২৯ জুলাই, ২০১৫

ফাতেমা দেবীর ফতোয়া - ১৭

লিখেছেন ফাতেমা দেবী (সঃ)

৮১.
নবীজি ও অন্যান্য মমিনেরা সবাই বেহেশতে হুরী পাবে ছহবত করার জন্য। নবীজির বিবিগণ ও অন্যান্য মমিনগণের বিবিগণ সেখানে ছহবত করবে কাহার সহিত? তাহাদের কামনা নিবৃত্ত করবে কী উপায়ে? উহারা সবাই কি বেহেশতে স্বমেহন করবে অনন্তকাল ধরে?

৮২.
মরুভূমির কালছারে ছয়লাপ এখন বাংলার মাটি। যেমন, টুপি পরিধান, গার্বেজের বস্তা পরিধান, মাইকে দৈনিক পাঁচবার মরুভূমির ভাষায় শব্দদূষণকরণ, য়াল্যাকে পাছা প্রদর্শন, কথায় কথায় মরুর ভাষায় (ছুভানাল্ল্যাহ, এলহামদুলিল্যাহ প্রভৃতি) মানুষকে গালিগালাজ ইত্যাদিতে ভারাক্রান্ত বাংলার পরিবেশ। 

এখন বাকি আছে শুধু মরুভূমির একমাত্র এগ্রিকালছারে বাংলার মাটিকে ভরিয়ে দেওয়া। মরুর একমাত্র এগ্রিকালছার হতেছে খেজুর চাষ। বাংলাদেশে তাই অন্যান্য চাষাবাদ বাদ দিয়ে শুধু খেজুর চাষ করা ফরজ। কারণ বাংলাদেশ একটি খৎনাকৃত দেশ এবং খেজুর বৃক্ষই একমাত্র মুছলমান বৃক্ষ। তাই অন্যান্য বেদ্বীন কাফের এগ্রিকালছার ত্যাগ করতে হবে, কিংবা তাদেরকে কতল করতে হবে চাপাতি দিয়ে, অথবা তাদেরকে চাপাতি দিয়ে খৎনা করিয়ে মুছলমান গাছপালা-লতাপাতায় পরিণত করতে হবে।

৮৩.
য়াল্যা, ঈশ্বর, ভগবান ইত্যাকার ভূতপূর্ব লেখকেরা সবাই লেখালেখি ছেড়ে দিলো কেন?

৮৪.
যারা আমার আয়াতকে অস্বীকার করে তাদেরকে আমি অগুনে পোড়াবই; যখন ওদের চামড়া পুড়ে পুড়ে ছাই হবে তার স্থানে নতুন চামড়ার সৃষ্টি করবো যাতে ওরা শাস্তি আস্বাদন করে; আল্লা অতি পরাক্রান্ত বিজ্ঞানময়। 
(সুরা ৪:৫৬)

পরাক্রান্ত বিজ্ঞানময় দয়াময় য়াল্যা তার আয়াত অস্বীকারকারীদের চামড়া পুড়ে ছাই করবেন ও ছাই হওয়া চামড়ার জায়গায় নতুন চামড়া তৈরি করবেন। এই আয়াতটি পড়েই ত কাফের চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা প্লাস্টিক সার্জারি করতে শিখেছে। কিন্তু কাফের মুশরিকরা য়াল্যার এই অবদানকে যথারীতি অস্বীকার করে; যেমন তারা অস্বীকার করে য়াল্যার অন্যান্য নেয়ামত ও সকল আয়াতকে এমনকি য়াল্যাকেও।

৮৫.
বেহেশতে দুধের নদী আছে। কিন্তু কোনো দই নাই কেন? আমার খুব দইয়ের শখ। নদী থেকে দুধ নিয়ে দই পাতা যাবে তো?