২৯ আগস্ট, ২০১৫

বনি কুরাইজা গণহত্যা–৪: রায় ঘোষণা- ‘ব্যাপক হত্যা, ধর্ষণ ও লুট’!: কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ৯০) ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – চৌষট্টি

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯ পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ > পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২ > পর্ব ৭৩ > পর্ব ৭৪ > পর্ব ৭৫ > পর্ব ৭৬ > পর্ব ৭৭ > পর্ব ৭৮ > পর্ব ৭৯ > পর্ব ৮০ > পর্ব ৮১ > পর্ব ৮২ > পর্ব ৮৩ > পর্ব ৮৪ > পর্ব ৮৫ > পর্ব ৮৬ > পর্ব ৮৭ > পর্ব ৮৮ > পর্ব ৮৯

বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর কাছে বিনা শর্তে আত্মসমর্পণ করার পর তাঁদের মিত্র আল-আউস গোত্রের লোকেরা তাঁদের প্রাণ রক্ষার প্রচেষ্টায় উৎকণ্ঠিত অবস্থায় মুহাম্মদের কাছে দৌড়ে এসে কী আবেদন করেছিলেন, তাঁদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মুহাম্মদ তাদেরকে কী প্রস্তাব দিয়েছিলেন, তাঁরা তাঁর সেই প্রস্তাবে রাজি হলে মুহাম্মদ সা'দ বিন মুয়াদ নামের তাঁর এক একান্ত বিশ্বস্ত অনুসারীকে কী উদ্দেশ্যে বনি কুরাইজার বিরুদ্ধে ‘রায় প্রদানকারী’ রূপে ঘোষণা দিয়েছিলেন, মুহাম্মদের নির্বাচিত এই বিচারকের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য কেমন ছিল, খন্দক যুদ্ধে তীরবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হওয়ার পর এই বিচারক 'বনি কুরাইজার প্রতি প্রতিহিংসা ও জিঘাংসার অভিপ্রায়' কীভাবে ব্যক্ত করেছিলেন - তার বিস্তারিত আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের (৭০৪-৭৬৮ সাল) বর্ণনার পুনরারম্ভ: [1][2]

পূর্ব প্রকাশিতের (পর্ব: ৮৯) পর:

‘আল্লাহর নবী তাঁর মসজিদে [বানু] আসলামের রুফায়েদা নামের এক মহিলার তাঁবুর ভিতরে সা'দ কে রেখেছিলেন। মহিলাটি আহত লোকদের সেবা-শুশ্রূষা করতেন ও যে স মুসলমানের সেবা-যত্নের প্রয়োজন, তাদেরকে তিনি দেখাশুনা করতেন। খন্দক যুদ্ধে যখন সা'দ তীরবিদ্ধ হয়ে আহত হন, তখন আল্লাহর নবী তাঁর লোকজনদের বলেন যে, তিনি পরে গিয়ে তার সাথে দেখা করার পূর্ব পর্যন্ত তাকে যেন রুফায়েদার তাঁবুর ভিতরে রাখা হয়।

যখন আল্লাহর নবী তাকে বনি কুরাইজার ব্যাপারে বিচারকের ভূমিকায় নিযুক্ত করেন, তার লোকেরা তার কাছে আগমন করে ও তাকে এক খচ্চরের পিঠের উপর বসানো চামড়ার গদির উপর আরোহণ করায়, সে ছিল স্থূলকায় এক মানুষ। তারা তাকে আল্লাহর নবীর নিকট নিয়ে আসে ও বলে, "তোমার মিত্রদের সাথে সদয় আচরণ করো, সেই কারণেই আল্লাহর নবী তোমাকে মধ্যস্থ নিযুক্ত করেছেন।"

যখন তারা তাকে জোরাজুরি করে, সে বলে, "এখন তার সময় এসেছে আল্লাহর নিমিত্তে কিছু করার, কোনো মানুষের অনুযোগে যত্নবান হওয়ার জন্য নয়।"

তার লোকদের যারা সেখানে উপস্থিত ছিল, তাদের মধ্যে থেকে কিছু লোক বানু আবদুল-আশহাল গোত্রের কোয়ার্টারে ফিরে আসে এবং সা'দ সেখানে পৌঁছার আগেই তাদের উদ্দেশে তারা বনি কুরাইজার লোকদের নিধনের ঘোষণা দেয়, কারণ তাকে তারা তাইই বলতে শুনেছিল।      

যখন সা'দ আল্লাহর নবী ও মুসলমানদের কাছে পৌঁছে, আল্লাহর নবী তাদের নেতাকে অভিবাদন জানানোর জন্য দাঁড়িয়ে পড়ার আদেশ দেন।

কুরাইশ মুহাজিররা মনে করে যে, আল্লাহর নবী আনসারদের বোঝাতে চেয়েছেন, পক্ষান্তরে আনসাররা মনে করে যে, তিনি সবাইকে বোঝাতে চেয়েছেন, তাই তারা দাঁড়িয়ে যায় ও বলে, "হে আবু আমর, আল্লাহর নবী বিশ্বাস করে তোমাকে তোমার মিত্রদের ব্যাপারে নিযুক্ত করেছেন, যেন তুমি তাদের বিষয়ে রায় ঘোষণা করতে পারো।" [3]

সা'দ জবাবে বলে, "তোমরা কি আল্লাহর ওয়াস্তে অঙ্গীকারবদ্ধ যে, যে-রায় আমি ঘোষণা করবো, তা তোমরা মেনে নেবে?" তারা বলে "হ্যাঁ"।

সে আল্লাহর নবীর দিকে (তাকিয়ে) ও সম্মানহেতু তাঁর নাম উল্লেখ না করে বলে, "এটা কি তাঁর দায়িত্বে, যিনি এখানে উপস্থিত আছেন?" আল্লাহর নবী বলেন, "হ্যাঁ।"

সা'দ বলে, "তাহলে আমার রায় এই যে, 'তাদের সমস্ত প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষকে হত্যা করো, তাদের সম্পত্তি বণ্টন করো ও তাদের মহিলা ও শিশু সন্তানদের বন্দী করো’।"

আলকামা বিন ওয়াককাস আল-লেইথি হইতে > আবদুল-রাহমান বিন আমর বিন সা'দ বিন মুয়াদ এর কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আসিম নিন উমর বিন কাতাদা আমাকে জানিয়েছেন:

আল্লাহর নবী সা'দ কে বলেন, "তুমি যে রায়টি দিয়েছো, সেটিই হলো সাত আসমানের ওপর অধিষ্ঠিত আল্লাহর রায়।"’

(অনুবাদ, টাইটেল ও [**] যোগ - লেখক।)

>>> স্বঘোষিত আখেরি নবী মুহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ তাঁর জীবদ্দশায় (৫৭০-৬৩২ সাল) যে স মানবতাবিরোধী নৃশংস অপরাধের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলেন, তার সবচেয়ে গর্হিত, নৃশংস ও হৃদয়বিদারক ঘটনাটি হলো এই 'বনি কুরাইজা গণহত্যা' সে কারণেই এই জঘন্য মানবতাবিরোধী অপরাধের বৈধতা প্রদানের প্রয়োজনে মুহাম্মদ অনুসারী পণ্ডিত ও অপণ্ডিতরা গত ১৪০০ বছর যাব এই গণহত্যার বিষয়ে সবচেয়ে বেশি তথ্যবিকৃতি ও মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়ে থাকেন। এই গণহত্যার সপক্ষে তারা সচরাচর যে-সব মিথ্যাচার ও কলা-কৌশলের আশ্রয় নেন, সেগুলো হলো:

"খন্দক যুদ্ধকালে তারা ‘চুক্তি ভঙ্গ’ করে মিত্রবাহিনীকে সাহায্য করেছিল!"
"বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা 'মুহাম্মদের প্রস্তাবে' রাজি হয়েছিল!"
"তারা সা'দ বিন মুয়াদ কে মধ্যস্থতাকারী হিসাবে মেনে নিতে রাজি হয়েছিল!"
"সা'দের এই রায় ছিল ইহুদিদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ 'তৌরাত' এর নিয়ম অনুযায়ী!"

আদি উৎসের মুসলিম ঐতিহাসিকদেরই লিখিত মুহাম্মদের জীবনীগ্রন্থ ('সিরাত') ও হাদিস গ্রন্থের বনি কুরাইজা উপাখ্যানের বর্ণনায় আলোকে এই সব 'অজুহাত' এর বিস্তারিত বিশ্লেষণ করা যাক:


১) "খন্দক যুদ্ধকালে তারা চুক্তি ভঙ্গ করে মিত্রবাহিনীকে সাহায্য করেছিল"!

আদি উৎসে বিশিষ্ট মুসলিম স্কলারদেরই বর্ণিত খন্দক যুদ্ধ উপাখ্যানের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণে [পর্ব: ৭৭-৮৬] আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি, তাদের এই দাবির সপক্ষে সুনির্দিষ্ট একটি প্রমাণও কোথাও নেই। Not a single One!

২) "বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা 'মুহাম্মদের প্রস্তাবে' রাজি হয়েছিল!"

আদি উৎসের মুসলিম ঐতিহাসিকদেরই লিখিত মুহাম্মদের জীবনীগ্রন্থের বনি কুরাইজা উপাখ্যানের বর্ণনায় [4] যে বিষয়গুলো অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো, আত্মসমর্পণের পূর্বে বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা “মুহাম্মদের কাছে কোনোরূপ শর্ত আরোপ করেছিলেন” এমন আভাস কোথাও নেই। বনি কুরাইজা গোত্রের লোকদের এমন ক্ষমতা ছিল না, তাঁরা ছিলেন অসহায় ও ভীত-সন্ত্রস্ত! তাঁরা মুহাম্মদের কাছে বিনা শর্তে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়েছিলেন।

শুধু তাইই নয়, আত্মসমর্পণের পরে বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা "তাঁদের প্রাণভিক্ষার জন্য মুহাম্মদের কাছে কখনো কোনো আবেদন বা অনুরোধ করেছিলেন”, এমন আভাসও কোথাও নেই!

বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা নয়, আবদুল্লাহ বিন উবাই যেমন বনি-কেইনুকা ও বনি নাদির গোত্রের প্রাণভিক্ষার জন্য মুহাম্মদের কাছে আবেদন করেছিলেন, তেমনিভাবে আল-আউস গোত্রের লোকেরা বনি-কুরাইজা গোত্রের লোকদের প্রাণভিক্ষার জন্য মুহাম্মদের কাছে আবেদন করেছিলেন। (পর্ব: ৮৯)

আল-আউস গোত্রের উক্ত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মুহাম্মদ আল-আউস গোত্রের লোকদেরকে (বনি কুরাইজার লোকদের নয়) যে-প্রস্তাবটি দিয়েছিলেন, তা হলো, বনি কুরাইজার বিষয়ে যদি আল-আউস গোত্রের কোনো লোক রায় প্রদান করে, তবে আল-আউস গোত্রের লোকেরা তাতে সন্তুষ্ট হবে কি না। মুহাম্মদের সেই প্রস্তাবে রাজি হয়েছিলেন আল-আউস গোত্রের লোকেরা, বনি কুরাইজার লোকেরা নয়। এই ঘটনার সময় বনি কুরাইজার কোনো লোক ঘটনাস্থলের আশেপাশে কোথাও ছিলেন, এমন তথ্যও কোথাও উল্লেখিত হয়নি

৩) "তারা সা'দ বিন মুয়াদ কে মধ্যস্থতাকারী হিসাবে মেনে নিতে রাজি হয়েছিল!"

আল-আউস গোত্রের লোকদের নিকট প্রস্তাবিত মুহাম্মদের এই প্রস্তাবটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো, “এই প্রস্তাবে মুহাম্মদ সুনির্দিষ্ট (Specific) কোনো লোকের নাম উল্লেখ করেননি।" অর্থাৎ, আল-আউস গোত্রের প্রতি মুহাম্মদের প্রস্তাবটি এমনটি ছিল না যে, "যদি তোমাদের গোত্র-নেতা 'আবদুল্লাহ বিন মুয়াদ' তোমাদের পক্ষ হতে বনি কুরাইজার বিষয়ে রায় প্রদান করে, তবে তোমরা তাতে সন্তুষ্ট হবে কি না।"

আল-আউস গোত্রের লোকেরা যখন উৎফুল্ল-চিত্তে মুহাম্মদের এই “অনির্দিষ্ট (non-specific/vague)” প্রস্তাবে সানন্দে রাজি হন, সম্ভবত, এই আশায় যে, যদি তাদের গোত্রের মধ্য থেকে কাউকে এই দায়িত্ব দেয়া হয় “তবে বনি কুরাইজার লোকদের প্রাণ রক্ষা হবে", তখন মুহাম্মদ 'সা'দ বিন মুয়াদের' নাম ঘোষণা করেন। মুহাম্মদ নিশ্চিত জানতেন যে, তাঁর এই একান্ত বিশ্বস্ত অনুসারী "তাঁর অভিপ্রায়ই" অনুগতভাবে পালন করবেন। “মুহাম্মদের পলিটিক্স (চাতুরী)' ছিল এইখানেই।

সুতরাং, আল-আউস গোত্রের লোকেরা তাদের গোত্র-নেতা 'সা'দ বিন মুয়াদের' রায় মেনে নিতে রাজি ছিলেন"- এই দাবির মধ্যে যে-সত্যতা আছে, তা হলো "এক চতুরতার ইতিহাস" উদ্দেশ্য সাধনের প্রয়োজনে মুহাম্মদ যে কীরূপ চতুরতার আশ্রয় অবলম্বন করতেন, এই ঘটনাটি হলো তারই এক উৎকৃষ্ট উদাহরণ!

আদি উৎসের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যে-বিষয়টি অত্যন্ত স্পষ্ট, তা হলো, মুহাম্মদের প্রস্তাবে রাজি হওয়ার পর যখন মুহাম্মদ আল-আউস গোত্রের লোকদের উদ্দেশে 'সা'দ বিন মুয়াদের' নাম ঘোষণা করেন, তখন তারা উদ্বিগ্নচিত্তে বনি কুরাইজা গোত্রের লোকদের বাঁচানোর প্রাণপণ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখেন।

তারা সা'দকে বিভিন্নভাবে এই মর্মে বারংবার অনুরোধ করতেই থাকেন যে, তিনি যেন বনি কুরাইজার লোকদের প্রতি সদয় হন। তাদের এই পীড়াপীড়ির পরিপ্রেক্ষিতে সা'দ ঘোষণা দেন যে, কোনো মানুষের অনুযোগে যত্নবান হওয়ার সময় তার নেই। এখন তার সময় এসেছে, "আল্লাহর নিমিত্তে কিছু করার"

অর্থাৎ মুহাম্মদের অভিপ্রায় চরিতার্থ করাকেই সা'দ বিন মুয়াদ তার একান্ত কর্তব্য বলে মনে-প্রাণে বিশ্বাস করতেন। এই বিষয়টি তীক্ষ্ণবুদ্ধির মুহাম্মদ সুনিশ্চিত জানতেন।

মুহাম্মদ ও সা'দের অভিপ্রায় যে অভিন্ন, তা আল-আউস গোত্রের লোকেরা সুনিশ্চিত জানতেন। তাই সা'দকে সদয় হওয়ার জন্য তাদের এত পীড়াপীড়ি!

আর এর প্রমাণ হলো, মুহাম্মদের 'সা'দ বিন মুয়াদের' নাম ঘোষণার পর আল আউস গোত্রের কিছু লোক সেই স্থান পরিত্যাগ করে বানু আবদুল-আশহাল গোত্রের কোয়ার্টারে ফিরে আসে ও "সা'দ সেখানে পৌঁছার আগেই" তারা তাদের উদ্দেশে বনি কুরাইজার গণহত্যার ঘোষণা দেয়! মুহাম্মদের নিযুক্ত এই মধ্যস্থতাকারীর রায় প্রদানের আগেই তারা কীভাবে বনি কুরাইজার এই ভবিষ্যৎ পরিণতির খবর জানতে পেরেছেন, তাও এই ঘটনার বর্ণনায় অত্যন্ত স্পষ্ট।

অন্যদিকে, সা'দ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর তাকে দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন করার আদেশ জারি করে মুহাম্মদ তাঁর এই যুদ্ধাহত ও মৃত্যুপথযাত্রী অনুসারীর "নবীর প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন ও নবীর অভিপ্রায় পূর্ণ করার আকাঙ্ক্ষা উজ্জীবিত করেন" ভক্তের প্রতি গুরুর এই অতিরিক্ত সম্মান প্রদর্শন ভক্তের গুরুভক্তির তীব্রতাকে বহু গুণে বৃদ্ধি করতে বাধ্য।

সা'দ যখন তার রায় ঘোষণা করেন, কোনোরূপ তথাকথিত ঐশী বাণীর আগমনের অপেক্ষা ও ঘটনা ছাড়া উৎফুল্ল মুহাম্মদ "আল্লাহর নামে" সাদের এই রায়ের সাথে তাঁর একাত্মতার ঘোষণা দেন।

প্রশ্ন হলো, 'সিরাতে' বনি কুরাইজার এই উপাখ্যানের প্রাণবন্ত ও বিস্তারিত (Vivid and detail) বর্ণনা থাকা সত্ত্বেকী কারণে ইসলাম-অনুসারী পণ্ডিত ও অপণ্ডিতরা শতাব্দীর পর শতাব্দী যাব দাবি করে আসছেন যে, বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা সা'দের রায় মেনে নিতে রাজি হয়েছিলেন? তাঁদের এই দাবির উৎস কী?”

তাঁদের এই দাবির উৎস হলো, 'সিরাত' রচনার একশত বছরেরও অধিক পরে (পর্ব: ৪৪) ইমাম বুখারীর (৮১০-৮৭০ সাল) রচিত ছয়-সাত লাইনের এক 'হাদিস'; আর সেই হাদিসটি হলো:

সহি বুখারী: ভলুম ৪, বই নম্বর ৫২, হাদিস নম্বর ২৮০

‘আবু সাইদ আল-খুদরি হইতে বর্ণিত: যখন বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা সা'দের রায় মেনে নিতে রাজি হয়, আল্লাহর নবী সা'দকে নিয়ে আসার জন্য লোক পাঠান, সে তখন তাঁর নিকটেই ছিল। সা'দ এক খচ্চরের পিঠে চড়ে সেখানে আসে ও যখন সে নিকটবর্তী হয়, আল্লাহর নবী (আনসারদের) বলেন, "তোমাদের নেতার সম্মানে উঠে দাঁড়াও।" অতঃপর সা'দ সেখানে আসে ও আল্লাহর নবীর পাশে এসে বসে। আল্লাহর নবী তাকে বলেন, "এই লোকেরা তোমার রায় মেনে নিতে রাজি আছে

সা'দ বলে, "আমার রায় এই যে, তাদের যোদ্ধাদের হত্যা করো ও তাদের মহিলা ও শিশুদের বন্দী করো।" তখন আল্লাহর নবীর মন্তব্য ছিল, "হে সা'দ! তোমার রায়টি হলো আল্লাহর রায় (অথবা তার অনুরূপ)।" [5]

(অনুবাদ, টাইটেল ও [**] যোগ - লেখক।)

কিন্তু, ঘটনার বিস্তারিত বিবরণে আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি, দীর্ঘ ২৫ দিন যাব চারদিক থেকে অবরুদ্ধ থাকার পর বনি কুরাইজার লোকেরা অত্যন্ত ভীত-সন্ত্রস্ত (কুরান: ৩৩:২৬) ও দুঃসহ অবস্থায় বিনা শর্তে মুহাম্মদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হন। বনি কুরাইজার লোকেরা মুহাম্মদের কাছে 'কোনোরূপ শর্ত আরোপ অথবা প্রাণভিক্ষার আবেদন জানিয়েছিলেন, এমন আভাস কোথাও নাই।

“'সিরাত' রচনার এক শতাব্দীরও অধিক পরে কোনোরূপ প্রামাণিক তথ্য ও ব্যাখ্যা (Evidence and explanation) ব্যতিরেকে এমন একটি দাবি যে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও বনি কুরাইজার গণহত্যার বৈধতা প্রদানের অপচেষ্টা, তা প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। যেখানে বনি কুরাইজা গোত্রের লোকেরা মুহাম্মদের কাছে 'কোনোরূপ শর্ত আরোপ অথবা প্রাণভিক্ষার কোনো আবেদনই করেননি’, সেখানে তারা ‘সা'দের রায় মেনে নিতে রাজি হয়' এমন দাবি একেবারেই অবান্তর!”

৪) "সা'দের এই রায় ছিল ইহুদিদের পবিত্র ধর্ম-গ্রন্থ 'তৌরাত' এর নিয়ম অনুযায়ী!"

আদি উৎসের বর্ণনায় এই দাবির আদৌ কোনো ভিত্তি নেই, সা'দ বিন মুয়াদ একজন "তৌরাত বিশেষজ্ঞ" ছিলেন, এমন ইতিহাস আদি উৎসের কোথাও উল্লেখিত হয়নি

সংক্ষেপে,

বনি কুরাইজার লোকেরা অত্যন্ত ভীত-সন্ত্রস্ত ও দুঃসহ অবস্থায় "বিনা শর্তে" মুহাম্মদের কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হন। বনি কুরাইজা গোত্রের নিঃশর্ত আত্মসমর্পণের পর থেকে তাঁদের বিরুদ্ধে রায় প্রদান করা পর্যন্ত "তাঁদের ভবিষ্যৎ পরিণতির ব্যাপারে" যে সকল ঘটনাপ্রবাহ সংঘটিত হয়েছিল, তা ছিল মুহাম্মদ ও আল-আউস গোত্রের লোকদের মধ্যে।  বনি কুরাইজার কোনো লোক এ স ঘটনা প্রবাহের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না।

তাঁরা তাঁদের পরিণতির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। শুধুই অপেক্ষা!

[ইসলামী ইতিহাসের ঊষালগ্ন থেকে আজ অবধি প্রায় প্রতিটি ইসলাম বিশ্বাসী প্রকৃত ইতিহাস জেনে বা না জেনে ইতিহাসের এ সকল অমানবিক অধ্যায়গুলো যাবতীয় চতুরতার মাধ্যমে বৈধতা দিয়ে এসেছেন। বিষয়গুলো অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় আদি উৎসের বর্ণনার বাংলা অনুবাদের সাথে মূল ইংরেজি অনুবাদের অংশটিও সংযুক্ত করছি।]

The narratives of Muhammad Ibne Ishaq (704-768 AD): [1] [2]

“The apostle had put Sa'd in a tent belonging to a woman of Aslam called Rufayda inside his mosque. She used to nurse the wounded and see to those Muslims who needed care. The apostle had told his people when Sa'd had been wounded by an arrow at the battle of the Trench to put him in Rufayda's tent until he could visit him later.

When the apostle appointed him umpire in the matter of B. Qurayza, his people came to him and mounted him on a donkey on which they had put a leather cushion, he being a corpulent man. As they brought him to the apostle they said, 'Deal kindly with your friends, for the apostle has made you umpire for that very purpose.'

When they persisted he said, 'The time has come for Sa'd in the cause of God, not to care for any man's censure.'

Some of his people who were there went back to the quarter of B. 'Abdu'l-Ashhal and announced to them the death of B. Qurayza before Sa'd got to them, because of what they had heard him say.

When Sa'd reached the apostle and the Muslims the apostle told them to get up to greet their leader. The muhajirs of Quraysh thought that the apostle meant the Ansar, while the latter thought that he meant everyone, so they got up and said 'O Abu' Amr, the apostle has entrusted to you the affair of your allies that you may give judgment concerning them.' [3]

Sa'd asked, 'Do you covenant by Allah that you accept the judgement I pronounce on them?' They said yes, and he said, 'And is it incumbent on the one who is here?' (Looking) in the direction of the apostle not mentioning him out of respect, and the apostle answered yes.

Sa'd said, 'Then I give judgement that the men should be killed, the property divided, and the women and children taken as captives.'

'Asim b. 'Umar b. Qatada told me from 'Abdu'l-Rahman b. 'Amr b. Sa'd b. Mu'adh from 'Alqama b. Waqqas al-Laythi that the apostle said to Sa'd, 'You have given the judgement of Allah above the seven heavens'.”

The Narratives of Imam Bukhari (810-870 AD):

‘Narated By Abu Sa'id Al-Khudri: When the tribe of Bani Quraiza was ready to accept Sad's judgment, Allah's Apostle sent for Sad who was near to him. Sad came, riding a donkey and when he came near, Allah's Apostle said (to the Ansar), "Stand up for your leader." Then Sad came and sat beside Allah's Apostle who said to him. "These people are ready to accept your judgment." Sad said, "I give the judgment that their warriors should be killed and their children and women should be taken as prisoners." The Prophet then remarked, "O Sad! You have judged amongst them with (or similar to) the judgment of the King Allah."’ [5]
(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:

[1] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৪৬৩-৪৬৪

[2] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৮, ইংরেজী অনুবাদ: Michael Fishbein, University of California, Los Angeles, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, ISBN 0-7914-3150—9 (pbk), পৃষ্ঠা (Leiden) ১৪৯২-১৪৯৩ http://books.google.com/books?id=sD8_ePcl1UoC&printsec=frontcover&source=gbs_ge_summary_r&cad=0#v=onepage&q&f=false

[3] "আবু আমর" হলো সা'দ বিন মুয়াদের সম্মান-সূচক নাম, তারা তাকে এই সম্মান-সূচক নামে সম্বোধন করে। এই নামগুলোকে আরবে ‘কুনাহ (Kunah/ Kunyah)’ নামে অভিহিত করা হয়। (পর্ব- ৬৫)

[4] 'সিরাত'- আদি উৎসে বনি কুরাইজা উপাখ্যানের বর্ণনা:
ক) Ibid “সিরাত রসুল আল্লাহ"- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক, পৃষ্ঠা ৪৬১-৪৬৯
খ) Ibid “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী, পৃষ্ঠা-১৪৮৫-১৫০০
গ) “কিতাব আল-মাগাজি”- লেখক: আল-ওয়াকিদি (৭৪৮-৮২২), ed. Marsden Jones, লন্ডন ১৯৬৬, পৃষ্ঠা ৪৯৬-৫৩১

[5] সহি বুখারী: ভলুম ৪, বই নম্বর ৫২, হাদিস নম্বর ২৮০: http://www.hadithcollection.com/sahihbukhari/85-/3487-sahih-bukhari-volume-004-book-052-hadith-number-280.html

এই একই হাদিস বর্ণিত আছে: সহি বুখারী: ভলিউম ৫, বই ৫৯, নং ৪৪৭