৫ আগস্ট, ২০১৫

শাসকের তালিবানী হস্তক্ষেপে নিষিদ্ধ পর্নোগ্রাফি

লিখেছেন শতদল ঘোষ

প্রাইমারি স্কুলের গণ্ডি টপকানোর পর ভারতের প্রায় সমস্ত পাঠ্যবই শুরু হয় ছ'টি মৌলিক অধিকারের কথা দিয়ে, যার একটা হল: 'Liberty of Thought Expression Belief & Faith'

ছোটবেলা থেকেই আমরা শিখি যে, আমাদের অধিকার আছে নিজস্ব পছন্দের। এখন আসা যাক পর্নোগ্রাফির কথায়।

১৮+ বয়সের পরে যেটা দেখা বা না দেখা সম্পূর্ণ আমাদের পছন্দ বা অধিকার। এই অধিকার নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো আইন নেই ভারতে, কিন্তু Indian Penal Code - Article 21-এ Human Rights-এর যে-স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে, পর্নোগ্রাফি তা লঙ্ঘন করে না।

গত ৩রা আগস্ট ভারতে প্রায় ৮৬৭টি পর্ন সাইট নিষিদ্ধ করা হয়। কট্টর হিন্দুত্ববাদী ঘনিষ্ঠ শাসক নানান যুক্তি-অযুক্তি দিয়ে মানুষের মৌলিক অধিকারের উপর হস্তক্ষেপ করে। পর্নোগ্রাফি নিষিদ্ধ করার বিরুদ্ধে অনেকেই অনেক বক্তব্য রেখেছেন। আমি আইনের আলোয় একটি বক্তব্য তুলে ধরছি:

“Such interim orders cannot be passed by this court. Somebody may come to the court and say look I am above 18 and how can you stop me from watching it within the four walls of my room. It is a violation of Article 21 [right to personal liberty],” 

Chief Justice H.L.Dattu
(42nd Chief Justice of India)

কট্টরপন্থী হিন্দুদল RSS ও শাসক নেতাদের কথা অনুযায়ী - "পর্নোগ্রাফি ভারতের সংস্কৃতি বিরোধী ও নোংরা মানসিকতার পরিচয়।" এই সমস্ত হিন্দুদের কাছে আমরা জানতে চাই:

- 'কামসূত্র'-এর সাথে আজকের পর্ন পত্রিকাগুলোর বিশেষ তফাত আছে কি?


- শিবলিঙ্গ কিসের প্রতীক ও Dildo-এর সাথে তার কী পার্থক্য?


- কৃষ্ণলীলার সাথে পর্নোগ্রাফির ভাষায় GangBang-এর কী তফাত?

- Khajuraho Temple (খাজুরাহো মন্দির) এর মূর্তিগুলির সাথে আজকের Porn Posters গুলির কি তফাত ???


তফাত একটাই: আজকের যুগেরগুলো সব মাল্টিমিডিয়ার আকার নিয়েছে। তাই বিশ্বের বৃহত্তর গণতন্ত্রের দেশে এই তালিবানী প্রথাকে ধিক্কার জানাই।

[পুনশ্চ: পৃথিবীর সকল স্বৈরাচারী একনায়কতন্ত্রী শাসক গণতন্ত্রের কাছে মাথা নত করেছে। ৮৫৭ এর মধ্যে ৭০০ Pornography Site থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে ৪ঠা আগস্ট।]