১১ এপ্রিল, ২০১৫

ইসলামী ইতরামি

লিখেছেন নিলয় নীল

১.
হিজাব না পরার জন্য ছাত্রীকে অমানবিকভাবে পিটিয়েছে মিশরের এক ধর্মশিক্ষক। মিশরের কায়রোতে ঘটা সেই ঘটনায় অবশেষে সেই ধর্মশিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। না, শিক্ষক তার ছাত্রীকে শুধু নৃশংসভাবে পেটায়ইনি, বরং তার মাথার চুলও কেটে দিয়েছে। 

২.
সুখবর! সুখবর! সুখবর! অবশেষে ২ চাক্কার স্বাধীনতা পেলো চৌদি নারীরা। এখন থেকে চৌদি নারীরা সাইকেল চালাতে পারবে, তবে সেই সাইকেল চালানোর জন্য সরকার আলাদা ব্যবস্থা দিয়ে দিয়েছে। নারীদের জন্য আলাদা একটা পার্ক দিয়ে দিয়েছে, যেখানে পুরুষরা যেতে পারবে না এবং নারীরা নির্বিঘ্নে সাইকেল চালাতে পারবে। তবে সাইকেল চালানোর সময় অবশ্যই সবকিছু ঢেকে ইসলামী পোশাক পরিধান করতে হবে। আর সাইকেল চালানোর জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে অবশ্যই সেই নারীর আইনসঙ্গত পুরুষ গার্জিয়ান লাগবে, যারা পার্কের বাইরে অপেক্ষা করবে নারী যতসময় ভেতরে সাইকেল চালাবে। যদিও ইতিমধ্যে নারীদের এতোখানি স্বাধীনতা দিয়ে পা ওঠানামা করে সাইকেল চালানোর অধিকার দেওয়ার সমালোচনা করেছেন আবু আব্দুল আল রাহমান ইবনে আকিল আল জাহিরি (Abu Abd al-Rahman Ibn Aqil al-Zahiri) সহ অনেক ধর্মীয় নেতাই। 

৩.
ভুলে যাও গণতন্ত্র, মালয়েশিয়া শরিয়া মোতাবেক চলবে। পার্লামেন্ট বা স্টেট অ্যাসেম্বিলির অনুমোদন না পেলেও ইসলামিক আইন সমস্ত দেশে বাস্তবায়ন করতে হবে বলে দাবি করছেন মালয়েশিয়ার ইসলামিস্টরা। এদিকে মালয়েশিয়ার হিজবুত তাহরির মুখপাত্র আব্দুল হাকিম বলেছেন, শুধু হুদুদ আইন হলেই চলবে না, মালয়েশিয়ার টপ টু বটম ইসলাম দিয়ে মুড়িয়ে দিতে হবে। আবার অন্যদিকে শরিয়া আইন নিয়ে কটূক্তি করার জন্য ইতিমধ্যেই মালয়েশিয়ার এক সাংবাদিককে ধর্ষণ করে হত্যা করার হুমকি দিয়েছে ইসলামিস্টরা। 

৪.
আনুশাহ গেছিলো সুন্দরবনের মংলার একটি গ্রামে কাজ করতে। তার দলের সবগুলো মেয়েই সেখানে যেয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিতে পড়ে। তাদের পোশাক অশালীন বলে তাদেরকে বোরকা পরার নির্দেশ দেওয়া হয়। হয় বোরকা পরবে, না হলে গ্রাম ছাড়বে - এমন অবস্থায় তারা গ্রাম ছেড়ে চলে আসতে বাধ্য হয়। 

৫.
আপনার যদি প্রচণ্ড ক্ষুধা লাগে এবং আপনি যদি খাবার না পান, তাহলে একজন মুসলমান হিসেবে আপনি আপনার যে কোনো এক স্ত্রীকে খেয়ে ফেলতে পারেন। শরিয়া মোতাবেক, আপনি আপনার স্ত্রীর শরীরের যে কোনো একটি অংশ কেটে রান্না করে খেয়ে ফেলে ক্ষুধা নিবৃত করতে পারেন। এই ফতোয়া দিয়েছেন সৌদি আরবের মুফতি শেখ আব্দুল আজিজ আল শেখ।

৬.
এতদিন ইহুদি নাসারাদের তৈরি টয়লেট পেপার হারাম থাকলেও অবশেষে সেটা হালাল হলো। তুর্কীর ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে ফতোয়া ঘোষণা করে জানালো যে, টয়লেট পেপার ব্যবহার শুধুমাত্র তখনই হালাল হবে, যখন আপনার কাছে পানি থাকবে না। অর্থাৎ পানি না পেলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য টয়লেট পেপার ব্যবহার করতে শরীয়ত মোতাবেক কোন বাধা নেই। http://rt.com/news/247857-turkey-muslims-toilet-paper/

৭.
এদিকে টয়লেট পেপারকে হালাল ঘোষণা করায় তুর্কীর ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা ক্ষিপ্ত দেশের ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের উপরে। অন্যদিকে ইতিমধ্যেই হালাল টয়লেট পেপার নামে এক ধরনের টয়লেট পেপার বাজারজাতকরণের উদ্যোগ নিয়েছে তুর্কীর একটি বিপণন সংস্থা। তবে হালাল টয়লেট পেপার ও হারাম টয়লেট পেপারের মধ্যে তফাত এখনো স্পষ্ট নয়। হালাল টয়লেট পেপার সম্পর্কে ব্যঙ্গ করে তুর্কী নাস্তিকদের ওয়েবসাইট Ateizm Dernegi থেকে পোষ্ট করা একটি বক্তব্য ছিল এরকম: সব থেকে হালাল সেই টয়লেট পেপার, যা কোরআনের আয়াত সমৃদ্ধ হবে এবং এটি ব্যবহার করাই সবচেয়ে সওয়াবের কাজ হবে। 

৮.
কাগ্রি মারকেইজির ‘এথিজম দেরনেগি’ ওয়েবসাইটটি গত মাসেই তুর্কী থেকে অ্যাকসেস বন্ধ করে দেয়া হয়। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অপরাধে তুর্কী পেনাল কোর্ট ২১৬ ধারায় ওয়েবসাইটটিকে নিষিদ্ধ করে।

৯.
নাহ্, শুধু মুসলমান নারীদের হিজাব পরলেই হবে না, অমুসলিম মা-বোনকেও হিজাব পরতে হবে। কারণ আমাদের ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাইয়েরা এইসব অমুসলিম নারীদের হিজাব ছাড়া দেখলে ঈমানুনুভূতিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। অমুসলিমদের ইসলামবিদ্বেষ সম্পর্কে বুঝতে হবে, এই ইসলামবিদ্বেষের বিরুদ্ধে অমুসলিমদেরও সংগ্রাম করতে হবে। - এই ফতোয়া দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থিত মুসলমানদের এক লোকাল কাউন্সিল। 

* বোনাস: একটি গরুপূজারি বিনোদন
যারা যারা গরুকে রাষ্ট্রমাতা রূপে দেখতে চান, তারা ০৭৫৩৩০০৭৫১১ এই নম্বরে একটা মিসকল দিলেই হবে। বাহিনী সেটাকেই নিজেদের মতের সমর্থন হিসেবে গণ্য করবে।