৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

দু'টি ইছলামী কার্টুন


ঈশ্বরের অনৈশ্বরিক কর্মকাণ্ড - ৩

লিখেছেন সমকোণী বৃত্ত

কুরান, হাদিস ও ইসলামিস্টদের মতে - এই জীবনটা হল পরীক্ষা, পৃথিবী হল পরীক্ষার হল আর আল্লাহ হল পরীক্ষক। আল্লাহ মানুষকে স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। কে আল্লাহ-নবীর কথা মত চলল, আর কে চলল না, ন্যায়-অন্যায়, সত্য-মিথ্যা, আচরণ এসবের ওপরই পরীক্ষা। এর ফলাফল জানা যাবে রোজ হাশরের দিনে।

আল্লাহ যেহেতু পরীক্ষক, তাই পরীক্ষা যেন সুষ্ঠ হয়, সেই দায়ভার আল্লাহরই ওপরে। যে যেরকম পারে, সেরকমই পরীক্ষা দেবে। এখানে যদি পরীক্ষক কোনো ছাত্রকে সাহায্য করে, তাহলে সেটা হয় পক্ষপাতিত্ব এবং এর ফলে পরীক্ষা সুষ্ঠ হয় না এবং পরীক্ষকও অসাধু বলে আখ্যায়িত হয়। তেমনি ডিস্টার্ব করলেও তাই।

তাহলে আসুন দেখা যাক, আল্লাহ তাঁর দায়িত্ব পালনে কতটা নিষ্ঠাবান। সকলকে সমান চোখে দেখে আল্লাহ কি সবাইকে যার যার মত করে পরীক্ষা দিতে দিয়েছে? না। যেমন, 

ক) আল্লাহ নুহকে সৎপথে পরিচালিত করেছিলেন (সূরা আনাম: ৮৪)! আল্লাহ কেন পরীক্ষার হলে হস্তক্ষেপ করে কাউকে সুযোগ করে দেবেন? স্বজনপ্রীতি দেখালে কি পরীক্ষা সুষ্ঠ হয়?

খ) আল্লাহ না চাইলে ইসলাম গ্রহণ আকাশে আরোহনের মত কঠিন। এবং তিনি যাকে পথ দেখাতে চান, তার বক্ষকে উন্মুক্ত করে দেন (আনাম :১২৫)! তাহলে ইসলাম মানা অর্থাৎ পরীক্ষা শুধু ছাত্র চাইলেই ভাল হবে না, পরীক্ষকের ওপরও নির্ভর করে!

গ) সূরা আল আন-আম:১২৩ - "আর এমনিভাবে আমি প্রত্যেক জনপদে অপরাধীদের জন্য কিছু সর্দার নিয়োগ করেছি-যেন তারা সেখানে চক্রান্ত করে।" আল্লাই যদি অপরাধ বৃদ্ধির জন্য সর্দার নিয়োগ করে, তাহলে অপরাধীদের শাস্তি দিলে মুলহুতা আল্লাহকেও শাস্তি দিতে হয়!

ঘ) আল্লাহ কাফেরদের নিধনের জন্য মুসলিমদের পক্ষে এক হাজার ফেরেশতারা লাগিয়ে দিয়ে কাফিরদের পরাজিত করে (সুরা আনফাল: ৯)

তাহলে পরীক্ষা কীভাবে সুষ্ঠ হয়? কাফেরদের আল্লাহ কেন পরীক্ষার হলেই শাস্তি দিয়ে দিলেন? তারা কি মরতো না? মরার পর অর্থাৎ পরীক্ষার ফলাফলের পরে কি শাস্তি দেয়া যেত না? নুহের সময় অনেককেই ডুবিয়ে মারলেন পরীক্ষার হলেই ও পরীক্ষা শেষ হবার আগেই।

পরীক্ষার সময় শেষ হবার আগেই কেন কিছু ছাত্রের খাতা নিয়ে নেবেন? হয়ত বলতে পারেন, হলে খারাপ আচরন করলে খাতা নেওয়া যায়। কিন্তু আল্লাহ এক্ষেত্রে পারবেন না, কেননা পরীক্ষাই হচ্ছে আচরণের। আবার ভাল-খারাপ দুটোই করার ক্ষমতা আল্লাহ দিয়েছে। তাহলে অন্যদের কেন ডুবিয়ে মারলো পরীক্ষা শেষ না হতেই? আবার হাজার ফেরেশতা পাঠিয়ে কেন কাফিরদের মারা হল পরীক্ষা শেষ হবার আগেই?

যদি বলেন, "কাউকে সাহায্য করার জন্য আল্লাহ ওদের মারেনি, ঐ কাফেরদের মৃত্যু ওভাবেই হবে লেখা ছিল। আর আল্লাহ পরীক্ষার হলে সাহায্য বা ডিস্টার্ব করেন না।" - তাহলে কি আল্লাহ নবীকে সাহায্য করার জন্য ফেরেশতা পাঠাযননি? আল্লাহকে আমাদের মিথ্যা বললেন কেন যে, তিনি বিভিন্ন নবীকে যেমন ইউনুসকে সাহায্য করেছেন মাছের পেট থেকে উদ্ধার করে? হলে মানে দুনিয়াতে তিনি যদি কাউকে সাহায্য না করেন, তাহলে 'দুয়া ইউনুসের অনেক ফজিলত'-এর এর কী হবে? আল্লাহ সাহায্য না করলে আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়ে সময় নষ্ট করবো কেন?

এর পরও যদি মুমিন উত্তর দিতে পারে, "ভাল কাজের জন্য সাহায্য চাইলে আল্লাহ সাহায্য করবেন।" - এটাও ঠিক না, কারণ চোরও ত আল্লার কাছে সাহায্য চায় যেন সে ধরা না পড়ে। এবং আল্লাহ তো তাকেও সফলভাবে চুরিতে সাহায্য করেন, করেন না?

"আরে না,আল্লাহ চুরির ক্ষেত্রে সাহায্য করেন না।" - তাহলে আল্লার সাহায্য ছাড়াই শুধু নিজ শক্তিতেই চোর সফল হয়ে যায়?

"আরে না,চোর ত ধরাও পড়ে।" - তাই নাকি? তাহলে যেক্ষেত্রে ধরা খেয়েছে, সেক্ষেত্রে আল্লাহ জয়ী, কারণ তিনি সাহায্য করেননি, তাই ধরা পড়েছে। আর যেক্ষেত্রে ধরা পড়েনি, সেক্ষেত্রে চোর জয়ী, কেননা আল্লাহর সাহায্য ছাড়াই সফল।

"আল্লাহই জানেন!" - মোদ্দাকথা হল, আল্লাহ সাহায্যই বা করতে যাবেন কেন? নিজের মত করে পরীক্ষা দিতে দিক।

এবার আসি ঝামেলা করার প্রসঙ্গে। আল্লাহ পরীক্ষায় ঝামেলা করার জন্য স্থায়ীভাবে ইবলিশকে নিযুক্ত করেছেন (গত পর্বে প্রমাণ করেছি, ইবলিশের চেয়ে দোষ আল্লার বেশি এক্ষেত্রে) মানুষকে পরীক্ষায় ডিস্টার্ব করার জন্য। এবার ধরুন, একটা দৌড় প্রতিযোগিতা চলার সময়ই কোনো দৌড়বিদকে আটকে রেখে কিছুক্ষণ পর ছাড়লেন। তারপর সে যদি পুরস্কার না পায়, তাকে কিন্তু দোষ দেওয়া যায় না। তাহলে মানুষের পরীক্ষা চলার সময়ে ইবলিশ কেন ডিস্টার্ব করবে? তাহলে তো পরীক্ষা সুষ্ঠ হল না।

এখন যদি বলেন, "আল্লাহ এটাই পরীক্ষা করছে, আমরা আল্লাহর দেখানো পথে চলি নাকি ইবলিশের দেখানো পথে চলি?" - সবচেয়ে বড় প্যারাডক্সটা তো এখানেই। কীভাবে কেউ বুঝবে, কোনটা আল্লার দেখানো আর কোনটা ইবলিশের দেখানো কাজ?

আল্লাহ ও ইবলিশ দু'জনই তো একই ছাঁচে গড়া। তাই দু'জনই কাজকে শোভন করে দেখায়। যেমন, 

সূরা আল আন-আম: ১০৮ - "তোমরা তাদেরকে মন্দ বলো না, যাদের তারা আরাধনা করে আল্লাহকে ছেড়ে। তাহলে তারা ধৃষ্টতা করে অজ্ঞতাবশতঃ আল্লাহকে মন্দ বলবে। এমনিভাবে আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের দৃষ্টিতে তাদের কাজ কর্ম সুশোভিত করে দিয়েছি।"

এবার শয়তানের ক্ষেত্রে... সূরা আল-আনফাল: ৪৮ - "আর যখন তাদের কাজকে শোভন করে দিল শয়তান তাদের দৃষ্টিতে এবং বলল যে, আজকের দিনে কোন মানুষই তোমাদের উপর বিজয়ী হতে পারবে না আর আমি হলাম তোমাদের সমর্থক।"

ঋতুকাল: নারী যখন 'অশুচি ও অপবিত্র'

সব ধর্মই নারীদের সর্বোচ্চ সম্মান ও মর্যাদা দিয়েছে, সে তো আমরা জানিই। তবে ধর্মগুলোর কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি সম্মান তারা পায় তাদের ঋতুকালে। কয়েকটি নিদর্শন:

এই সময়টায় নারীরা অশুচি ও অপবিত্র (সুরা ২: ২২২-২২৩) - শুধু এ কথা বলেই বলেই ক্ষান্ত হয়নি ইছলাম, তাদেরকে নামাজ-রোজা থেকে অব্যাহতি দিয়ে ছওয়াব কামানোর সুযোগ থেকে বঞ্চিত করার মাধ্যমে বিশেষ সম্মানিতও করেছে।

হিন্দুধর্মমতে: "যেদিন প্রথম রজঃদর্শন হবে সেদিন থেকে তিন রাত্রি পর্যন্ত রমণী সবকিছু পরিত্যাগ করে ঘরের মধ্যে সর্বদা আবদ্ধ থাকবে। যাতে অন্য কেউ তাকে না দেখতে পায়। স্নান করবে না, অলংকার পরবে না। এক বস্ত্র পরিধান করবে। দীনাভাবে মুখ নিচু করে বসে থাকবে। কারো সাথে কোন কথা বলবে না। নিজের হাত, পা ও চোখ থাকবে স্থির। দিনের শেষে মাটির হাড়িতে তৈরি করা ভাত সে খাবে এবং ভূমিতে সাধারণভাবে শয্যা করে নিদ্রা যাবে।" এছাড়া মনু সংহিতায় আছে: "রজস্বলা নারীতে যে পুরুষ সঙ্গত হয় তার বুদ্ধি, তেজ, বল, আয়ু ও চক্ষু ক্ষয় পায়।" (মনু সংহিতা ৪:৪১)

এদিকে বাইবেলে বলছে: "যে স্ত্রী রজঃস্বলা হয় সে সাতদিন অশৌচ থাকবে, যে তাকে স্পর্শ করে সেও সন্ধ্যা পর্যন্ত অশুচি থাকবে এবং অশৌচ কালে যে পুরুষ তার সাথে শোয় ও তার রজঃ যদি পুরুষটির গায়ে লাগে, সে পুরুষও সাত দিন অশুচি থাকবে।" (লেবীয় পুস্তক: ১৫)

ঋতুকালে নারীদের অধিকার নেই বিভিন্ন ধর্মের উপাসনালয়গুলোয় (মসজিদ হিসেবের বাইরে, যেহেতু এমন অবস্থায় মুছলিমাদের জন্য উপাসনাই নিষিদ্ধ) প্রবেশ করার। রীতিমতো সাইনবোর্ড লটকিয়ে এমন ঘোষণা দেয়ার গৌরবময় ধর্মীয় ঐতিহ্য পালিত হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে।

সর্বমোট ঊনিশটি ছবি দেখুন।

উগ্র নাস্তিক

লিখেছেন সৈকত চৌধুরী

মজুমদার সাহেব চোখের ডাক্তারের কাছে গেছেন।

ডাক্তার জিজ্ঞেস করলেন, আপনার সমস্যা কী, জানতে পারি?
- আমার নিজের কোনো সমস্যা নাই। সকল সমস্যাই ঐ উগ্র নাস্তিকগুলো। কিন্তু বউ বললো তো!
- একটু ডিটেইলস বলেন।
- মানে চতুর্দিকে কেবল উগ্র নাস্তিক দেখতে পাই।
- আচ্ছা, আপনি কি দূরের জিনিস ঠিকমত দেখতে পান?
- হ্যাঁ, এক্বেরে ফকফকা, দূরের উগ্র নাস্তিক কাছে দেখতে পাই।
- কাছের জিনিস দেখতে পান?
- কাছের উগ্র নাস্তিক আরো কাছে দেখতে পাই, মনে হয় চাপাতি নিয়ে এই মাত্র আমাকে মেরে ফেলে।

ডাক্তার সাহেব অবস্থা গুরুতর দেখে ইমার্জেন্সিতে যোগাযোগ করে তাকে মানসিক হাসপাতালে পাঠিয়ে দিলেন। মানসিক রোগের ডাক্তার এবার মজুমদার সাহেবকে দেখতে এসেছেন।

ডাক্তার জিজ্ঞেস করলেন, আপনার সমস্যা কী?
- চতুর্দিকে কেবল উগ্র নাস্তিক ঘোরাঘুরি করে।
ডাক্তার চিন্তিত হয়ে বললেন, কবে থেকে এই সমস্যা?
- কিছু উগ্র নাস্তিক মারা যাওয়ার পর থাইক্যা।
- কারা মেরেছে ওদের?
- ইসলামি জঙ্গিরা।
- কোনো নাস্তিক কি আপনাকে কখনো আঘাত করেছে?
- হ্যাঁ, ডাক্তার সাব। এইটাই তো কেইস। আমার ধর্মানুভূতিতে আঘাত দিয়েছে উগ্র নাস্তিকরা।
- ধর্মানুভূতি?
- কিচ্ছু জানে না নাস্তিক ডাক্তার! আরে পাগল, ধর্মানুনুভূতি থাকে এইখানে, ঈমানদণ্ডের একদম গোড়ায় (প্যান্ট খুলতে গেলে ডাক্তার বাধা দিলেন)।
- বুঝলাম, কোনো নাস্তিক আপনাকে আঘাত করেনি। তবে এরকম কখনো কি দেখেছেন, নাস্তিকরা অন্য কাউকে আঘাত করেছে?
- করেনি, তবে করবে। একখান চাপাতি ওদের দিলেই করবে।
- মানে উগ্র নাস্তিকরা চাপাতি চেনে না, হাতে নিতে পারে না?

এরকম চরম অযৌক্তিক কথাবার্তা শুনে মজুমদার সাহেব প্রচণ্ড রেগে গেলেন। ডাক্তারকে চিৎকার করে বললেন, আপনি একটা উগ্র নাস্তিক, আপনার হাতে চাপাতি।

ডাক্তার সাহেব মৃদু হেসে তার হাতে থাকা কলম পকেটে রেখে দিলেন।

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

রবি-নজরুল ইসলাম এবং ছহীহ ইছলাম


কোপাবো না

কালীপ্রসন্ন ঘোষ-এর 'পারিবো না' কবিতার প্যারোডি করেছেন নাস্তিকথন

'কোপাবো না' - এ কথাটি বলিও না আর
কেন কোপাবে না তাহা ভাব একবার;
জঙ্গি কোপায় যাহা,
তুমিও কোপাবে তাহা,
ঈমানী দায়িত্বে তুমি দিও নাকো ছাড়
একবার ফেল মারিলে কোপাও শত বার।

কোপাবে না বলে মুখ করিও না ভার,
নাফারমানি কথা মুখে না শুনি তোমার,
ইমানহীন নিফাকি যারা
কভু কোপায় না তারা,
তোমায় তো দেখি নাকো তাদের আকার
'কোপাতে পারবো না' কেন বল বার বার?

জলে না নামিলে কেহ শিখে না সাঁতার
হাঁটিতে শিখে না কেহ না খেয়ে আছাড়,
কোপানো শিখিতে হলে
চাপাতিটি হাতে তুলে
কলাগাছ করিয়া লক্ষ্য, কোপাও বারে বার
আল্লাহুয়াকবার বলে হও আগুসার।

গরুপূজারি গাধাগুলো - ১২৫

হিন্দুধর্মে পদমর্যাদা। আগের দুই পর্ব: এক, দুই


২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

উকুন-উন-নবী

আমরা জানি, এই পৃথিবী ও বিশ্বব্রহ্মাণ্ড আল্যাফাক সৃষ্টি করেছে ইছলামের নবীর উছিলায়। কারণ নবী মুহাম্মদ আল্যার সবচেয়ে পেয়ারের বান্দা ও দোস্ত। নবীর নানাবিধ নীচতা, ইতরামি ও খবিসী খায়েশকে বৈধতা দিতে যথাসময়ে জুতসই আয়াত সরবরাহ করেছে আল্যাই। যুদ্ধের সময় ফেরেশতার দলও পাঠিয়েছে দোস্তকে সাহায্য করতে। 

সেই আল্যা তার প্রিয়তম বন্ধুর মাথা উকুনভর্তি করে রেখেছিল কেন, সে হিসেব কিছুতেই মেলানো যায় না। তবে হাদিস ও অন্যান্য ছহীহ ইছলামী তথ্যসূত্র থেকে জানা যায়, তার মাথা ছিলো সত্যিই উকুনআকীর্ণ এবং নাম-জানা ও অজানা অনেক নারীই নবীর মাথার উকুন বেছেছে।

অনেকেরই ধারণা, বিষাক্রান্ত হয়ে নবীর মৃত্যু হলেও উকুনজনিত typhus রোগও তার মৃত্যুর প্রভাবক হিসেবে সক্রিয় ছিলো। বস্তুত অবস্থা এতোটাই গুরুতর ছিলো যে, নবীত্বের সম্মান রক্ষা করতে মৃত্যুশয্যায় শুয়ে বিষক্রিয়াপীড়িত তাকে খোঁড়া অজুহাত দেখাতে হয়েছিল এই কথাগুলো বলে: "কোনও কোনও নবীকে উকুন পীড়া দেয় মৃত্যু পর্যন্ত।"

কৌতূহলোদ্দীপক এই বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে নিচের স্লাইড শো দেখুন অথবা স্লাইড শো থেকে বানানো পিডিএফ ডাউনলোড করে নিন।

সাইজ: ৩.৩ মেগাবাইট

ডাউনলোড লিংক (গুগল ড্রাইভ)
ডাউনলোড লিংক (ড্রপবক্স)

মুসলমানিত্ব যখন শুধু লুঙ্গির তলে

লিখেছেন শহীদুজ্জামান সরকার

বাংলাদেশের হাজার হাজার মানুষ নিজেদের ধার্মিক মুসলমান দাবি করে। আসলে কি এরা ধার্মিক মুসলমান? মুসলামান হতে গেলে শুধু এক আল্লার ওপর বিশ্বাস স্থাপন করলে হয় না। নবীর ওপর বিশ্বাস ও নবীর জীবনদর্শন মেনেও চলতে হবে। নবীর মত ১৪ টা বিয়ে করতে হবে। ৬ বছর বয়সী আয়েশার মত কোনো কন্যাকে বিয়ে করতে হবে, আবার ৪০ বছরের খাদিজার মতো কাউকেও বিয়ে করতে হবে। তারপর অসংখ্য দাসী বাদী তো রাখতেই হবে। ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য হাজার হাজার মানুষ মারতে হবে। শত শত যুদ্ধ করতে হবে। জিহাদের নামে মানুষ খুন করতে হবে। হিন্দু অথবা ভিন্ন ধর্মের মানুষ তথা কাফেরদের গলা কাঁটতে হবে। হিন্দুদের বাড়িঘর সম্পদ লুট করতে হবে, যেটা আসলে গনিমতের মাল ভোগ।

ইসলামে এই কথাটা স্পষ্ট উল্লেখ আছে - নারী নেতৃত্ব হারাম। কিন্তু বাংলাদেশে আমরা কী দেখছি? এখানে নারী নেতৃত্ব আরাম। আর এই নারীকে আসনে বসিয়ে রেখেছে কে? এই যে আপনাদের মত নিজেকে মুসলমান দাবি করা মানুষগুলোই। আর এই নারী ক্ষমতায় এসে ইসলামের বারোটা বাজাচ্ছে। নারীদের চাকুরি করা, ব্যবসা করা, রাস্তায় বোরখা ছাড়া ঘোরাফেরা করা, পরপুরুষের সাথে সাক্ষাৎ তো দুরে থাক, কথা বলাও হারাম। ইসলামে আরও একটি কথা স্পষ্ট বলা আছে: নামাজ, রোজা, হজ্জ, যাকাত, এগুলো ঠিকমতো আদায় করতে হবে। কিন্তু বাংলাদেশের নিজেকে ধার্মিক মুসলমান দাবি করা কত জন লোক এই কাজগুলো করে?

ছোটকাল থেকে একটি কথা শুনে আসছি - কোনো ব্যক্তি যদি পরপর তিন জুম্মার নামাজ মিস করে, তাহলে সে আর মুসলিম থাকলো না। শুধু নুনু কেটে মিলাদ পড়ালেই মুসলিম হওয়া যায় না। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ যে শুধই নুনু-কাটা মুসলমান, তার জন্য একটা ঘটনার কথা বলি: একবার এক লোক অপরিচিত জায়গায় মারা যায়, স্থানীয় লোকজন লাশের কোনো কুল-কিনারা মানে কোন ধর্মের এটা না বুঝতে পেরে শেষ অবধি লুঙ্গি উচিয়ে দেখে নিল নুনু কাটা আছে কি না। যখন তারা নিশ্চিত হলো, তখন তাকে মুসলমানী কায়দায় দাফন করা হলো।

যদি লোকটার মুখে দাড়ি থাকতো, তাহলে আর এই ন্যাক্কারজনক কাজটা করতে হতো না। বাংলাদেশে মুসলিম দাবিকারীদের মুখে দাড়ি কই? কিন্তু এরা আবার বুড়াকালে ঠিকই দাড়ি রাখে। আবার ইসলামে এই কথাটাও স্পষ্ট বলা আছে, যুবক বয়সের একদিনের এবাদত ৭০ বছরের এবাদতের সমান। কিন্তু কোথায়? কে এই নিয়মগুলো ঠিকঠাকভাবে পালন করছে? কাফেরদের গলা কাটা হচ্ছে, আর আপনি, নিজেকে মুসলমান দাবিকারী ব্যক্তি, ওপরের একটা নিয়মকানুনও মানেন না, অথচ চিৎকার করে বলছেন, ওরা সহি মুসলিম না! উহা সহি ইসলাম নয়।

ইট'স টুউ ফানি, ম্যান! আপনার ধর্ম সম্পর্কে একটু খোঁজ নিন। বুঝতে পারবেন, আইসিস ও অন্য ইসলামী জঙ্গি সংগঠনগুলোই খাঁটি ইসলাম মানে। আর আপনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে মুততে মুততে বলছেন, "এরা জঙ্গি, মুসলমান নয়। আইসিস আমেরিকার তৈরি" ও ইত্যাদি বালছাল। নিজেকে শুধু হাওয়ার পোলা দাবি করেছেন, কিন্তু কোনো নিয়মনীতিই মানছেন না। তাহলে কিসের বালের মুসলমান আপনি?

অনেক ইসলামী ব্লগার আর ইসলামী ছাত্র শিবিরদের দেখছি, যারা ক্লিন শেভ করে, জিন্স টি-শার্ট পরে। জুব্বা-পাঞ্জাবী যে কী জিনিস, বোঝেই না। এরা আবার গলা ফুলিয়ে বলে, তুমি ইসলামের কী বালটা জানো? এরকম মডারেট মুসলিমদের কথা শুনলেই আমার হাসি পায়। আর যারা ইসলামের নিয়মনীতি মেনে চলে ইসলাম কায়েম করার জন্য কাফের হত্যা, হিন্দুদের সম্পত্তি লুট, ইহুদি নাছারাদের ধ্বংস করা ও নারীদের বস্তাবন্দীর কাজ করে যাচ্ছে, জিহাদ করছে, তাদের আপনারা বলছেন - সহি মুসলিম না। হা হা হা হা হা হা হা হা হা হা হা হা...

না, আপনাদের কথা শুনে হাসি আটকাতে পারছি না। আসলে আপনি বছরে দু'বার ঈদের নামাজ পড়া আর নুনু-কাটা মুসলমান ছাড়া কিছুই না। যাদেরকে জঙ্গি বলে আখ্যা দিচ্ছি, তারাই আসল মুসলিম। তারাই রিয়েল। তারা প্রমাণ করছে, ইসলাম কতটা শান্তির বর্বরতা। কে যেন বলেছিল, বাংলাদেশে শরিয়া আইন পাস করলে দেখা যেত, ক'জন মুসলিম বাংলাদেশে থাকতো। আমিও চাই বাংলাদেশে শরীয়া আইন হোক। মডারেট হাওয়ার পোলারা তখন লুঙ্গি খুলে প্রমাণ করতে ব্যস্ত হয়ে পড়বে: "এই যে, আমি মুসলিম! আমার গলা কাটবেন না, প্লিজ।"

আমার বোরখা-ফেটিশ – ১৫৪


বনি কুরাইজা গণহত্যা – ৮: কেন এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড?: কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ৯৪): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – আটষট্টি

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯ পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ > পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২ > পর্ব ৭৩ > পর্ব ৭৪ > পর্ব ৭৫ > পর্ব ৭৬ > পর্ব ৭৭ > পর্ব ৭৮ > পর্ব ৭৯ > পর্ব ৮০ > পর্ব ৮১ > পর্ব ৮২ > পর্ব ৮৩ > পর্ব ৮৪ > পর্ব ৮৫ > পর্ব ৮৬ > পর্ব ৮৭ > পর্ব ৮৮ > পর্ব ৮৯ > পর্ব ৯০ > পর্ব ৯১ > পর্ব ৯২ > পর্ব ৯৩

স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও তাঁর অনুসারীরা মদিনার বাজারে গর্ত খুঁড়ে সেই গর্ত পাশে বনি কুরাইজা গোত্রের সকল প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ সদস্যদের (৬০০-৯০০ জন) দলে দলে ধরে এনে এক এক করে গলা কেটে হত্যা করার পর  কী নিয়মে মুহাম্মদ তাঁদের সমস্ত স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নিয়েছিলেন, এই সম্পদের কী পরিমাণ হিস্যা তিনি একাই গ্রহণ করেছিলেন, কোন ঐশী বাণী অবতারণার মাধ্যমে তিনি এই লুটের মালে জীবিকা অর্জনের বৈধতা প্রদান করেছিলেন (পর্ব: ২৮), কীভাবে তিনি তাঁদের মা-বোন-স্ত্রী-কন্যাদের নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিয়ে যৌনদাসীতে রূপান্তরিত করেছিলেন ও রায়হানা নামের এক সুন্দরী রমণীকে তিনি তাঁর নিজের জন্য মনোনীত করেছিলেন, পরবর্তীতে এই যৌনদাসীদের অনেককে কীভাবে তিনি বিক্রি করেছিলেন, সেই বিক্রয়লব্ধ উপার্জনের মাধ্যমে তিনি কী খরিদ করেছিলেন - ইত্যাদি বিষয়ের বিস্তারিত আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

আদি উৎসের ইসলামে নিবেদিতপ্রাণ মুসলিম ঐতিহাসিকদের খন্দক যুদ্ধের বর্ণনার (পর্ব: ৭৭-৮৬) পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণে যে-বিষয়টি সুস্পষ্ট, তা হলো - বনি নাদির গোত্রের বিরুদ্ধে আরোপিত অভিযোগের মতই বনি কুরাইজা গোত্রের বিরুদ্ধে আরোপিত মুহাম্মদের অজুহাত সম্পূর্ণরূপে মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। বনি নাদির ও বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা ছিলেন নিরপরাধ ও নির্দোষ।

প্রশ্ন হলো, কী উদ্দেশ্যে মুহাম্মদ বিন আবদুল্লাহ নিরপরাধ বনি কুরাইজা গোত্রের লোকদের ওপর এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিলেন?

মুহাম্মদের স্বরচিত ব্যক্তিমানস জীবনীগ্রন্থ (Psycho-biography) কুরান ও আদি উৎসের বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকদেরই লিখিত ‘সিরাত’ (মুহাম্মদের জীবনী) ও হাদিস-গ্রন্থে বর্ণিত "বনি কুরাইজা গণহত্যা পূর্ববর্তী" মুহাম্মদের নবী জীবনের বিভিন্ন ঘটনাপ্রবাহের তথ্য-উপাত্ত পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে মুহাম্মদের মনস্তত্ত্ব ও এই প্রশ্নের সঠিক জবাব আমরা অতি সহজেই নির্ধারণ করতে পারি।

বনি কুরাইজা গণহত্যা-পূর্ববর্তী মুহাম্মদের নবী-জীবনের ঘটনার সংক্ষিপ্তসার:

আদি উৎসে বর্ণিত বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকদেরই লিখিত মুহাম্মদের জীবনীগ্রন্থে মুহাম্মদের নবুয়ত পূর্ববর্তী ৪০ বছরের ঘটনার বর্ণনা যৎসামান্য। (পর্ব- ৪৫) ৪০বছর বয়সে একদিন মুহাম্মদ হেরা পর্বতের গুহা থেকে প্রত্যাবর্তন করে তাঁর স্ত্রী খাদিজা বিনতে খুয়ালিদকে জানালেন যে, গুহায় অবস্থানকালে তিনি এক 'অলৌকিক অভিজ্ঞতার' সম্মুখীন হয়েছিলেন। মুহাম্মদের কাছ থেকে এই ঘটনাটি  শোনার পর খাদিজা মুহাম্মদকে অবহিত করান যে, মুহাম্মদ নবুয়ত প্রাপ্ত হয়েছেন ও ব্যাপারটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য তিনি তাঁর চাচাতো ভাই ওয়ারাকা বিন নওফল বিন আসাদের কাছে গমন করেন এবং ঘটনাটি তাকে খুলে বলেন। ওয়ারাকা ছিলেন বাইবেল পণ্ডিত এক ধর্মান্তরিত খ্রিষ্টান। ঘটনাটি শুনে ওয়ারাকা খাদিজাকে জানান, "হে খাদিজা, যদি তুমি আমাকে সত্য বলে থাকো, মুহাম্মদের কাছে যে-এসেছিল, সে হলো সর্বশ্রেষ্ঠ ফেরেশতা জিবরাইল। এর আগে মুসার কাছেও সে এসেছিল, জেনে রাখো, সে হলো এই জাতির নবী (If thou hast spoken to me the truth, O Khadija, there hath come on to him the greatest Namus (Tabari: 'meaning Gabriel') who came to Moses afore-time, and lo, he is the prophet of this people.--)।" [1]

অর্থাৎ মুহাম্মদ তাঁর সেই কথিত অলৌকিক উপলব্ধির ব্যাখ্যা ও কে তাঁর সাথে কথা বলেছিল, সে ব্যাপারে তিনি ছিলেন সম্পূর্ণ অজ্ঞ। যে-ব্যক্তিটি তাঁকে তা জানান ও ঘোষণা দেন যে, "তিনি" একজন নবী, সে হলো খাদিজা। ওয়ারাকা বিন নওফল তা সমর্থন করেন ও অতিরিক্ত যে-তথ্যটি তিনি যোগ করেন, তা হলো - মুহাম্মদের কাছে যে সত্তাটির আগমন ঘটেছিল, সে ছিল "ফেরেশতা জিবরাইল"।

সোজা ভাষায়, "মুহাম্মদ যে একজন নবী" এই পরিচয়পত্রটি (Certificate) মুহাম্মদ পেয়েছিলেন খাদিজা ও ওয়ারাকার কল্যাণে। মুহাম্মদের "নবীযাত্রার শুরু" হয়েছিল এই দুই ব্যক্তির দেয়া পরিচয়পত্রের ভিত্তিতে!

এই ঘটনার পর প্রায় তিন বছর যাবত মুহাম্মদ তার তথাকথিত 'নবুয়তের বাণী' প্রচার করেন গোপনে। অতঃপর তিনি প্রথমে তাঁর নিকট-আত্মীয়দের মধ্যে তাঁর তথাকথিত নবুয়তের বাণী প্রচারের জন্য আদেশপ্রাপ্ত হন। এরই ধারাবাহিকতায়, তিনি তাঁর নিজেরই চাচা ও চাচীকে অভিশাপ বর্ষণ করেন!

অতঃপর মুহাম্মদ প্রকাশ্যে তাঁর প্রচারণা (পর্ব-১৬) শুরু করেন ও সুদীর্ঘ দশ বছর (৬১৩-৬২২ সাল) যাবৎ তিনি আল্লাহর নামে কুরাইশদের দেব-দেবী ও পূর্বপুরুষদের তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য-হুমকি-শাসানী-ভীতি-প্রদর্শন ও অসম্মান অব্যাহত রাখেন। (পর্ব: ২৬-২৭) আল্লাহর নামে তিনি তাঁকে অবিশ্বাসকারী ও তাঁর সমালোচনাকারীদের শোনাতে থাকেন 'পূর্ববর্তীদের উপকথা' (পর্ব: ১৭-১৯), উল্টাপাল্টা কথাবার্তা (পর্ব: ২০-২২), অবৈজ্ঞানিক উদ্ভট প্রলাপ ও যথেচ্ছ শাপ-অভিশাপের বার্তা (পর্ব: ১-১৩)।

মুহাম্মদের এহেন গর্হিত কর্মকাণ্ডে অতিষ্ঠ কুরাইশরা মুহাম্মদের কাছে বহুবার বহুভাবে তাঁর নবুয়তের প্রমাণ হাজির করতে বলেন। তাঁদের দাবি বেশী কিছু ছিল না! তাঁরা মুহাম্মদের কাছে দাবী করেছিলেন যে, মুহাম্মদ যেন তাঁরই বর্ণিত পূর্ববর্তী নবীদের অনুরূপ কোনো একটি "মোজেজা (অলৌকিকত্ব)' তাঁদের সামানে হাজির করেন। মুহাম্মদ তা করতে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হন। তাঁদের সেই ন্যায্য দাবির জবাবে তিনি তাঁদের সাথে করেন অবান্তর বাক্যবিনিময় ও আল্লাহর নামে নিজেই নিজের যথেচ্ছ ভূয়সী প্রশংসা, তাঁদেরকে করেন যথেচ্ছ হুমকি-শাসানী ও ভীতি প্রদর্শন! (পর্ব: ২৩-২৫)।

অতিষ্ঠ কুরাইশরা মুহাম্মদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। মুহাম্মদ তাঁর ধর্মরক্ষার প্রয়োজনে তাঁর অনুসারীদের বিভিন্ন প্রলোভন ও হুমকির মাধ্যমে তাদের পরিবার ও পরিজনের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করে প্রথমে আবিসিনিয়ায় ও পরবর্তীতে মদিনায় দেশান্তরিত (হিজরত) হতে বাধ্য করেন; মুহাম্মদ নিজেও তাঁর ধর্মরক্ষার প্রয়োজনে মদিনায় হিজরত করেন। (পর্ব: ৪১-৪২) মদিনায় আসার পর মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা জীবনের এক কঠিন সমস্যার সম্মুখীন হন। মদিনায় স্বেচ্ছানির্বাসনের সাত মাস পর জীবিকার প্রয়োজনে মুহাম্মদ ও তাঁর মক্কাবাসী অনুসারীরা (মুহাজির) 'ডাকাতি কর্মে' লিপ্ত হন। পর পর সাতটি ডাকাতি চেষ্টা হয় ব্যর্থ। (পর্ব: ২৮)।

অতঃপর একের পর এক উপর্যুপরি সাফল্য!

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

দ্বীনবানের দীন বাণী - ২৪

ভিডিও-সূত্র (আট মিনিটের পর থেকে দেখতে হবে)
পোস্টার ও ভিডিও লিংক: নাস্তিক ফিনিক্স

পুতুলের হক কথা - ০৪

লিখেছেন পুতুল হক

১০.
বুদ্ধি হবার সময় থেকে শুনে আসছি কাদিয়ানিরা কাফের। প্রশ্ন জাগতো মনে, তারা কি আল্লাহতে বিশ্বাস করে না? তারা কি মোহাম্মদকে নবী হিসেবে মানে না? কেউ কি বুঝিয়ে বলতে পারেন, কেন তাঁরা কাফের? শিয়া-সুন্নির বিরোধের বেলায়ও একই কথা প্রযোজ্য। ক'জন বাঙালি মুসলমান জানে, সুন্নিরা কেন শিয়াদের শত্রু মনে করে? তারা তো নবী পরিবারের সমর্থক। তাদের ইমাম হতেন নবীর বংশধর। তবুও আমরা কেন তাদের ঘৃণা করি?

একজন কাদিয়ানি বা একজন শিয়া মুসলিমকে স্বচক্ষে দেখার অনেক আগে থেকে আমি তাদের ঘৃণা করতে শিখেছিলাম। হিন্দু, খ্রিষ্টান, ইহুদিসহ পৃথিবীর সকল অমুসলিমকে ঘৃণা করতে শিখেছিলাম। এরপর নাস্তিক ঘৃণা করতে শিখেছিলাম। ভালোবাসার জন্য তবে রইলো কে? পৃথিবীর মানুষের চার ভাগের তিন ভাগকে ঘৃণা করে, বাকি একভাগের মাত্র একটা ক্ষুদ্র অংশ নিয়ে হয় "উম্মাহ"।

আমি ভাবতে শিখেছিলাম, আমার ধর্ম ইসলামই সেরা। ইসলামই একমাত্র সত্য। আবার সবার ইসলাম ইসলাম নয়। অথবা সবার ইসলাম সত্য নয়। আমি ধরে নিই, আমার ইসলাম - সত্য ইসলাম। এভাবে সব মুসলমান ধরে নেয়, তার ইসলাম - সত্য ইসলাম। আবার সব মুসলমানকে যার যার সত্য ইসলাম নিয়ে চুপচাপ থাকলে চলবে না। সত্যকে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এক সত্য আরেক সত্যকে সহ্য করতে পারে না। মহান আল্লাহ জিবরাইলকেও আর পাঠান না। কে বলবে, কোনটা সত্য ইসলাম?

ঘটনা হল: যার বেশি শক্তি, তার ইসলামই সত্য ইসলাম।

১১.
- তোমার ছেলেটা কেমন আছে?
- আল্লাহ্‌র রহমতে ভালো আছে।
- তোমার আম্মুর শরীর কেমন?
- আম্মুর শরীরটা ভালো নেই।

১২.
আল্লাহ সুবহানাতায়ালার বয়স হয়েছে। "কুন" আগের মত জোরসে বলতে পারেন না। তাই দুনিয়া থেকে রিকুইজিশন দিয়েছেন বহুল পরিমাণে ইট, বালি, রড, সিমেন্ট, উন্নত বিছানা, নরম সোফা, কমপ্লিট, চামড়ার জুতো, আফটার শেভ, শেভিং জেল, ভালো পারফিউম এবং ভালো কনডমের। বামাতিদের জন্য আসমানে অষ্টম বেহেশত নির্মাণ করবেন আল্লাহ। ইসলাম তথা নবী-রাসুলের একনিষ্ঠ খেদমত করে যেসব বামাতি, অষ্টম বেহেশতে তাদের জন্য উন্নত খাবার, মদ আর হুরি সম্বলিত আরাম-আয়েশে পূর্ণ জীবনের গ্যারান্টি প্রদান করছেন আল্লাহ। দলে দলে বামাতি আজকাল স্বপ্নে নবীকে দেখে। নবী তাদের বেহেশতের কথা বলে। তখন তারা বেহেশতের কল্পনা করে। দুনিয়াতে ছেঁড়া চটি, শুকনা গলা আর সস্তা পতিতা ছাড়া আর কিছু জোটেনি। আল্লাহ্‌র নবীর মান বাচানোর উসিলায় যদি একটু ভালো খাওয়া-পড়া জোটে অন্তত পরকালে। ভালো থাকার জন্য পরকালই সই।

বেদ্বীনবাণী - ৪৭


মক্কা - কোরান-বর্ণিত নিরাপদ নগরী

কোরানে মক্কা নগরীকে নিরাপদ বলা হয়েছে বারবার, এমনকি আল্যা একবার শপথও নিয়েছে নিরাপদ মক্কা নগরীর নামে:
১. তারা কি দেখে না যে, আমি (মক্কা নগরীকে) একটি নিরাপদ আশ্রয়স্থল করেছি। অথচ এর চতুপার্শ্বে যারা আছে, তাদের উপর আক্রমণ করা হয়। (সুরা ২৯: ৬৭)
২. যে ব্যক্তি সেখানে (মক্কার হারাম) প্রবেশ করেছে, সে নিরাপত্তা লাভ করেছে। (সুরা ৩: ৯৭)
৩. শপথ এই নিরাপদ (মক্কা) নগরীর। (সুরা ৯৫:১-৩)
৪. আর স্মরণ করো তখনকার কথা যখন আমি এই গৃহকে (কাবা) লোকদের জন্য কেন্দ্র ও নিরাপত্তাস্থল গণ্য করেছিলাম। (সুরা ২:১২৫)
অথচ এ বছরে আল্যার নিরাপত্তা-চাদরে ঢাকা এই নগরীতে অবস্থিত আল্যার ঘর ক্কাবাতেই ক্রেন ভেঙে পড়ে মারা গেছে ১১১ জন, মিনায় শয়তানকে পাথর মারতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মারা গেছে আরও ৭১৭ (মতান্তরে ২০০০) জন। এর আগে গত ৪০ বছরে নিরাপদ এই নগরীতে হজ্বের সময় ঘটা দুর্ঘটনাগুলোর একটি তালিকা দেখে আল্যার বাকসর্বস্বতা ও মিথ্যাচার তথা কোরানের ভুয়াত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হোন:
বিভিন্ন সময়ে একের পর এক হজ ট্র্যাজেডির জন্ম দিয়েছে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, সড়ক দুর্ঘটনা, বোমা বিস্ফোরণ, শিয়া-সুন্নি সংঘর্ষ, ভবন ধস, অগ্নিকাণ্ড এবং পদদলিত হওয়ার মতো মর্মান্তিক ঘটনা।
২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৩ জন আফগানসহ ডজনখানেক হাজি মারা যাওয়ার ৪ বছর পর আবার সেই সেপ্টেম্বরেই পবিত্র হজের মাত্র কয়েকদিন আগে আরেক ট্র্যাজেডির জন্ম হলো। সর্বশেষ তথ্যানুযায়ি শুক্রবারের ক্রেন দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০৭ জনে।
২০০৬ সালে মক্কায় বহুতল আল-গাজা হোটেল ধসে ৭৬ জন নিহত হন এবং আহত হন আরও ৬৪ জন। একই বছর আল-জামারাতে শয়তানকে পাথর ছুঁড়ে মারতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মারা যান আরও ৩৪৫ জন।
২০০৪ সালের ১ ফেব্রুয়ারিতেও শয়তানকে পাথর ছুঁড়ে মারার সময় পদদলিত হয়ে মারা যান ২৪৪ জন হাজি। ২০০১ সালের ৫ মার্চ ৩৫ জন হাজি মারা যান ওই আল-জামারাতে একই ধরনের ঘটনায়। 
ওই একই জায়গায় ১৯৯৮ সালে পদদলিত হয়ে মারা যান ১৮০ জন হাজি।
১৯৯৭ সালের ১৫ এপ্রিল মিনায় তাবুতে আগুন লেগে পুড়ে মারা যান ৩৪০ জন। এ ঘটনায় আহত হন আরও প্রায় দেড় হাজার মানুষ। 
১৯৯৪ সালের ২৩ মে ২৭০ জন মারা যান আল-জামারাতে, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন ইন্দোনেশীয়।
এর আগে ১৯৯০ সালের ২ জুলাই মক্কায় মারা যান ১৪’শ ২৬ জন হাজি। তাদের বেশির ভাগই ছিলেন মালয়েশীয়, ইন্দোনেশীয় ও পাকিস্তানি। সুড়ঙ্গ পথে পদপিষ্ট হয়ে এই বিপুল মানুষের মৃত্যু হয়। হজ ট্র্যাজেডিগুলোর মধ্যে এটিই এযাবৎ কালের সবচেয়ে বেশি প্রাণহানীর ঘটনা।
মুসলিমদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র স্থানে শুধু দুর্ঘটনাই নয় বোমা বিস্ফোরণ, সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষেও মারা গেছেন অনেক মুসল্লি।
১৯৮৯ সালের ৯ জুলাই মক্কায় দুইটি বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহত হন এক হাজি এবং আহত হন আরও ১৬ জন।
১৯৮৭ সালের ৩১ জুলাই মক্কায় ৪০২ জন হাজি নিহত হন, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন ইরানি হাজি। এ ঘটনায় আরও ৬৪৯ জন আহত হন। সৌদি নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে শিয়াদের সংঘর্ষে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।
১৯৭৫ সালের ডিসেম্বরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে তাবুতে আগুন লেগে গেলে নিহত হন ২০০ হাজি।
অর্থাৎ ১৯৭৫ থেকে ২০১৫ মক্কায় ৪০ বছরে হজ্ব পালন করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় চার হাজারেরও বেশি মানুষ। এবং ঘটনাগুলো ঘটেছে কিন্তু সেই নগরীতে, যাকে আল্যাফাক বারবার বর্ণনা করেছে নিরাপদ হিসেবে! অতএব খিয়াল কৈরা!

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

নিজেরে যখনই আবাল মনে হবে - ০৪

ফাতেমা দেবীর ফতোয়া - ২১

লিখেছেন ফাতেমা দেবী (সঃ)

১০১.
অনেক মুছলমান কোরবানির মানবিক ও বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দেয় এভাবে, তারা নাকি কোরবানির মাধ্যমে তাদের মনের পশুকে কোরবানি করে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, তাদের মনের পশু তাদের মনে না থেকে হাটে-বাজারে ও ফার্মগুলিতে থাকে কেন? তারা তাদের মনের পশুকে নিজেদের মন থেকে না নিয়ে হাট-বাজার ও ফার্ম থেকে কিনে নেয় কেন?

১০২.
নবী ইব্রাহীমকে আল্যা তার সবচেয়ে প্রিয় জিনিস আল্যার নামে হত্যা করতে বলেছিল। ইব্রাহীমের সবচেয়ে প্রিয় জিনিস ছিল তার পুত্র ইসমাইল। তাই সে নিজের পুত্র ইসমাইলকে পাহাড়ে নিয়ে চোখ বন্ধ করে জবাই করতে শুরু করে দিল। চোখ খুলে দেখলো, ইসমাইল নয়, একটি পশু জবাই হয়ে আছে। পশুটি তার নিজের তাজা রক্তের ওপর ছটফট করছে, গোঙাচ্ছে, কষ্টে তার চোখগুলি বের হয়ে যেতে চাইছে, তার জিহবা বেরিয়ে গেছে, রক্তে আর কাদায় মাখামাখি হয়ে গেছে, মৃত্যুর সাথে লড়ছে সে। কিছুক্ষণ পরে সে নিথর হয়ে গেছে। তাই দেখে আল্যা রাব্বুল আলামিন খুব খুশি হয়ে গেছে। এই হলো কোরবানির ইতিহাস। সামর্থ্যবান মুসলমানদের কোরবানি ফরজ। কোরবানি মানে, আল্যা রাব্বুল আলামিনকে খুশি করার জন্য নিরীহ অসহায় পশুদের খুন করা আল্যাকে মহান ঘোষণা করে।

এই কথাগুলি পড়ে আমাকে আপনারা প্রশ্ন করতে পারেন, আমি কি মাছ-মাংস খাই না? আমি কি গৌতম বুদ্ধ হয়ে গেছি? উত্তর হচ্ছে, আমি মাছ-মাংস শাক-সবজি সবই খাই। তবে তা ছওয়াব বা পূণ্য লাভের জন্য নয়, বাঁচার জন্য। পৃথিবীর সকল জীব খাদ্যচক্র ও ইকোসিস্টেমের অন্তর্গত। বেঁচে থাকার জন্য আমরা প্রত্যেকেই খাবারের জন্য একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। আমরা ভেজ বা ননভেজ যা-ই খাই না কেন, তার সবই প্রাণ কিন্তু। ভাত-রুটি-নুডুলসও প্রাণ থেকে আসে। আমরা যেটাই খাই, কোনো না কোনো প্রাণ আমাদেরকে হত্যা করতে হয়। নিষ্প্রাণ বস্তু যেমন; ইট বালু সিমেন্ট এসব আমরা খেতে পারি না। বাঁচার জন্য খাওয়া আর পুণ্যলাভের জন্য নিরীহ পশুদের নির্মমভাবে হত্যা করে হত্যোৎব পালন করা কি এক কথা হলো?

মাছ-মাংস যদিও খাই, মুরগি জবাইয়ের দৃশ্য এবং বড়শিতে মাছ ধরার দৃশ্যও আমি দেখতে পারি না। খুব কষ্ট লাগে। নিজেকে স্বার্থপর মনে হয়। কিন্তু বাঁচার জন্য ফুড চেইনের বাইরেও আমি যেতে পারি না। আল্যা নাকি এত মহানম নিরীহ পশুদের হত্যার দৃশ্য দেখে তিনি কীভাবে খুশি হন? কাউকে হত্যা কীভাবে ছওয়াবের ব্যাপার হতে পারে?

১০৩.
কোরবানি ঈদের দিন মুছলমানদের ঘরে ঘরে হত্যাযজ্ঞ মোবারক।

১০৪.
পশুদের যখন আল্যার আদেশে তাকে খুশি করার জন্য মুছলমানেরা কোরবানির নামে খুন করে, যখন পশুগুলি মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করে, নিজের রক্ত ও কাদায় মাখামাখি হয়ে ধরফর করে তখন মহান দয়ালু আল্যা সাত আসমানের উপরে আরসে বসে মহানন্দে খিকখিক করে হাসে ও ছওয়াবের লোভে পশু খুনি মুছলিমদের ছওয়াব দান করে। আল্লা কত দয়ালু ও মহান এইবার দেখেন। বলেন, আল্লা মহান।

১০৫.
আল্যার একমাত্র খাদ্য হচ্ছে রক্ত। আল্যা কোরবানির দিন হত্যা করা পশুর তাজা রক্তের বন্যার উপর গড়াগড়ি দিয়ে রক্ত খায়। সারা বছর বেচারা তেমন কিছুই খেতে পায় না। খিদের চোটে মাথা খারাপ হয়ে আবোলতাবোল কথা বলে। মোমিনাদের উচিত তাদের পিরিয়ডের রক্ত ফিডারে ভরে জমা করে আল্যার কাছে পাঠিয়ে দেয়া। আল্যা আরশে বসে বসে খেতে পারবে। মমিনাদের উচিত হচ্ছে না, তাদের পিরিয়ডের রক্ত অপচয় করা। আল্লা তো বলেছেন, অপচয়কারী শয়তানের ভ্রাতা। মমিনারা কি শয়তানের ভ্রাতা হতে চায়?

নিত্য নবীরে স্মরি – ২০৫

ফটোমাস্তানি: কৌস্তুভ। প্রাসঙ্গিক পোস্ট এখানে

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

মুসলিম-মনের পশু দূরীকরণের অব্যর্থ তরিকা

লিখেছেন ক্যাটম্যান

আজ ঈদ-উল-আযাহা অর্থাৎ কুরবানির ঈদ। মুসলমানদের বাৎসরিক অসভ্যতা ও বর্বরতা প্রদর্শনের দিন। এই দিনে বর্বর ও সামর্থ্যবান মুসলমানগণ ছুরি-চাপাতির উৎসবে মেতে ওঠেন। ইসলাম ধর্মের অযৌক্তিক রীতি ও প্রথা টিকিয়ে রাখতে বর্বর মুমিন-মুসলমানগণ ধারালো অস্ত্রের শান্তিপূর্ণ আঘাতে অগণিত গৃহপালিত নিরীহ পশুর প্রাণ কেড়ে নেন। এই দিনকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায়ের মাঝে গরু, ছাগল, উট ও দুম্বা ক্রয়ের মহামারী ছড়িয়ে পড়ে। এই মহামারীতে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মুসলিম অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশও যথারীতি আক্রান্ত হয়ে থাকে। সারা দেশের ন্যায় রাজধানী ঢাকাও এই প্রবল মহামারীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। রাজধানী ঢাকাকে বলা হয় মসজিদের শহর। কিন্তু কুরবানি মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে এই শহর পরিণত হয় গরু-ছাগলের শহরে। পুরো ঢাকা গরু-ছাগলে ঢেকে যায়। এ সময়ে রাস্তা-ঘাটে ও সুরম্য অট্টালিকার গাড়ি পার্কিং স্থলে গরু পার্কিং করে রাখা হয়। চারপাশে যেখানেই যাওয়া যায়, গরু-ছাগলের গুমোট গন্ধে দম আটকে আসে। অবস্থা এমন বেগতিক হয় যে, ঘরে ঘরে বাঙালি মুসলমান ছড়া আওড়াতে থাকে - “গরুর গন্ধে ঘুম আসে না একলা জেগে রই।”

ধর্মের কাহিনী ঘেঁটে আমরা জানতে পারি, ইব্রাহিমের স্ত্রী সারা যখন নিঃসন্তান ছিলেন, তখন দাসপ্রভু ইব্রাহিমের সহবতে সারার দাসী হাজেরার গর্ভে এক পুত্র সন্তান জন্মলাভ করে। তার নাম ছিল ইসমাইল। ঈসমাইল জন্মলাভের বেশ কয়েক বছর পরে ইব্রাহিমের স্ত্রী সারা ইসহাক নামে এক পুত্র সন্তান জন্মদান করেন। আর তারপর থেকেই স্ত্রী সারার মনে নতুন এক সংকটের সূচনা হয়। ইব্রাহিমের সম্পদ ও স্নেহে নিজ সন্তান ইসহাকের একক উত্তরাধিকার নিশ্চিতকল্পে সারা স্বীয় দাসী হাজেরা ও হাজেরার গর্ভজাত সন্তান ইসমাইলকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। ঈর্ষান্বিত সারা তার স্বামী ইব্রাহিমকে মরুভূমির প্রতিকূল পরিবেশে হাজেরা ও তার শিশু সন্তান ইসমাইলকে হত্যার উদ্দেশ্যে ফেলে আসার নির্দেশ দেন। সারা’র নির্দেশমত নির্দয় ইব্রাহিম হাজেরা ও তার শিশু সন্তান ইসমাইলকে তপ্ত মরুভূমির প্রতিকূল পরিবেশে ফেলে আসেন। সেই যুগে খাবার ও পানীয় জল বঞ্চিত করে কাউকে পরোক্ষভাবে হত্যার এটি ছিল এক সহিহ পন্থা। যার মাধ্যমে প্রত্যক্ষভাবে হত্যার দায় সুকৌশলে এড়ানো সম্ভব।

তবে ইব্রাহিম তাদের হত্যার উদ্দেশ্যে জনশূন্য মরুভূমিতে ফেলে এলেও উক্ত মরুভূমিতে দূরাগত এক বাণিজ্য কাফেলার আগমনে ও তাদের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় এ যাত্রায় তাঁরা প্রাণে বেঁচে যান। পরবর্তীতে হাজেরার সন্তান ইসমাইল সাবালক হয়ে ওঠেন এবং শিকারী ও তীরন্দাজ হিসেবে তার সুখ্যাতি আশেপাশের মরুগোত্রে ছড়িয়ে পড়ে। ফলশ্রুতিতে ইব্রাহিম জানতে পারেন, তাঁর ফেলে আসা দাসী ও তার গর্ভজাত সন্তান ইসমাইল এখনও বহাল তবিয়তে বেঁচে আছে। তখন তিনি ইসমাইলকে হত্যার লক্ষ্যে পুনরায় এক ফন্দি আঁটেন। নিজ সন্তান ইসমাইলকে নিজ হাতে জবাই করে হত্যার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন ইব্রাহিম। কিন্তু হত্যার উদ্দেশ্যে ইসমাইলের নিকট উপনীত হয়ে তিনি দেখতে পান, তাঁর সন্তান ইসমাইল আর আগের সেই ছোট্ট শিশু নেই। সে এখন সুঠাম দেহের অধিকারী শক্তিশালী তরুণ। তার সাথে বৃদ্ধ ইব্রাহিম হত্যার লড়াইয়ে কিছুতেই পেরে উঠবেন না। এই বিবেচনায় তিনি স্ত্রী সারাকে নিঃশঙ্ক করার মানসে নতুন এক উপাখ্যান মঞ্চস্থ করেন। সেই উপাখ্যানের নাম ‘দুম্বার রক্তে ইসমাইল বধ উপাখ্যান।’ এই উপাখ্যানের বিষয় - একটি নিরীহ দুম্বাকে জবাই করে জবাইকৃত দুম্বার রক্ত ঈসমাইলের জামায় মেখে সেই রক্তমাখা জামা নিয়ে গিয়ে স্ত্রী সারাকে প্রদর্শন করা। যেন স্ত্রী সারা তা দেখে এই মর্মে আশ্বস্ত হন, তার সকল দুশ্চিন্তার কারণ দাসীপুত্র ইসমাইল পৃথিবীতে আর বেঁচে নেই। সে আর কখনই তার গর্ভজাত সন্তান ইসহাকের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দেখা দেবে না। ইব্রাহিম প্রণীত উপাখ্যানের এমন প্রতারণাপূর্ণ কৌশলে মুগ্ধ হয়ে বিশ্বব্যাপী মুসলিম সম্প্রদায় আজও সেই প্রতারণাপূর্ণ নাটকের সফল মঞ্চায়ন করে থাকে। আর ঘটা করে পশুবধের এমন নির্মমতাকে উৎসবে পর্যবসিত করতে এর নাম দেয়া হয়েছে ঈদ-উল-আযাহা বা কুরবানির ঈদ।

কুরবানির নামে মুমিন-মুসলমানগণ সাধারণত গরু-ছাগল, উট-দুম্বার ন্যায় নিরীহ পশু হত্যা করে থাকেন। তারা শুধু পশুবধ করেই ক্ষান্ত হন না; একইসাথে পশুবধের আধ্যাত্মিক তাৎপর্য অনুসন্ধান ও প্রতিষ্ঠার অপপ্রয়াস চালান। পশুবধের আধ্যাত্মিক মহিমা কীর্তনে তারা কতিপয় হাস্যকর ব্যাখ্যার অবতারণা করে থাকেন। তন্মধ্যে অন্যতম হাস্যকর ব্যাখ্যাটি হলো - মানুষের মাঝে নানারকম হিংস্রতা ও পাশবিকতা বিদ্যমান। আর মানব মনের সমস্ত পাশবিকতা ও হিংস্রতার মূলে রয়েছে বন-জঙ্গলে বাস করা বিভিন্ন হিংস্র জন্তু-জানোয়ার। যারা কিনা বিনা পাসপোর্ট-ভিসায় আধ্যাত্মিক পন্থায় নিরীহ মানুষের অন্তরে বাসা বেঁধে মানবিকতাসম্পন্ন মানুষকে পাশবিকতাসম্পন্ন মানুষে পরিণত করে। তাদের গবেষণায় আরও বেরিয়ে এসেছে, মানবজাতির সমগ্র পাশবিক আচরণের পেছনে কোনও মানুষ দায়ী নয়, মূলত দায়ী বনের হিংস্র পশু। তাই বুদ্ধিমান মানবজাতির অগ্রগামী সম্প্রদায় মুসলমানগণ নিজেদের অন্তরের পাশবতা দূরীকরণে মানুষকে জবাই না করে চতুষ্পদ পশু জবাই করে থাকেন। সহজভাবে বলতে গেলে - মনের পশু দূর করতে বনের পশু জবাই করে তারা মূলত বর্বরতার চূড়ান্ত স্তরে উপনীত হন। এই আচরণের মাধ্যমে তারা প্রমাণ করেন, মুসলিম সম্প্রদায় আত্মস্বীকৃত পশু। তাদের প্রত্যেকের অন্তরে বাঘ, সিংহ, হায়েনা, শিয়াল, কুকুর ও ভাল্লুকের মত হিংস্র পশু বিদ্যমান। সেই বিবেচনায় মুমিন-মুসলমানদের কর্তব্য হওয়া উচিত - নিজেদের অন্তরে বিদ্যমান বাঘ-সিংহ দূর করতে বাস্তবিক বাঘ-সিংহ কুরবানি দেয়া। অন্তরের শিয়াল-কুকুর দূর করতে বাস্তবিক শিয়াল-কুকুর কুরবানি দেয়া। অথচ চরম সুবিধাবাদী মুমিনগণ নিজেদের অন্তর থেকে হিংস্র পশু বাঘ-সিংহ, শিয়াল-কুকুর দূরীকরণে বাঘ-সিংহ, শিয়াল-কুকুর কুরবানি দেয়ার পরিবর্তে গরু, ছাগল, উট ও দুম্বার ন্যায় নিরীহ পশু কুরবানি দিয়ে থাকেন। কারণ বাস্তবিক গরু-ছাগলের জন্য বাস্তবিক বাঘ-সিংহ সব সময় ভীতিকর হলেও মুমিন-মুসলমানের মনের বাঘ-সিংহ বাস্তবিক গরু-ছাগলের ভয়ে চরমভাবে ভীত থাকে। তাই মুমিনেরা মনের বাঘ তাড়াতে গোয়ালের গরু ব্যবহার করে থাকেন। এতে করে এটিই প্রতীয়মান হয়, সারা বিশ্বের মুমিন-মুসলমানগণ নিজেদের অন্তরে হিংস্র পশুর পরিবর্তে উট-দুম্বা ও গরু-ছাগল লালন করতেই বেশি আগ্রহী। তাই বিশ্বের সমগ্র মুমিন-মুসলমানের বোধবুদ্ধি গরু-ছাগল সুলভ চেতনায় আচ্ছন্ন। তারা চিন্তা ও চেতনায় শুধুই গরু-ছাগলকে অনুসরণ করে থাকেন।

তবে জীবনে একবার পশু কুরবানি করেও তারা মনের পশুর হাত থেকে চিরতরে নিস্তার পান না। কারণ বছর না ঘুরতেই গরু-ছাগলের চেয়েও নিরীহ মুমিন-মুসলমানের অন্তরে হিংস্র পশুসমূহ নতুনভাবে হানা দেয়। তারা চরম হিংস্রতায় মুমিনদের নাজুক অন্তর মুমিনদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে দখল করে নেয়। তাই প্রতি বছরই মুমিনগণ নতুন নতুন বাস্তবিক পশু কুরবানির নামে হত্যা করে নিজেদের অন্তরে লালিত আধ্যাত্মিক পশু দূরীকরণের ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়ে থাকেন। মুসলমানদের মনের পশু দূরারোগ্য ব্যাধির চেয়েও ভয়ানক। আধুনিক যুগে যথাযথ চিকিৎসার মাধ্যমে দূরারোগ্য ব্যাধি থেকে আরোগ্যলাভ সম্ভব হলেও মুমিন-মুসলমানগণ মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত নিজেদের মনের পশুর অত্যাচার থেকে কখনও নিস্তার পান না। মুসলিম সম্প্রদায়ের মনের পশু নিরাময় অযোগ্য ব্যাধি। এদিক থেকে নাস্তিকগণের অন্তর সকল প্রকার পশু থেকে মুক্ত। তাই তারা নির্লজ্জ মুমিনদের ন্যায় প্রতি বছরে মনের পশু নিধনের নামে বনের পশু হত্যার আয়োজন করে না। তারা এ জাতীয় মানসিক ব্যাধি থেকে পুরোপুরি মুক্ত। কারণ তারা নাস্তিক। বর্তমানে একজন নাস্তিক হিসেবে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, ভূতপূর্ব ধার্মিক জীবনে আমি কখনত্ত মনের পশু দ্বারা আক্রান্ত না হলেও আল্লাহর ভাবনায় আক্রান্ত হয়েছিলাম। আল্লাহ আমার এতই প্রিয় বিষয় ছিল যে, সবসময় আমার মন আল্লাহর ভাবনায় নিবিষ্ট থাকত। তাই যে বছর আমি কুরবানি দিতে মনস্থির করলাম, সে বছর আমি আমার সবচেয়ে প্রিয় বিষয় হিসেবে আল্লাহকেই বেছে নিলাম এবং হৃষ্টচিত্তে আল্লাহকেই কুরবানি দিলাম। এমন অনন্য কুরবানির মাধ্যমে আমি দুনিয়া ও আখেরাতের উভয় জিন্দেগিতে একজন খালেস নাস্তিক হিসেবে সম্মানজনক প্রমোশন অর্জন করলাম। একইসাথে অর্জিত হলো একটি পশুমুক্ত বিশুদ্ধ অন্তর। সেইদিন থেকে আজ অব্দি আমি মনের পশুমুক্ত একজন পরিপূর্ণ নাস্তিক। তাই যারা মনের পশুর হাত থেকে চিরতরে মুক্তি পেত চান, তারা শুধুশুধু সামান্য মূল্যের গরু-ছাগল কুরবানি না দিয়ে সবচেয়ে মূল্যবান ও আপনাদের সবচেয়ে প্রিয় আল্লাহকে কুরবানি দিয়ে খালেস নাস্তিক হিসেবে প্রমোশন গ্রহণ করুন। তাহলে আপনাদেরকে আর প্রতি বছর কাঁড়িকাঁড়ি অর্থ অপচয় করে নিরীহ পশু কুরবানি দিয়ে মনের পশু দূরীকরণের ব্যর্থ প্রয়াস চালাতে হবে না। এক লাফেই মন পরিষ্কারের চূড়ান্ত লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হবেন।

কুরবানির ছড়া ও ছবি

লিখেছেন থাবা বাবা

১.
আল্লার নামে জান কুরবান
আল্লাই নেকি করবেন দান,
এটাই খোদার ধর্ম!

গরুর চক্ষু জল টলমল
মানুষের তাই খুশি ঝলমল,
ছিলিবে গরুর চর্ম!

উল্লাস করে বকরি জবাই
রক্তে দু'হাত রাঙাবে সবাই,
এটাই ঈদের মর্ম!

২.
ভোরের রোদে
ঊর্ধ্ব পোঁদে
নামাজ পরে বান্দা!
ছুরির ধারে
বকরি মারে
মাংস হবে রান্ধা!

৩.
ভোর হলো দোর খোল
মুমিনেরা ওঠো রে,
দল বেঁধে একসাথে
ঈদগাহে ছোটো রে!

কষে দড়ি হাতে ছুরি
মোল্লা যে চলল,
গরুটাকে চেপে ধরে
খোদা নাম বললো!

মেখে খুন ওরে শোন
খোদা ওই চাইল,
ঘরে গিয়ে দেখ ত্বরা
মাংস কে খাইল!!!

(৭.১১.১১ তারিখে প্রথম প্রকাশিত)

#

ছবি ও ছড়া: থাবা বাবা


ভাবছেন একে তালেবান আর
এটা আফগান মরু?
না, না , তা তো নয়,
প্রহর গুনছে ঢাকাতে হুজুর -
কাটবে কখন গরু।

(১৩.১১.১১ তারিখে প্রথম প্রকাশিত) 

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

আন্তর্জাতিক গবাদিপশু-গণহত্যা দিবস*



* "আন্তর্জাতিক গবাদিপশু-গণহত্যা দিবস" - কথাটির মালিক সৌরদীপ দাশগুপ্ত

জীব হত্যায় পুণ্য কি?

(প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি থাকলেই কাউকেই শিক্ষিত বলা কি উচিত, যদি সে মুক্তচিন্তা করতে না পারে? কয়েকটি পাঠ্যপুস্তক পড়ে পরীক্ষা দিয়ে পাশ করাটাই কি শিক্ষিত হবার পরিচায়ক? বিশ্বাস ভেঙে যাবে বলে প্রশ্ন করতে ভীত হলে শিক্ষিত ব্যক্তিকে সুশিক্ষিত বলা যাবে? 

আরজ আলী মাতুব্বর। জন্ম ১৯০১, মৃত্যু ১৯৮৬ সালে। গ্রাম্য কৃষক। স্কুল-কলেজের ডিগ্রি তাঁর ছিলো না। পড়েছেন (তাঁর ভাষায়) "সেকালের পাঠশালার দ্বিতীয় শ্রেণী পর্যন্ত।" কৃষিকাজের অবসরে নিজ উৎসাহে ও উদ্যোগে পড়াশোনা করেছেন দূর শহরের লাইব্রেরিতে পায়ে হেঁটে গিয়ে। তিনি স্ব-শিক্ষিত এবং সুশিক্ষিতও। তিনি কুসংস্কারমুক্ত ছিলেন বলে মুক্তচিন্তা করতে পারতেন। ধর্মীয় রীতিনীতি ও কুসংস্কার বিষয়ে যতো প্রশ্ন এসেছে তাঁর যুক্তিমনস্ক মস্তিষ্কে, তিনি সেসবের উত্তর খুঁজেছেন, বিশ্লেষণ করেছেন, প্রচ্ছন্ন সরস কটাক্ষ করেছেন। ডিগ্রিধারী ক'জন শিক্ষিত লোক তা করে থাকে? 

তিনি তাঁর লব্ধ জ্ঞান ও নিজস্ব অনুসন্ধিৎসু বুদ্ধিবৃত্তির অপূর্ব সমন্বয় ঘটিয়ে কয়েকটি বই রচনা করেন। 'আরজ আলী মাতুব্বর রচনা সমগ্র ১'-এ কোরবানি প্রসঙ্গে তিনি যে-প্রশ্নগুলো করেছেন এবং যেসব যুক্তির অবতারণা করেছেন, সেগুলো খণ্ডনযোগ্য নয় বলেই চিরন্তন ও অমলিন। বারবার পড়া যায়।)

কোন ধর্ম বলে, “জীবহত্যা মহাপাপ।” আবার কোন ধর্ম বলে,“জীবহত্যায় পুণ্য হয়।” জীবহত্যায় পাপ বা পুণ্য যাহাই হউক না কেন, জীবহত্যা আমরা অহরহই করিতেছি। তার কারণ¬ জগতে জীবের খাদ্যই জীব। নির্জীব পদার্থ যথা-সোনা, রূপা, লোহা, তামা বা মাটি-পাথর খাইয়া কোন জীব বাঁচে না। পশু-পাখী যেমন জীব, লাউ বা কুমড়া, কলা-কচুও তেমন জীব। উদ্ভিদগণ মৃত্তিকা হইতে যে রস আহরণ করে, তাহাতেও জৈব পদার্থ বিদ্যমান থাকে। কেঁচো মৃত্তিকা ভক্ষণ করিলেও উহার দ্বারা সে জৈবিক পদার্থ-ই আহরণ করে এবং মৃত্তিকা মল রূপে ত্যাগ করে। 

জীব-হত্যা ব্যাপারে কতগুলি উদ্ভট ব্যবস্থা আছে। যথা-ভগবানের নামে জীব হত্যা করিলে পুণ্য হয়, অখাদ্য জীব হত্যা করিলে পাপ হয়, শত্রু শ্রেণীর জীব হত্যা করিলে পাপ নাই এবং খাদ্য জীব হত্যা করিলে পাপ-পুণ্য কিছুই নাই ইত্যাদি। 

সে যাহা হউক, ভগবানের নামে জীব হত্যা করিলে পুণ্য হইবে কেন? কালীর নামে পাঁঠা বলি দিয়া উহা যজমান ও পুরোহিত ঠাকুরই খায়। কালীদেবী পায় কি? পদপ্রান্তে জীবহত্যা দেখিয়া পায় শুধু দুঃখ আর পাঁঠার অভিশাপ। কেননা কালীদেবীর ভক্তগণ যাহাই মনে করুন, পাঁঠায় কামনা করে কালীদেবীর মৃত্যু। যেহেতু কালীদেবী মরিলেই সে বাঁচিত। 

জীবমাত্রেই বলির পাত্র নহে। আবার ধর্মে ধর্মে বলির জীব পার্থক্য অনেক। মুসলমানদের কোরবানির (বলির) পশু-গরু, বকরী, উট, দুম্বা ইত্যাদি। কিন্তু হিন্দুদের বলির পাত্র-ছাগল, ভেড়া, হরিণ, মহিষ, শূকর, গণ্ডার, শশক, গোসাপ এবং কাছিম। 

ইসলামের বিধান মতে “কোরবানি” একটি বার্ষিক অনুষ্ঠান। শোনা যায় যে, হজরত ইব্রাহিম (আঃ) স্বপ্নাদেশ মতে তাঁর প্রিয় পুত্র ইসমাইলকে কোরবানি করিয়া খোদাতা’লার প্রিয়-পাত্র হইয়াছিলেন। তাই মুসলমানগণ গরু, ছাগল, উট, দুম্বা ইত্যাদি কোরবানি দিয়া খোদাতা’লার প্রিয়-পাত্র হ’ন। 

কোরবানি প্রথার মূল উৎস সন্ধান করিলে মনে কয়েকটি প্রশ্ন উদয় হয়। প্রশ্নগুলি এমন- 

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

পষ্ট কইরা লেখা - ১১

অভিরুচি-নির্ভর মানবতা

লিখেছেন জুলিয়াস সিজার

লেবাননের শিক্ষামন্ত্রী ইলিয়াস বোসাব ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরনকে সতর্ক করে দিয়েছেন: "প্রতি ১০০ জন সিরিয়ান শরণার্থীদের মধ্যে ২ জন করে আইএস জঙ্গি ঢুকে পড়েছে।"

সম্প্রতি ব্রিটেন ঘোষণা দিয়েছে, তারা ২০ হাজার শরণার্থী নেবে। তাহলে সেই অনুপাতটি হিসেব করলে পাওয়া যায়, ব্রিটেনে ৪০০ জন আইএস জঙ্গি ঢুকে পড়েছে। কিছুদিন আগে জঙ্গি সংগঠন আইএসের প্রধানও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, ইয়োরোপে চার হাজার আইএস সদস্য ঢুকে পড়েছে।

নিশ্চিত থাকুন, আগামীতে ইয়োরোপের কোনো শপিং মল, স্কুল কিংবা কোনো ব্যস্ত জায়গায় বোমা হামলা হবে। শান্তির গ্রেনেড ফুটবে। তখন আয়লান কুর্দির মতো অনেক ফুটফুটে নিষ্পাপ শিশুর রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকবে। তবে সমুদ্রতীরে শিশু আয়লানের লাশ দেখে মানবতা যেভাবে জেগে উঠেছে, তখন কিন্তু সেভাবে জাগবে না। আসলে মানবতার "ম" পর্যন্ত দেখা যাবে না সেদিন।

একদল সরাসরি সব দোষ ইহুদি-নাসারাদের ওপর চাপিয়ে দেবে: "সব ইহুদি-নাসারাদের ষড়যন্ত্র। ইসলামকে ছোট করতেই ইসলামের নামে এইসব জঙ্গী হামলা করা হচ্ছে।"

অন্যদল পুঁজিবাদ, বৈশ্বিক রাজনীতি, পেট্রোডলার নিয়ে নানা ঠাসা থিয়োরি দেবে, যা পড়ে আপনার চোখ কান দিয়ে ধোঁয়া বের হবে: "সব পুঁজিবাদ, সাম্রাজ্যবাদ আর বাজার দখলের প্রতিযোগিতা। বৈশ্বিক রাজনীতি, ভাই। পলিটিক্স, পলিটিক্স!"

আয়লানের লাশের আগে ধর্ম আসে না। রাজনীতি আসে না। শুধু মানবতা আসে। কিন্তু মুসলিম সন্ত্রাসীদের হামলায় মারা যাওয়া শিশুগুলোর জন্য কোনো মানবতা হবে না। তারা হয়ে যাবে স্রেফ একটা একটা সংখ্যা। ৫০ জন নিহত, নয়তো ৫০০ নিহত!

অথচ এই হামলা ঠেকানোর জন্য ইয়োরোপ যদি বেছে বেছে শরণার্থী নিত, সেটাও আবার হয়ে যেত অমানবিকতা আর ইয়োরোপিয়ানদের বৈষম্য! চরম অমানবিক!

আবার যাচাই করবেই বা কীভাবে? অঘটন ঘটানোর আগ পর্যন্ত বোঝার উপায়ই বা কী যে, কে ভালো মুসলমান আর কে জঙ্গি মুসলমান? বোমা মারার আগ পর্যন্ত সবাই মুসলমান। আর বোমা মেরে দিলে তারপর অসহী মুসলমান! মুসলমানদের কোনো দোষই থাকতে পারে না।

এইতো কিছুদিন আগে লন্ডনে তারা ভার্সিটিতে ছেলেমেয়ে আলাদা হয়ে বসে ক্লাস করার আন্দোলন করল। লন্ডনের মত জায়গায় এরা অ্যাডাল্ট মুভির পোস্টারগুলোতে কালি মেরে দেয়। আর একটা পশ্চিমা দেশে ছেলেমেয়ে আলাদা ক্লাস করবে কিংবা অ্যাডাল্ট মুভির পোস্টার ছিঁড়ে ফেলবে - এমন গোঁড়ামি দেখানো তাঁদের ধর্মীয় অধিকার!

আর আপনি এটার বিরুদ্ধে লিখলেই সেটা হবে ইসলামবিদ্বেষ!

তারও আগে ইংল্যান্ডে নির্বাচনের আগের দিন মুসলমানেরা লিফলেট বিলি করেছে: "ভোট দেওয়া শিরক", "ভোট দেওয়া হারাম"।

এবার একটু বেশি হয়ে গেল! এটাকে কোনোভাবেই যেহেতু সমর্থন দেওয়া যাবে না, তখন সরাসরি বলে দেবে সেই মহান বাণী চিরন্তনী: "তারা সহী মুসলমান নহে!"

যাই হোক, আবার শরণার্থী প্রসঙ্গে আসি। শরণার্থীদের মধ্যে ঢুকে পড়া আইএস জঙ্গিরা যখন বোমা হামলা করবে, তখন স্বাভাবিকভাবেই ইয়োরোপিয়ানরা বোরকা, হিজাব দেখলে কিংবা পাসপোর্টে নামের আগে মোহাম্মদ দেখলে চেক বেশি করবে। নিরাপত্তার খাতিরে কোনো ইয়োরোপিয়ান দেশ হয়তো মুখ ঢেকে চলাফেরা করা কিংবা নেকাব পরা নিষিদ্ধ করবে।

তখন সেটা আবার হয়ে যাবে রেসিজম কিংবা মুসলমানবিদ্বেষ! বোমা মারবে, মানুষ খুন করতে পারবে, কিন্তু চেক করা যাবে না। তখন আবার মানবতা জেগে উঠবে। এই বৈষম্য মেনে নেওয়া যায় না। আবার প্রতিবাদ হবে।

চিত্রপঞ্চক - ১৩০

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

ঈমানদীপ্ত কাহিনী ২ (কুরবানি)

(এটা এক স্কুলবালকের রচনা)

লিখেছেন জল্লাদ মিয়া

আমারে যদি জিজ্ঞেস করা হয়, আমার মতে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ গল্পকার কে? আমি কোন দ্বিধা ছাড়াই উত্তর করিব মুহাম্মদের নাম। প্রয়োজনের সময় মুহাম্মদ এমন প্রাসঙ্গিক গল্প রচনা করিতে পারিতেন যে, এই যুগে বাঁচিয়া থাকিলে তিনি নির্ঘাত সাহিত্যে নোবেল জিতিয়া বসিতেন।

যা হোক, আমার আজকের বয়ানের বিষয়বস্তু হইল কুরবানির ইতিহাস। তো শুরু করা যাক।

একদা হযরত মুহাম্মদ [খাঃপুঃ {খানকির পুলা (আধুনিক দরুদ শরীফ)}] ইসলাম প্রচার করিতে গেলেন তার চাচা আবু তালিবের কাছে। তিনি আবু তালিবকে বিভিন্নভাবে মুসলিমদের দলে আসার জইন্য অনুরোধ করিলেন। এমনকি ৭২টি হুরের প্রলোভন দেখাইতেও ভুলিলেন না। কিন্তু আবু তালিবের মাথায় অল্পবিস্তর মগজ থাকায় মুহাম্মদের কথায় রাজি হইলেন না। তিনি সরাসরি নাচক করিয়া দিলেন।

এতে মুহাম্মদ ভীষণ চটিয়া গেলেন। তিনি তার চাচা আবু তালিবকে বলিলেন, "আবে শালা! কালমা পড়!"

স্বীয় ভাতিজার কাছ হতে খারাপ আচরণ পাইয়া আবু তালিব খুবই মর্মাহত হইলেন। মুহাম্মদকে বলিলেন, "গুরুজনকে সম্মান করিতে শিখ।"

কথাটা মুহাম্মদ ভালোভাবে বুঝিতে পারিলেন না। "গুরুজন"কে মনে করিলেন "গরুজন" অর্থাত্‍ "গরু"; কথাটা মুহাম্মদের মনে ঘুরপাক খাইতেছে। তিনি ভাবিতে লাগিলেন, এই মরুভুমির দেশে গরু পামু কই? এখানে তো সবাই ভেড়া-দুম্বা পালে, গরু পাওয়া তো দুষ্কর।

এর কয়েকদিন পরে মুহাম্মদ একা একা রাস্তা দিয়া হাঁটিতেছিলেন। সৌভাগ্যক্রমে তিনি মাঠে একটা গরু দেখিতে পাইলেন। ভাবিলেন, এই তো সুযোগ! গরুজনকে সম্মান করিয়া আহি। এই বলিয়া গরুর লক্ষ্যে হাঁটা ধরিলেন।

মুহাম্মদ গরুর কাছে গিয়া ভাবিতে লাগিলেন, কীভাবে সম্মান করিবেন! ভাবিলেন, পায়ে ধরিয়া সালাম করিলে কেমুন হয়?!

গরুর পায়ে ধরিয়া সালাম করিবার চেষ্টা করিলেন। কিন্তু পরক্ষণেই মুখে এবং পাছায় তীব্র বেদনা অনুভব করিলেন। গরুটা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানবকে লাথি মারিয়া বসিয়াছে!

মুহাম্মদের একটা দাঁত নড়িতেছে (যে দাঁতটা পরে উহুদের যুদ্ধে পড়িয়া গেছিল!)! মুহাম্মদ গরুটাকে গালি গালাজ করিতে লাগিলেন এবং গরুটার দ্বাদশ ঘটিকা বাজানোর উপায় খুঁজিতে লাগিলেন।

অবশেষে প্রতিশোধ-খ্যাপা মুহাম্মদ ঘোষণা করিয়া দিলেন, যাহাদের ঘরে গরু আছে অথবা গরু সদৃশ প্রাণী যেমন ছাগল, ভেড়া এবং অন্যান্য কিছু আছে, তাদের কুরবানি করা ফরজ! তাহার কথা শুনিয়া এলাকার মানুষ প্রতিবাদ করিল। কারণ এটা মানুষের স্বার্থ বিরোধী। কোন দুঃখে তাঁহারা এত্ত কষ্ট করিয়া পালন করা গরু কতল করিবেন?

মানুষের প্রতিবাদ বড় বিষম জিনিশ! মুহাম্মদ ভাবিতে লাগিলেন, কী করা যায়?



অবশেষে গিব্রাইল বুদ্ধি লইয়্যা আহিল। মুহাম্মদ ইসমাইল ইব্রাহীমের কাহিনী (এগুলো মুসলমানেরা মনে-প্রাণে বিশ্বাস করে, অথচ এদের কোনো অস্তিত্বই কখনো ছিল না) রচনা করিলেন। মুসলমানরা আজও নবীজিকে অনুসরণ করিয়া গরুজনকে সম্মান করে! 

(৪.১১.১৪ তারিখে প্রকাশিত) 

হা-হা-হাদিস – ১৪৮

কোরান কুইজ – ৭৫

নিশ্চয়ই মোমিন মুসলমানগণ কোরান সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান রাখেন। বেয়াড়া নাস্তিকগনও নিজেদেরকে কোরান-অজ্ঞ বলেন না কখনও। তাই মুসলিম-নাস্তিক নির্বিশেষে সকলেই অংশ নিতে পারেন কোরানের আয়াতভিত্তিক এই ধাঁধা প্রতিযোগিতায়। এই সিরিজের মাধ্যমেই তাঁরা নিজেদের কোরান-জ্ঞান যাচাই করে নিতে পারবেন। 

প্রশ্ন ৮৪: পিতা-মাতা কাফের হলে তাদের সঙ্গে কেমন ব্যবহার করতে হবে?

১. তাঁদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে হবে
২. তাঁদের অভিভাবকত্ব ত্যাগ করতে হবে

উত্তর বেছে নিয়েছেন? এবারে মিলিয়ে দেখুন।
.
.

আহমেদ-ঘড়ি ও ইসলামোফোবিয়া


চার নম্বর প্রতীকটি দেখে কোনও ধর্মের নাম মাথায় যদি আসে (এবং অবশ্যই এসেছে আপনার মাথায়), তো সেই ধর্মকে ভয় পাবার ভিত্তি নিশ্চিতভাবেই থাকে। কিন্তু বাধ সেধেছে 'ইসলামোফোবিয়া' নামের একটি ধান্দাবাজ শব্দ। 

Phobia হচ্ছে irratonal fear অর্থাৎ অযৌক্তিক বা ভিত্তিহীন ভীতি। এই যেমন, Alliumphobia - রসুনভীতি, Papyrophobia - কাগজভীতি, Geliophobia - হাসিভীতি। অর্থাৎ রসুন, কাগজ বা হাসিকে ভয় পাবার কিছু নেই বলেই সেই তথাকথিত ভীতিগুলোকে ফোবিয়া বলা হয়। 

কিন্তু ইসলামোফোবিয়া শব্দটি অত্যন্ত সুচতুরভাবে আবিষ্কার করা হয়েছে প্রপাগাণ্ডা ছড়ানোর উদ্দেশ্যে। যেন ইছলাম একেবারে আপাদমস্তক নিরীহ ও শান্তিপূর্ণ - রসুন, কাগজ বা হাসির মতোই। ইছলামের শিং নেই, নোখ নেই, > ছোটে না কি হাঁটে না, > কাউকে যে কাটে না, > করে না কো ফোঁসফাঁস > মারে নাকো ঢুঁশঢাঁশ, > নেই কোন উৎপাত...

অর্থাৎ কিনা প্রমাণ করার চেষ্টা, ইসলামোফোবিয়া হলো ইছলাম বিষয়ে বেহুদা ভীতি। তবে বাস্তবে ইছলাম এখন একটি আতঙ্কের নাম। আর তাই ইছলামের নামে ঘটানো সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে ইছলাম নামের দানবটিকে ভয় পাওয়া কি অযৌক্তিক? আসলে অমুছলিমদের যুক্তিযুক্ত ইছলামভীতিকে ভিত্তিহীন প্রমাণ করতে 'ইসলামোফোবিয়া' শব্দটি উদ্ভাবন করা হয়েছে।


টেক্সাসের মুছলিম বালক আহমেদের ঘড়ি-কাহিনী অনেক দূর গড়িয়েছে। আপাতভাবে বালকটি নির্দোষ বলেই মনে হয়। কিশোর বয়সে ঘড়িনির্মাণতৃপ্তির আতিশয্যে সে হয়তো সেটিকে নিয়ে গেছে স্কুলে। কিন্তু ঘড়িটার এমনই চেহারা, সেটা যদি কাউকে আতঙ্কিত করে তোলে, তাকে দোষ দেয়া যাবে না। 


এমন একটি ডিভাইস নিয়ে এয়ারপোর্ট পেরোতে গেলে নিরাপত্তা কর্মীরাও অবধারিতভাবে সন্ত্রস্ত হয়ে উঠবেন। সন্দেহজনক কোনও বস্তু দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়াটাই তো স্বাভাবিক। অথচ স্যুটকেস-বোমা সদৃশ ওই ডিভাইসটি মুছলিম কিশোরের হাতে দেখে কোনও শিক্ষকের ভীত হতে পড়ার ব্যাপারটিকে ইছলামোফোবিয়া বলে চালিয়ে দেয়ার ধূর্ত চেষ্টা শুরু হয়েছে শুরু থেকেই। যদিও ওই শিক্ষকের ভীতি দ্বিবিধ কারণে যুক্তিযুক্ত: ওটির চেহারা স্যুটকেস বোমার কথা মনে করিয়ে দেয় এবং সেটি বহন করেছে এক মুছলিম বালক - যার বয়সী ইছলামী জঙ্গি এই ধরাধামে কম নেই। তদুপরি, ইছলামের এহেন জঙ্গি ইমেজ ইছলামের স্বোপার্জিত।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে আমেরিকার ঠোঁটকাটা কমেডিয়ান বিল মারের কথাগুলো সবচেয়ে যুক্তিযুক্ত ঠেকেছে।

ভিডিও লিংক: https://youtu.be/aGit-XltUB4

সংযোজন: আহমেদের পিতা 'ইসলামোফোবিয়া' নামের ধূর্ত ধারণাটির প্রচার, প্রসার ও প্রতিষ্ঠায় প্রায় প্রাণপাত করছেন (২০১১ সালে তাঁর অংশগ্রহণে একটি টিভি-বিতর্ক - মূল বিতর্ক শুরু হয় ৩১.৪৮ মিনিটে), তার বোনকে একবার স্কুল থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল বোমা মেরে স্কুল উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়ার অভিযোগে। এর পরে আহমেদের বোমাসদৃশ ঘড়ির ঘটনা... হুমমমমমমমমমম!

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

হাস্যকর, খুব হাস্যকর

লিখেছেন সুহৃদ 

সর্বশক্তিমান, সর্বজ্ঞ, সর্বনাশ মহান আল্যাপাক-এর সাথে সেদিন দেখা হয়ে গেল, সাথে নৃত্যরত তার তিন যুবতী মেয়ে লাত, মানাত আর উজ্জা। আমি বারবার আল্যাপাকের মেয়েদের দিকে দুষ্টু নজরে তাকাচ্ছিলাম। তা দেখে তিনি রেগে গজগজ করে বললেন, "সোজা হও!"

আমি ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে সোজা হয়ে দাঁড়ালাম। 
তিনি ধমক দিয়ে বললেন, "এবার হাল্লা বল।"
আমি লাতের দিকে আড়চোখে তাকিয়ে চিঁ চিঁ করে বললাম, "হাল্লা!"
তিনি কড়া স্বরে প্যাক প্যাক করে পুনরায় আদেশ করলেন, "হাল্লা বল।"
আমি মানাতের দিকে তাকিয়ে ঢোঁক গিলে বললাম, "হাল্লা!"
আবার কর্কশ কণ্ঠে একই নির্দেশ এল, "হাল্লা বল।"
আমি উজ্জার দিকে চুপে চুপে তাকিয়ে কাঁপা স্বরে বললাম, "হাল্লা!"

- এবার বল, তোর কী যেন প্রশ্ন ছিল? 
- হ্যাঁ, প্রশ্ন তো অনেক ছিল। এই যে মহাবিশ্ব কত বিশাল, আকাশ-বাতাস-পাহাড়-পর্বত-নদী-নালা-খাল-বিল-সাগর-মহাসাগর-গ্রহ-উপগ্রহ-নক্ষত্র-ছায়াপথ-সুপারক্লাস্টার...

তিনি যোগ করলেন, "মানুষ-গরু-ছাগল-মহিষ-ভেড়া-শুয়োর-কুকুর-বেড়াল-হাঁস-মুরগি-মুসা-ইসা-মহামেদ..."
আমি বললাম, "পদার্থ বিজ্ঞানের দুর্বোধ্য সব সূত্র!"
তিনি ফোকলা দাঁত বের করে মাথা দুলিয়ে বললেন, "ম্যালেরিয়া-টাইফয়েড-আমাশয়-এইডস-সিফিলিস-ক্যান্সার-মশা-মাছি-গু-গোবর-রাজাকার..."
আমি বললাম, "হ্যাঁ, সবকিছু আপনি আপনার অপরিসীম হেকমত দিয়ে সৃষ্টি করেছেন। কিন্তু কীভাবে সব সৃষ্টি করেছেন?"
তিনি তার পাকা দাড়িতে হাত বুলিয়ে গম্ভীর হয়ে বললেন, "আমি বললাম, ‘হাস্যকর, খুব হাস্যকর।’ এতেই সবকিছু সৃষ্টি হয়ে গেল।"

- কিন্তু আপনার পবিত্র বা’আল পুরানে লেখা, আপনি বলেছেন, 'কুন সে সায়ারুন, কুন ফায়াকুন, নাই মা খবিরুন, আলাইহিম চুদুরুন, সব ত্বোরা খাওপুন!'
- আর তাতেই সবকিছু সৃষ্টি হয়ে গেল? 
- হ্যাঁ, তাই তো লেখা। 
- হাস্যকর, খুব হাস্যকর, তাই না? 
- হ্যাঁ, তা তো বটেই! 
- তাহলে তো ঠিকই আছে! সমস্যা কোথায়?

গরুপূজারি গাধাগুলো - ১২৪

হিন্দুধর্মে 'পদমর্যাদা'। আগের পর্ব


ইছলামী ইতরামি

১. সাম্প্রতিক ইছলামী হত্যাকাণ্ডের সংক্ষিপ্ত খতিয়ান: ফাকিস্তানে ২৯ জন (ঘটনা মসজিদের ভেতরে), তাজিকিস্তানে ১০ জন, সিরিয়ায় ৬৫ জন, আফগানিস্তানে ১৩ জন

২. প্রথম অনুসন্ধান অভিযানেই ফাকিস্তানের ৪৯ টি মাদ্রাসার সঙ্গে জঙ্গিবাদী সংগঠনগুলোর যোগাযোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে। অনুসন্ধানকারীরা কি ভেবেছিল, জঙ্গিবাদের উর্বর ভূমি মাদ্রাসায় জ্ঞানের চাষ চলে?

৩. নিয়তির কী পরিহাস! ৫৪ বছরের নবী ৯ বছরের মেয়েকে ধর্ষণ করে কোটি কোটি মানুষের অনুকরণীয়, অথচ তার ৬৩ বছর বয়সী উম্মত মসজিদের ভেতরে ১০ বছরের বালিকাকে যৌননির্যাতন করে প্রেপ্তার হয়েছে।

৪. অকপট স্বীকারোক্তি সব সময়ই প্রশংসাযোগ্য। মালয়েশিয়ার UMNO (United Malays National Organisation)-র সদস্য বলেছেন, "আমি বর্ণবাদী, এবং আমার বর্ণবাদের ভিত্তি ইছলাম।"

৫. আরেকটি মালয়েশীয় স্বীকারোক্তি। আইসিস-এর মালয়েশীয় জঙ্গি বলেছে, কোরানই তাকে জঙ্গি হতে উদ্বুদ্ধ করেছে

৬. ইছলামী জঙ্গিবাদের ১৭ বছর বয়সী প্রবল সক্রিয় সমর্থক পেয়েছে ১১ বছরের কারাদণ্ড

৭. যৌনজিহাদে অংশগ্রহণকারী জেনানাদের জন্য সুখবর: আখিরাতে তারা বেহেশবাসী হবে। তবে বেহেশতে অনন্তকাল ধরে তারা কী উৎপাটন করবে, তারাই জানে!

৮. সশস্ত্র মুছলিম চার্চে ঢুকে ঘোষণা দিলো, আল্যাফাক কাফেরদের হত্যা করার নির্দেশ দিয়েছে

৯. আইসিস-এর করা শিরশ্ছেদের ভিডিও ফুটেজ দেখার কিছু পরে ১৫ বছর বয়সী এক ড্যানিশ কিশোরী তার মাকে হত্যা করেছে। এতে তার সঙ্গে অংশ নিয়েছে তার ২৯ বছর বয়সী মুছলিম বয়ফ্রেন্ড।

১০. অপকর্ম করে ধরা পড়ার পর ইবলিশের ওপরে দোষ চাপানোর ইছলামী ফাতরামি কিশোরী-ধর্ষণের পর বজায় রেখেছে বঙ্গদেশীয় এক ইমাম।

১১. হজ্বের উদ্দেশ্য - নিজের মলমণ্ডিত গুহ্যদ্বার মলমুক্ত করে তাতে ইছলামী সুগন্ধী যুক্ত করার মাধ্যমে পাক বানানো। তাই মা-মেয়েকে ধর্ষণ করে হজ্ব করতে গেছে এক বঙ্গসন্তান।

১২. 'জিহাদিরা বীর ও রোল মডেল' - এ বিষয়ে প্রাইমারি স্কুলের ক্লাসে ছাত্রদের পত্ররচনা করতে বলেছে মুছলিম শিক্ষক।

১৩. দাসীসঙ্গম ইছলামে হালাল ও সুন্নতও বটে। ভারতের দিল্লিতে নবীজির অনুসারী চৌদি রাষ্ট্রদূত সেই ছহীহ্ কাজটাই করতো নিয়মিত। অথচ তাকে ভারত ছেড়ে পালাতে হলো।

১৪. বিবাহবহির্ভূত যৌনসম্পর্ক স্থাপনের দায়ে এক যুগলকে ১০০ বার বেত্রাঘাত করা হয়েছে উৎসুক দর্শকদের সামনে।

১৫. স্বামীর অনুমতি মেলেনি বলে ইরান প্রমীলা ফুটবল দলের অধিনায়িকা মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারবেন না।

১৬. জিহাদী সন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে হল্যান্ডে ১৫ বছরের এক মুছলিম বালিকাকে তদন্তের আওতায় আনা হয়েছে।

১৭. ইয়েমেনে চৌদি আজবের মর্টার আক্রমণে দু'জন বাংলাদেশী নিহত হয়েছেন। বাম ও মমিনদের হ্যাশট্যাগ বিপ্লব গাজার জন্যই সংরক্ষিত থাকুক।

১৮. আল-কায়েদার প্রধান আইসিস-এর খলিফার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। দেখা যাক, কারা বেশি জঙ্গি ও নবীজির খাছ উম্মত। এ বিষয়ে মনে পড়লো স্ট্যান্ড-আপ কমেডিয়ান জর্জ কারলিনের একটি ভিডিওর কথা, যেখানে তিনি বলেছিলেন: Anytime a bunch of holy people want to kill each other, I'm a happy guy.

১৯. প্রাক্তন ইছলামী জঙ্গি ও বর্তমানে পুতিনের অতি প্রিয়জন, ইছলামী আইন ও ঐতিহ্যের ঘোর সমর্থক - চেচনিয়ার প্রধান শাসক রমজান কাদিরভ ইছলামের নবীর জীবিত বংশধরের রক্ত নিজের রক্তে মেশানোর পর বলেছে, সে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ।

২০. বিমানবালিকার চাকরি করবো, কিন্তু অ্যালকোহল সার্ভ করবো না - এই জাতীয় ইতরামিতে মুছলিমরা কেন যে এতো পটু!

২১. অন্তত ৩০ লক্ষ মানুষকে আশ্রয় দেয়ার ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও চৌদি আজব আশ্রয় দেয়নি কোনও মুছলিম শরণার্থীকে


২৩. স্রেফ কল্পনা করুন, চৌদি আজবে ভিন্নধর্মী এক দল লোক তাদের ঐশী কিতাব নাড়িয়ে মসজিদগামী মুছলিমদের উদ্দেশে কটুকাটব্য ও গালিগালাজ করছে। এর ফলাফল কী হবে, অনুমান করা দুরূহ নয়। অথচ ইসরায়েলে অনুরূপ ঘটনা ঘটানোর কারণে মুছলিম জেনানাদের একটি দলকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে শুধু।