৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

উগ্র নাস্তিক

লিখেছেন সৈকত চৌধুরী

মজুমদার সাহেব চোখের ডাক্তারের কাছে গেছেন।

ডাক্তার জিজ্ঞেস করলেন, আপনার সমস্যা কী, জানতে পারি?
- আমার নিজের কোনো সমস্যা নাই। সকল সমস্যাই ঐ উগ্র নাস্তিকগুলো। কিন্তু বউ বললো তো!
- একটু ডিটেইলস বলেন।
- মানে চতুর্দিকে কেবল উগ্র নাস্তিক দেখতে পাই।
- আচ্ছা, আপনি কি দূরের জিনিস ঠিকমত দেখতে পান?
- হ্যাঁ, এক্বেরে ফকফকা, দূরের উগ্র নাস্তিক কাছে দেখতে পাই।
- কাছের জিনিস দেখতে পান?
- কাছের উগ্র নাস্তিক আরো কাছে দেখতে পাই, মনে হয় চাপাতি নিয়ে এই মাত্র আমাকে মেরে ফেলে।

ডাক্তার সাহেব অবস্থা গুরুতর দেখে ইমার্জেন্সিতে যোগাযোগ করে তাকে মানসিক হাসপাতালে পাঠিয়ে দিলেন। মানসিক রোগের ডাক্তার এবার মজুমদার সাহেবকে দেখতে এসেছেন।

ডাক্তার জিজ্ঞেস করলেন, আপনার সমস্যা কী?
- চতুর্দিকে কেবল উগ্র নাস্তিক ঘোরাঘুরি করে।
ডাক্তার চিন্তিত হয়ে বললেন, কবে থেকে এই সমস্যা?
- কিছু উগ্র নাস্তিক মারা যাওয়ার পর থাইক্যা।
- কারা মেরেছে ওদের?
- ইসলামি জঙ্গিরা।
- কোনো নাস্তিক কি আপনাকে কখনো আঘাত করেছে?
- হ্যাঁ, ডাক্তার সাব। এইটাই তো কেইস। আমার ধর্মানুভূতিতে আঘাত দিয়েছে উগ্র নাস্তিকরা।
- ধর্মানুভূতি?
- কিচ্ছু জানে না নাস্তিক ডাক্তার! আরে পাগল, ধর্মানুনুভূতি থাকে এইখানে, ঈমানদণ্ডের একদম গোড়ায় (প্যান্ট খুলতে গেলে ডাক্তার বাধা দিলেন)।
- বুঝলাম, কোনো নাস্তিক আপনাকে আঘাত করেনি। তবে এরকম কখনো কি দেখেছেন, নাস্তিকরা অন্য কাউকে আঘাত করেছে?
- করেনি, তবে করবে। একখান চাপাতি ওদের দিলেই করবে।
- মানে উগ্র নাস্তিকরা চাপাতি চেনে না, হাতে নিতে পারে না?

এরকম চরম অযৌক্তিক কথাবার্তা শুনে মজুমদার সাহেব প্রচণ্ড রেগে গেলেন। ডাক্তারকে চিৎকার করে বললেন, আপনি একটা উগ্র নাস্তিক, আপনার হাতে চাপাতি।

ডাক্তার সাহেব মৃদু হেসে তার হাতে থাকা কলম পকেটে রেখে দিলেন।