৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫

ফাতেমা দেবীর ফতোয়া - ১৯

লিখেছেন ফাতেমা দেবী (সঃ)

৯১.
আল্যাতালা-চাবির কোনো নেয়ামতকেই আমি অস্বীকার করি না। যেমন, এত এত মানুষ যে ফুটপাতে ঘুমায়, এত এত মানুষ যে অনাহারে মরে, এত এত যে হানাহানি খুনোখুনি কাড়াকাড়ি হত্যা ধর্ষণ অবিচার ইত্যাদি ইত্যাদি - সবই তো আল্যার হুকুম ও রহমতের জন্য হয়ে থাকে। আল্যার এসকল নেয়ামতকে আমি কীভাবে অস্বীকার করবো? এজন্য আমি আস্তিক।

৯২.
মরুদস্যুকে মরুদস্যু বলব না, তো বলব কী? শিশুকামীকে শিশুকামী বলব না, তো বলব কী? পত্রবধূকামীকে পত্রবধূকামী বলব না, তো বলব কী? যুদ্ধবাজকে যুদ্ধবাজ বলব না, তো বলব কী? দাসীকামীকে দাসীকামী বলব না, তো বলব কী? খুনিকে খুনি বলব না, তো বলব কী? ভণ্ডকে ভণ্ড বলব না, তো বলব কী? খবিসকে খবিস বলব না, তো বলব কী?

৯৩.
ধর্মগ্রন্থগুলির অনুবাদ পড়ে যে কোনো বিবেকবান মানুষই ধর্ম ত্যাগ করে অত্যন্ত ঘৃণা ভ'রে। আর এভাবেই ধর্মগুলি বিলুপ্ত হয়ে যাবে একদিন। তাই ধর্মগুলিকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে ধর্মগ্রন্থগুলির অনুবাদ নিষিদ্ধ করা উচিত।

৯৪.
তোমাদের জন্য শিক্ষণীয় আছে চতুষ্পদ জীবে, উহাদের উদরস্থ বস্তু তোমাদিগে পান করাই, এতে তোমাদের আছে প্রচুর উপকার, উহাদের গশতও তোমরা ভক্ষণ করো। (সুরা ২৩:২১)

আমরা কোনো কোনো চতুষ্পদ জীবের দুগ্ধ পান করে থাকি। আমরা জানি, দুগ্ধ থাকে স্তনে। স্তন কিংবা দুগ্ধ কোনটাই উদরের ভেতরে থাকে না। পশুদের উদরের ভেতরে থাকে মলমূত্র। আল্যাতালা বলেছেন, তিনি মমিনদিগে চতুষ্পদ জীবের উদরস্থ বস্তু পান করান। তার মানে তিনি মমিনদিগে চতুষ্পদ জীবদের মলমূত্র পান করান। আমরা যারা অমমিন, তারা সবাই চতুষ্পদ জীবের দুগ্ধ পান করি। আল্যাপাক কেন মমিনদেরকে পশুদের নাপাক মলমূত্র পান করান? মমিন হওয়া এত্ত বড় গুনাহ? এত নাপাকি জীবন মমিনদের?

৯৫.
- নবীজির যৌনক্ষমতা ছিল সাধারণ পুরুষের ৩০ গুণ। সাধারণ মানুষ সম্রাট আকবরের বিবির সংখ্যা যদি ৩০০-র বেশি হয়, নবীজির বিবির সংখ্যা কত হওয়া উচিত ছিল?
- ৯০০০।