান করবো।" তারা বলে, "শান্ত হও হুলায়েস, যে পর্যন্ত না আমরা আমাদের নিজেদের জন্য গ্রহণযোগ্য শর্ত অর্জন করতে পারি!"

আল-যুহরি তাঁর বর্ণনায় যা বলেছেন: 'অতঃপর তারা উরওয়া বিন মাসুদ আল-থাকাফি (Urwa b. Mas'ud al-Thaqafi)-কে আল্লাহর নবীর কাছে প্রেরণ করে, তিনি বলেন, "হে কুরাইশরা, যাদেরকে তোমরা মুহাম্মদের কাছে পাঠিয়েছিলে, তাদের ফিরে আসার পর তাদের সাথে কঠোরতা ও কটুবাক্য আমি প্রত্যক্ষ করেছি। তোমরা জানো যে, তোমারাই হলে আমার পিতৃ সমতুল্য ও আমি তোমাদের সন্তান সমতুল্য”- এটি এই জন্য যে, উরওয়া ছিলেন সুবায়া বিনতে আবদু সামস (Subay'a d. 'Abdu Shams)-এর পুত্র- “তোমাদের ওপর যা ঘটেছে, তা আমি শুনেছি ও আমার যে-লোকেরা আমাকে মান্য করে, তাদেরকে আমি সংগ্রহ করেছি; অতঃপর আমি তোমাদেরকে সাহায্যের জন্য এসেছি।" তারা তার সাথে একমত হয় ও বলে যে তারা তাকে সন্দেহ করেনি। অতঃপর তিনি আল্লাহর নবীর নিকট আসেন, তাঁর সামনে বসে পড়েন ও বলেন: "মুহাম্মদ, তুমি কি বিভিন্ন ধরনের মানুষদের সংগ্রহ ও একত্রিত করেছো এবং তারপর তদেরকে নিয়ে এসেছ তোমার নিজের লোকদের ধ্বংস করার জন্য? কুরাইশরা তাদের মহিলা ও সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে চিতাবাঘের চামড়া পরিধান করে বাহির হয়ে এসেছে ও প্রতিজ্ঞা করেছে যে, তোমার জোরপূর্বক মক্কায় প্রবেশ তারা কখনোই হতে দেবে না। আল্লাহর কসম, আমি মনে করি যে, আগামীকাল এই লোকগুলো (এখানে) তোমাকে পরিত্যক্ত করবে।" [পর্ব- ৬৯]

তখন আবু বকর আল্লাহর নবীর পিছনে বসে ছিলেন, তিনি বলেন, "'আল-লাত এর দুধ চোষ! আমাদের কি তাঁকে পরিত্যক্ত করা উচিত?" তিনি জিজ্ঞাসা করে জানতে চান, কে এই কথাগুলো তাকে বলেছে। যখন তিনি জানতে পারেন, সে ছিল ইবনে আবু কুহাফা, তিনি বলেন, "আল্লাহর কসম, আমি তোমার আনুকূল্যের জন্য যদি আমি ঋণী না থাকতাম, তবে আমি এর সমুচিত জবাব দিতাম, কিন্তু এখন তা শোধবোধ হয়ে গেলো।" [5]

অতঃপর যখন তিনি আল্লাহর নবীর সাথে কথা বলছিলেন, তখন তিনি তাঁর দাড়ি ধরা শুরু করেন। আল-মুঘিরা বিন শুবা বর্ম-আবরণ পরিহিত অবস্থায় আল্লাহর নবীর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। যখন তিনি [উরওয়া] আল্লাহর নবীর দাড়ি ধরে ছিলেন, তখন তিনি তার হাতে আঘাত করা শুরু করেন ও বলেন,"হাতটা খোয়ানোর আগেই আল্লাহর নবীর দাড়ি থেকে তোমার হাতটা সরাও।"

উরওয়া বলেন, "তুমি আমাকে হতবুদ্ধি করলে, কী রুক্ষ ও অভদ্র তুমি!" আল্লাহর নবী মুচকি হাসেন; যখন উরওয়া জানতে চান, লোকটি কে ছিল, তখন তিনি বলেন, সে ছিল তার নিজেরই ভাইয়ের ছেলে আল-মুঘিরা বিন শুবা; তা শুনে তিনি বলেন, "এই নরাধম, এই তো সেদিনও না আমি তোর নাপাক শরীর ছাপ করে দিয়েছি!" [6]

আল্লাহর নবী তাকে সেই কথাগুলোই বলেন যা তিনি অন্যদের বলেছিলেন; যেমন, তিনি যুদ্ধ করার জন্য আসেননি। আল্লাহর নবীর অনুসারীরা তাঁর সাথে কীরূপ আচরণ করছে, তা প্রত্যক্ষ করে তিনি তাঁর কাছ থেকে উঠে আসেন। যখনই তিনি অজু করা সম্পন্ন করছিলেন, তারা দৌড়ে তাঁর সেই ব্যবহৃত পানি নেয়ার জন্য যাচ্ছিল; যখন তিনি থুতু ফেলছিলেন, তারা সেটার দিকে দৌড়ে যাচ্ছিলো; যদি তাঁর একটা মাথার চুলও পড়ে, তারা তা কুড়িয়ে নেয়ার জন্য দৌড়চ্ছিল।

অতঃপর তিনি কুরাইশদের কাছে ফিরে আসেন ও বলেন,
"আমি খসরুর সাম্রাজ্যে তাঁর সাথে দেখা করেছি, সিজারের সাম্রাজ্যে তাঁর সাথে দেখা করেছি ও নিগাস-এর সাম্রাজ্যে তাঁর সাথে দেখা করেছি; কিন্তু আমি এমন কোন রাজা দেখিনি, যে তাঁর জনগণের কাছে ছিলেন এমন, যেমন তাঁর অনুসারীদের কাছে ছিলেন মুহাম্মদ। আমি ঐ লোকদের দেখেছি যারা কখনোই কোনো কারণে মুহাম্মদকে পরিত্যাগ করবে না, সুতরাং তোমাদের বিবেচনা তোমরা নিজেরাই করো।" [7]

আল-তাবারীর (৮৩৯-৯২৩ সাল) অতিরিক্ত বর্ণনা:

মুহাম্মদ বিন আবদ আল-আলা আল-সানানি <মুহম্মদ বিন থাওয়ার < মামুর <আল-যুহরি < উরওয়া (বিন আল-যুবায়ের) < আল-মিসওয়ার বিন মাখরামা হইতে বর্ণিত; এবং ইয়াকুব বিন ইবরাহিম <ইয়াহিয়া বিন সাইদ আল-কাততান <আবদুল্লাহ বিন আল-মুবারক <মামুর <আল-যুহরি < উরওয়া < আল-মিসওয়ার বিন মাখরামা ও মারওয়ান বিন আল-হাকাম হইতে বর্ণিত:

'যখন তাঁরা সেখানে ছিলেন, বুদায়েল বিন ওয়ারকা আল-খুযায়ি খুযাআ গোত্রের কিছু লোককে নিয়ে তাদের কাছে আসেন। (তিহামা জনগণের মধ্যে তারা ছিলেন আল্লাহর নবীর বিশ্বস্ত বন্ধু।) বুদায়েল বলেন, "আমি কাব বিন লুয়ভি ও আমির বিন লুয়ভি-কে তাদের মহিলা ও সন্তানদের সঙ্গে নিয়ে আল-হুদাইবিয়ার সারামৌসুমী কূপগুলোর (all season wells) পাশে শিবির স্থাপন করতে দেখেছি। তারা যুদ্ধ করার অভিপ্রায় নিয়ে এসেছে, যেন আপনি কাবা ঘরে ঢুকতে না পরেন।"

আল্লাহর নবী বলেন, "আমরা কারও সাথে যুদ্ধ করতে আসিনি; আমরা এসেছি তীর্থযাত্রা [হজ] পালনের উদ্দেশ্যে। যুদ্ধ কুরাইশদের ক্লান্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। যদি তারা ইচ্ছা করে, আমরা তাদেরকে কালক্ষেপণের সময় প্রদান করবো ও তারা আমাদেরকে আমাদের মত ছেড়ে দেবে, যেন আমরা লোকদের (অর্থাৎ, 'আরবদের') ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে পারি। যদি আমি বিজয়ী হই, তবে লোকেরা যে ভাবে ('ইসলামে') যোগ দেয়, ইচ্ছা করলে তারাও সেভাবে যোগ দিতে পারবে; যদি তারা তা না করে, তবে তারা বিশ্রাম ও শক্তি সঞ্চয় করতে পারবে। যদি তারা তা প্রত্যাখ্যান করে, তবে যার হাতে আমার জীবন তার কসম, আমি তাদের সাথে যুদ্ধ করবো যতক্ষণে না আমার গর্দান বিচ্যুত হয় অথবা আল্লাহ তার আদেশ কার্যকর করে।" বুদায়েল বলেন, "আপনি যা বলেছেন, তা আমরা তাদের অবহিত করাবো।"

অতঃপর বুদায়েল যাত্রা করেন ও কুরাইশদের কাছে আসেন, বলেন, "আমরা এই লোকটির কাছ থেকে তোমাদের কাছে এসেছি। আমরা তার বিবৃতি শুনেছি - যদি তোমরা আমাদের তা উপস্থিত করতে বলো, আমরা তা করবো।" তাদের মধ্যে যারা নির্বোধ [8] তারা বলেন, "তার কাছ থেকে আনা কোনো খবর তোমাদের কাছ থেকে শোনার প্রয়োজন আমাদের নেই।" কিন্তু তাদের মধ্যের কোন এক বুদ্ধিমান ব্যক্তি বলেন, "তাকে যা বলতে শুনেছ, আমাদের কাছে তা খুলে বলো।" অতঃপর তিনি বলেন, "আমি তাকে এই বলতে শুনেছি" - আল্লাহর নবী তাকে যা বলেছিলেন, তা তিনি তাদেরকে বলেন।

উরওয়া বিন মাসুদ আল-থাকাফি উঠে দাঁড়ান ও বলেন, "আমার লোকেরা, তোমরা কি আমার পিতৃ সমতুল্য নও?" তারা বলে, "হ্যাঁ।" "আমি কি তোমাদের সন্তান সমতুল্য নই [9]?" তিনি জিজ্ঞাসা করেন। তারা বলে, "হ্যাঁ।" "তোমরা কি আমাকে সন্দেহ করো?" তিনি জানতে চান। তারা বলে, "না।" তিনি বলেন, "তোমরা কি জানো যে, (একবার) সহযোগিতা পাওয়ার জন্য আমি 'উকাজ' এর লোকদের আহ্বান করেছিলাম ও যখন তারা আমাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেনি, তখন আমি আমার পরিবার ও সন্তান এবং যারা আমাকে মান্য করে তাদেরকে নিয়ে তোমাদের কাছে এসেছি?" তারা বলে, "হ্যাঁ।" [10]

উরওয়া বলেন, "এই লোকটি যে-প্রস্তাব তোমাদের দিয়েছে, তা যুক্তিসম্মত। এটা গ্রহণ করো ও আমাকে তার কাছে যেতে দাও।" তারা বলে, "তার কাছে যাও।" তাই উরওয়া আল্লাহর নবীর কাছে গমন করেন ও তাঁর সাথে কথোপকথন শুরু করেন। আল্লাহর নবী তাকে তাই বলেন, যা তিনি বুদায়েল-কে বলেছিলেন।

অতঃপর উরওয়া বলেন, "মুহাম্মদ, তুমি আমাকে বলো: "যদি তুমি তোমার সগোত্রীয় লোকদের নির্মূল করো, তুমি কি এমন কখনো শুনেছো যে আরবের এমন কোনো লোক তোমার আগে তার নিজ-জাতিকে ধ্বংস করেছে? আর যদি তার বিপরীতটি ঘটে [11]; আল্লাহর কসম যা আমি দেখতে পাচ্ছি, তা হলো, বিশিষ্ট ও উচ্ছৃঙ্খল উভয় লোকগুলোই সম্ভবত তোমাকে পরিত্যাগ করে পলায়ন করবে।" [পর্ব: ৬৯]

আবু বকর বলেন, "যাও, গিয়ে আল-লাতের ভগাঙ্কুর (Clitoris) চোষ!" - আল-লাত ছিল আল-থাকিফ গোত্রের দেবীর প্রতিমা, যাকে তারা পূজা করতেন - "আমরা কি তাঁকে পরিত্যাগ করে পলায়ন করবো?" [12]

"কে বললো এ কথা?" উরওয়া জিজ্ঞাসা করেন। তারা বলে, "আবু-বকর।" উরওয়া বলেন, "যার হাতে আমার জীবন তার কসম, যদি তুমি আমার উপকার না করতে, যা আমি তোমাকে পরিশোধ করিনি, তবে আমি এর জবাব দিতাম।" [5]

উরওয়া আল্লাহর নবীর সাথে (আবার) আলোচনা শুরু করেন। যখন তিনি তাঁর সঙ্গে কথা বলছিলেন, তিনি তাঁর দাড়িটি ধরে রাখছিলেন। আল-মুঘিরা বিন শুবা আল্লাহর নবীর পাশে তাঁর তরবারি [পর্ব-১১২] সহ দাঁড়িয়েছিলেন, তাঁর পরিধানে ছিল গলা পর্যন্ত বিস্তৃত এক বর্ম-আবরণ; যখন উরওয়া তার হাতটি প্রসারিত করে আল্লাহর নবীর দাড়ির দিকে আনছিলেন, আল মুঘিরা তার তরবারির খাপের নীচের অংশটি দিয়ে তার হাতে আঘাত করেন ও বলেন, "তাঁর দাড়ি থেকে তোমার হাত সরাও!"

উরওয়া তার মাথাটি উঁচু করে জিজ্ঞাসা করে, "এ কে?" তারা বলে, "আল-মুঘিরা বিন শুবা।" উরওয়া বলেন, "বিশ্বাসঘাতক, আমি কি তোর বিশ্বাসঘাতকতা শোধরানোর চেষ্টা করছি না?" [6]

উরওয়া আল্লাহর নবীর অনুসারীদের পর্যবেক্ষণ করা শুরু করেন। তিনি বলেন, "আল্লাহর কসম, যদি নবী থুথু দেয়--------।" তারপর উরওয়া কুরাইশদের কাছে ফিরে আসেন ও বলেন, "হে আমার লোকেরা, আমি খসরু, সিজার ও নিগাসের দরবারে গিয়েছি -----। সে তোমাদের যে প্রস্তাব দিয়েছে তা যুক্তিসম্মত, তোমরা তা গ্রহণ করো।"

- অনুবাদ, টাইটেল, ও [**] যোগ - লেখক।]

আল-ওয়াকিদিরি (৭৪৮-৮২২ খৃষ্টাব্দ) অতিরিক্ত বর্ণনা:

আল-মুঘিরা বিন শুবা ছিলেন উরওয়া বিন মাসুদের ভ্রাতুষ্পুত্র (Nephew) অথবা নাতি (Grand nephew)। জাহিলিয়া যুগে বানু মালিক গোত্রের কিছু লোকদের সঙ্গে যাত্রাকালে পথিমধ্যে আল-মুঘিরা বিন শুবা ঐ লোকদের অতিরিক্ত মদ্যপান করিয়ে মাতাল করার পর, তাদের ১৩ জন লোকের সবাইকে খুন করেন ও তাদের সমস্ত টাকাপয়সা হস্তগত করেন। ঐ লোকদের খুনের রক্ত-মূল্য পরিশোধ করার জন্য উরওয়া বিন মাসুদ তাঁর এই ভ্রাতুষ্পুত্র (অথবা নাতি) কে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন ও ঐ লোকগুলোর খুনের রক্ত-মূল্য পরিশোধ করেন। সেই সময় আবু-বকর সাহায্য করেছিলেন উরওয়া-কে। তারপর আল-মুঘিরা ইসলাম গ্রহণ করেন। আল্লাহর নবী বলেন, "তোমার ইসলাম গ্রহণ আমরা কবুল করলাম; কিন্তু এই টাকাপয়সা হলো বিশ্বাসঘাতকতার অর্থ, যার প্রয়োজন আমাদের নেই।" [5] [6]

ইমাম বুখারীর (৮১০-৮৭০ সাল) বর্ণনা:

ইমাম বুখারীর বর্ণনা ইবনে ইশাক, আল-তাবারী ও আল-ওয়াকিদির বর্ণনারই অনুরূপ। কিন্তু তিনি ইবনে ইশাক (''আল-লাত এর দুধ চোষ!") ও আল-তাবারী এবং আল-ওয়াকিদি ("আল-লাতের ভগাঙ্কুর চোষ!") প্রমুখ সিরাত লেখকদের মত উরওয়া বিন মাসুদ-কে দেয়া আবু বকরের অশ্রাব্য-গালি সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ না করে যা লিখেছেন তা হলো, "--তা শুনে আবু বকর তাঁকে গালাগালি করেন--।" (বিস্তারিত তথ্যসূত্রে [4])

>>> আদি উৎসের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যে-বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো - কুরাইশরা মুহাম্মদের কাছে তাঁদের বেশ কিছু প্রতিনিধি পাঠিয়েছিলেন। উদ্দেশ্য, তাঁরা নিশ্চিতরূপে জানতে চেয়েছিলেন, অস্ত্রসজ্জিত অবস্থায় বিশাল সংখ্যক অনুসারীদের সঙ্গে নিয়ে মুহাম্মদের মক্কা আগমনের প্রকৃত অভিপ্রায় কী ছিল? বুদায়েল বিন ওয়ারকা আল-খুযায়ি ও তাঁর সঙ্গের লোকেরা ছিলেন মুহাম্মদের বিশিষ্ট মিত্র; তাই স্বাভাবিক কারণেই তাঁরা তাদের কথায় বিশ্বাস স্থাপন করতে পারেননি। তাঁরা আল-হুলায়েস বিন আলকামা-কে বিশ্বাস করতে পারেনি এই কারণে যে, তিনি 'কুরবানির উটগুলো দেখে এতই প্রভাবিত হয়েছিলেন যে, তিনি মুহাম্মদের কাছে না গিয়ে মাঝপথ থেকেই কুরাইশদের কাছে ফিরে এসেছিলেন! এমত পরিস্থিতিতে কুরাইশরা তাঁকে কী ভরসায় বিশ্বাস করবেন?

অন্যদিকে, মুহাম্মদের সাথে আলোচনার এক পর্যায়ে যখন উরওয়া বিন মাসুদ আল-থাকাফি "শুধু তাঁর অভিমত" ব্যক্ত করেছিলেন, তার প্রতিক্রিয়ায় আবু-বকর তাঁকে কী রূপ অশ্রাব্য গালিগালাজ করেছিলেন তা ইবনে ইশাক, আল-ওয়াকিদি ও আল-তাবারীর বর্ণনায় অত্যন্ত সুনির্দিষ্ট এবং ইমাম বুখারীর বর্ণনায় তা উহ্য! এ ছাড়াও তাঁকে শারীরিক আক্রমণ করেছিলেন আর এক মুহাম্মদ অনুসারী, নিতান্ত তুচ্ছ কারণে। মুহাম্মদ-কে আক্রমণ বা অসম্মান করার জন্য উরওয়া বিন মাসুদ আল-থাকাফি যে মুহাম্মদের দাড়িতে হাত দিয়েছিলেন, এমন আভাস আদি উৎসের বর্ণনায় কোথাও উল্লেখিত হয়নি।

অশ্রাব্য গালিগালাজ ও শারীরিক আক্রমণ ছাড়াও যে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তা হলো আদি উৎসের সকল ঐতিহাসিকদের বর্ণনায় যা বিশেষভাবে উল্লেখিত হয়েছে তা হলো, মুহাম্মদ কুরাইশদের হুমকি দিয়েছিলেন এই বলে যে, যদি তাঁরা তাঁর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে তবে মুহাম্মদ তাঁদের সাথে যুদ্ধ করবেন! মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা কুরাইশদের এলাকায় এসে তাঁদেরকেই হুমকি ও শাসানী প্রদর্শন করছেন! কুরাইশরা মুহাম্মদের এই হুমকি ও শাসানীকে উপেক্ষা করে বিনা বাধায় তাঁকে ও তাঁর অনুসারীদের যদি মক্কা শহরে ঢুকতে দেন তবে লোকে তাঁদেরকে কী বলবে? এ চিন্তা কুরাইশদের ছিল। তাই তো তাঁরা বলেছিলেন "সে হয়তো যুদ্ধের অভিপ্রায় নিয়ে আসেনি, কিন্তু --আমাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সে এখানে কিছুতেই ঢুকতে পারবে না, যেন আরবরা কখনো বলতে পারে যে, আমরা তাকে তা করার অনুমতি দিয়েছিলাম।"

বদর যুদ্ধ অধ্যায়ের মতই (পর্ব: ৩১) হুদাইবিয়া সন্ধি অধ্যায়ের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় আমরা জানতে পারি যে, মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীদের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণের প্রশ্নে কুরাইশ ও তাঁদের সহযোগীরা ছিলেন দ্বিধাবিভক্ত।

ইসলামী ইতিহাসের ঊষালগ্ন থেকে আজ অবধি প্রায় প্রতিটি ইসলাম বিশ্বাসী প্রকৃত ইতিহাস জেনে বা না জেনে ইতিহাসের এ সকল অমানবিক অধ্যায়গুলো যাবতীয় চতুরতার মাধ্যমে বৈধতা দিয়ে এসেছেন। বিষয়গুলো অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় বাংলা অনুবাদের সাথে মূল ইংরেজি অনুবাদের অংশটিও সংযুক্ত করছি। - অনুবাদ, টাইটেল ও [**] যোগ - লেখক।]

The narrative of Al-Tabari:

According to Muhammad b Abd al-Ala al-Sanani <Muhammad bin Thawr <Mamar <al-Zuhri <Urwah [b al-Zubayr] <al-Miswar b Makhramah; and according to Yaqub b Ibrahim <Yahya b Said al-Qattan <Abdallah b al- Mubarak < Mamar <al-Zuhri < Urwah <al-Miswar b Makhramah and Marwan b al-Hakam, who said:

While they were there, Budayl bin Warqa al-Khuzai came to them with a band of his tribesmen from Khuzaah. (They were the faithful friends of the Messenger of God among the people of Tihamah.) Budayl said: “I left Ka’b bin Lu’ayy and Amir b Lu’ayy encamped at the all season wells of al-Hudaybiyah with their ‘foals and dams (women and children)’. They intended to fight you and turn you away from house.” The prophet said: “We have not come to fight anyone; we have come to make lesser pilgrimage. War has exhausted and harmed Quraysh. If they wish, we will grant them a delay and they can leave me to deal with the people (that is, ‘the Arabs’). If I am victorious, if they wish to enter that which the people enter (i.e, ‘Islam’), they can do so; if not, they will have rested and recovered their strength. If they refuse (the delay), by Him who holds my soul in his Hands, I shall fight them for the sake of this affair of mine until the side of my neck is separated (i.e, ‘until death’) or God effects his command.” Budayl said, “We will inform them of what you say.” Budayl then set out and went to Quraysh and said: “We came to you from this man. We have heard him make a statement – if you want us to present it to you, we will.” The foolish [8] among them said, “We have no need for you to say anything to us from him.” But someone intelligent among them said, “Present what you have heard him say.” So he said, “I heard him say the following” – and he told him what the prophet had said.

Urwah b Masud al-Thaqafi stood up and said, “My people, are you not the father?” “Yes,” they said. “And am I not the son [9]?” he asked. “Yes,” they said. “And do you doubt me?” he asked. “No,” they said. “Do you not know,” he said, “that (once) I called on the people of Ukaz [10] for assistance; and, when they give me no help, I came to you with my family and children and those who obeyed me?” “Yes,” they said. ‘Urwah said, “This man has offered you a sensible proposal. Accept it, and let me go to him.” They said, “Go to him.” So Urwah went to the prophet and began speaking to him. The prophet spoke as he had spoken to Budayl.

Then Urwah said: “Muhammad, tell me: if you extirpate your tribesmen, have you ever heard of any of the Arabs who destroyed his own race before you? And if the contrary comes to pass (**’If Quraysh prove too powerful for you’), by God I see both prominent people and rabble who are likely to flee and leave you.” Abu Bakr said, “Go suck the clitoris of al-Lat!”–al-Lat was the idol of Thaqif, which they used to worship “Would we flee and leave him?” “Who is this?” asked Urwah. They said, “Abu Bakr.” Urwah said, “By the One who holds my soul in His hand, were you not for a favor you did me for which I have not repaid you, I would answer you.” [12]

‘Urwah (again) began speaking to the Prophet. As often as he spoke to him, he took hold of his beard. Al-Mughirah b Shubah [Urwah’s own nephew or pehaps grandnephew] was standing next to the Prophet with his sword, wearing a mail neck protector, and whenever Urwah extended his hand toward the Prophet’s beard, al-Mughirah struck his hand with the lower end of the scabbard and said, “take your hand away from his beard!” Urwah raised his head and asked, “Who is this?” They said, “Al-Mughirah b Shubah.” Urwah said, “Treacherous man, am I not trying to rectify your act of treachery?-----” [5] [6]

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:

[1] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৮, ইংরেজী অনুবাদ: Michael Fishbein, University of California, Los Angeles, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, ISBN 0-7914-3150—9 (pbk), পৃষ্ঠা (Leiden) ১৫৩৪ – ১৫৩৯ http://books.google.com/books?id=sD8_ePcl1UoC&printsec=frontcover&source=gbs_ge_summary_r&cad=0#v=onepage&q&f=false

[2] অনুরূপ বর্ণনা (Parallel): “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৫০১-৫০৩

[3] অনুরূপ বর্ণনা (Parallel): “কিতাব আল-মাগাজি”- লেখক:  আল-ওয়াকিদি (৭৪৮-৮২২ খৃষ্টাব্দ), ed. Marsden Jones, লন্ডন ১৯৬৬; ভলুম ২, পৃষ্ঠা ৫৯৩-৫৯৯ http://www.britannica.com/biography/al-Waqidi
ইংরেজি অনুবাদ: Rizwi Faizer, Amal Ismail and Abdul Kader Tayob; ISBN: 978-0-415-86485-5 (pbk); পৃষ্ঠা ২৯১-২৯৪

[4] অনুরূপ বর্ণনা- সহি বুখারী: ভলিউম ৩, বই ৫০, নম্বর ৮৯১
অনেক বড় হাদিস, এই পর্বের প্রাসঙ্গিক অংশ:
While they were still in that state, Budail bin Warqa-al-Khuza'i came with some persons from his tribe Khuza'a and they were the advisers of Allah's Apostle who would keep no secret from him and were from the people of Tihama. -----Urwa bin Mas'ud --went to the Prophet and started talking to him. The Prophet told him almost the same as he had told Budail. Then Urwa said, "O Muhammad! Won't you feel any scruple in extirpating your relations? Have you ever heard of anyone amongst the Arabs extirpating his relatives before you? On the other hand, if the reverse should happen, (nobody will aid you, for) by Allah, I do not see (with you) dignified people, but people from various tribes who would run away leaving you alone." Hearing that, Abu Bakr abused him and said, "Do you say we would run and leave the Prophet alone?" Urwa said, "Who is that man?" They said, "He is Abu Bakr." Urwa said to Abu Bakr, "By Him in Whose Hands my life is, were it not for the favor which you did to me and which I did not compensate, I would retort on you." Urwa kept on talking to the Prophet and seizing the Prophet's beard as he was talking while Al-Mughira bin Shu'ba was standing near the head of the Prophet, holding a sword and wearing a helmet. Whenever Urwa stretched his hand towards the beard of the Prophet, Al-Mughira would hit his hand with the handle of the sword and say (to Urwa), "Remove your hand from the beard of Allah's Apostle." Urwa raised his head and asked, "Who is that?" The people said, "He is Al-Mughira bin Shu'ba." Urwa said, "O treacherous! Am I not doing my best to prevent evil consequences of your treachery?" Before embracing Islam Al-Mughira was in the company of some people. He killed them and took their property and came (to Medina) to embrace Islam. The Prophet said (to him, "As regards your Islam, I accept it, but as for the property I do not take anything of it. (As it was taken through treason). Urwa then started looking at the Companions of the Prophet. By Allah, whenever Allah's Apostle spat, the spittle would fall in the hand of one of them (i.e. the Prophet's companions) who would rub it on his face and skin; if he ordered them they would carry his orders immediately; if he performed ablution, they would struggle to take the remaining water; and when they spoke to him, they would lower their voices and would not look at his face constantly out of respect. Urwa returned to his people and said, "O people! By Allah, I have been to the kings and to Caesar, Khosrau and An-Najashi, yet I have never seen any of them respected by his courtiers as much as Muhammad is respected by his companions. By Allah, if he spat, the spittle would fall in the hand of one of them (i.e. the Prophet's companions) who would rub it on his face and skin; if he ordered them, they would carry out his order immediately; if he performed ablution, they would struggle to take the remaining water; and when they spoke, they would lower their voices and would not look at his face constantly out of respect." Urwa added, "No doubt, he has presented to you a good reasonable offer, so please accept it."-----

[5][6] এই ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন আল-ওয়াকিদি, তাঁর (Ibid) “কিতাব আল-মাগাজি” গ্রন্থে: ভলুম ২, পৃষ্ঠা ৫৯৫-৫৯৮; ইংরেজি অনুবাদ: পৃষ্ঠা ২৯১-২৯৪

[6] Ibid “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশামের নোট নং-৭৫০, পৃষ্ঠা ৭৬৯

[7] ‘খসরু, সিজার ও নিগাস ছিলেন যথাক্রমে পারস্য, বাইজানটাইন ও রোম
সাম্রাজ্যের অধিপতি’।

[8] নির্বোধ- তাঁরা ছিলেন ইকরিমা বিন আবু জেহেল ও আল-হাকাম বিন আবিল আ'স’।
Ibid: আল-ওয়াকিদি-“কিতাব আল-মাগাজি” গ্রন্থে: ভলুম ২, পৃষ্ঠা ৫৯৪; ইংরেজি অনুবাদ: পৃষ্ঠা ২৯১- ২৯২

[9] ‘উরওয়া বিন মাসুদের মা সুবায়া বিনতে আবদু সামস ছিলেন কুরাইশ বংশের, আর তাঁর পিতা 'মাসুদ' ছিলেন আল-তায়েফের আল-থাকিফ গোত্রের’।

[10] উকাজ: ‘উকাজ ছিল এক বাৎসরিক মেলার স্থান, আল-তায়েফ শহর থেকে এক দিনের ও মক্কা শহর থেকে তিন দিনের পথ’।

[11] অর্থাৎ, ‘যদি কুরাইশরা তোমার চেয়ে বেশী শক্তিশালী প্রমাণিত হয়'।

[12] ‘আল-লাত (যাকে বলা হতো আল-তাঘিয়া, কর্তৃত্ব কারী) ছিল নারীদের উদ্ভাবন-শীলতা (Female fertility) ও যোদ্ধা দেবী, বিশেষভাবে আল-তায়েফের জনগণরা যার পূজা করতেন।