২৬ মার্চ, ২০১৫

আবু সুফিয়ানকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুপ্তঘাতক প্রেরণ!: কুরানে বিগ্যান (পর্ব-৭৩): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – সাতচল্লিশ

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ > পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২

স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর মদিনায় স্বেচ্ছানির্বাসনের (হিজরত) পর তাঁর ও তাঁর অনুসারীরা মক্কার কুরাইশ, মদিনার ইহুদি সম্প্রদায় ও মদিনার চতুষ্পার্শ্বের অন্যান্য অমুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর যে আগ্রাসী, নৃশংস ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সূত্রপাত করেছিলেন, তারই ধারাবাহিকতায় আদাল ও আল-কারা গোত্রের কিছু লোক হুদায়েল গোত্রের কিছু লোকের সহায়তায় মুহাম্মদের ছয়জন অনুসারীকে কীভাবে আক্রমণ করে তাদের চারজনকে খুন এবং খুবায়েব বিন আদি ও যায়েদ বিন আল-দাথিননা নামের দুইজনকে বন্দী করে মক্কায় ধরে নিয়ে এসেছিলেন এবং হুজায়ের বিন আবু ইহাব আল-তামিমি ও সাফওয়ান বিন উমাইয়া নামক দুই কুরাইশ তাদেরকে কিনে নিয়ে কী কারণে হত্যা করেছিলেন, তার বিস্তারিত আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে।

খুবায়েব বিন আদি ও যায়েদ বিন আল-দাথিননার হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হওয়ার পর, অনতিবিলম্বে মুহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ কুরাইশ নেতা আবু সুফিয়ান বিন হারবকে হত্যার আদেশ সহকারে ‘আমর বিন উমাইয়া (Amr bin Umayya)’ নামক তাঁর এক আদি মক্কাবাসী অনুসারীকে (মুহাজির) মক্কায় প্রেরণ করেন। আমরকে সাহায্য করার জন্য মুহাম্মদ তাঁর এক আদি মদিনাবাসী অনুসারীকে ও (আনসার) তার সঙ্গে পাঠান।

কিন্তু এই দুই ঘাতক আবু সুফিয়ানকে হত্যা করতে ব্যর্থ হয়। আবু সুফিয়ানকে হত্যার আগেই মক্কাবাসীরা ‘আমর’-কে চিনে ফেলে এবং তারা তাদেরকে ধাওয়া করে। ঘাতকরা পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়।

পালিয়ে আসার সময় পথিমধ্যে ঘাতক আমর বিন উমাইয়া তিনজন মানুষকে অমানুষিক নৃশংসতায় খুন করে, যাদের একজন ছিলেন এক-চোখ-অন্ধ প্রতিবন্ধী।

ঐ অন্ধ প্রতিবন্ধীর সতেজ চোখটির ভেতরে আমর তার ধনুকের আগা ঢুকিয়ে দিয়ে সজোরে চাপ দিতে থাকে, যতক্ষণ পর্যন্ত না তা লোকটির চোখের ভিতর দিয়ে ঢুকে তাঁর ঘাড়ের পিছন দিক দিয়ে বাহিরে বের হয়ে আসে!

কী অপরাধে ঐ অন্ধ প্রতিবন্ধী মানুষটিকে এমন অমানুষিক নৃশংসতায় খুন করা হয়েছিল, তার প্রাণবন্ত বিবরণ আদি ও বিশিষ্ট মুসলিম ঐতিহাসিকরা লিখে রেখেছেন!

মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ সাল) ও আল-তাবারীর বর্ণনা: [1] [2] [3] [4]

[আল-তাবারী <] ইবনে হুমায়েদ হইতে < সালামা বিন আল ফাদল হইতে < মুহাম্মদ ইবনে ইশাক হইতে < জাফর বিন আল-ফাদল বিন বিন আল-হাসান বিন আমর বিন উমাইয়া হইতে বর্ণিত হয়েছে যে শেষ উক্ত ব্যক্তিটি বলেছেন:

'খুবায়েব ও তার সঙ্গীদের খুন হওয়ার পর আল্লাহর নবী আমার [আমর বিন উমাইয়া] সাথে একজন আনসারকে সঙ্গে দিয়ে এই আদেশ সহকারে পাঠান যে, আমরা যেন আবু সুফিয়ানকে খুন করি; তাই আমরা রওনা হই। 

আমার সঙ্গীর কোনো উট ছিল না এবং তার পায়ে ছিল জখম, তাই আমি তাকে আমার উটের ওপর সওয়ার করে ইয়াজাজ উপত্যকা পর্যন্ত নিয়ে আসি ও তার এক কোণে পশুটিকে দড়ি দিয়ে বেঁধে রেখে আমরা বিশ্রাম নিই। 

আমি আমার সঙ্গীর কাছে এই প্রস্তাব দিই যে, আমরা আবু সুফিয়ানের বড়িতে যাব ও যখন আমি তাকে হত্যার চেষ্টা করবো, তখন সে চারদিকে নজর রাখবে। যদি কোনো গোলমাল হয় কিংবা সে যদি কোনো বিপদের আশংকা করে, তবে সে যেন উটটির কাছে ফিরে আসে ও মদিনায় প্রত্যাবর্তন করে আল্লাহর নবীকে খবরটি জানায়; সে আমাকে ফেলে রেখেই যেতে পারে এ কারণে যে, এই জায়গাটি আমার খুব পরিচিত ও আমি দ্রুত হাঁটতে পারি।

আমার কাছে ছিল ঈগলের পালকের মত এক ছোট ছুরি, যখন আমরা মক্কায় প্রবেশ করি, তখন আমি তা এমনভাবে প্রস্তুত রাখি, যদি কেউ আমাকে ধরার চেষ্টা করে, তবে আমি তা দিয়ে তাকে খুন করতে পারি। 

আমার সঙ্গীর অনুরোধ এই যে আমরা সাত বার ক্বাবা প্রদক্ষিণ করি ও কয়েক রাকাত নামাজ পড়ে কাজটি শুরু করি।

আমি তাকে বলি যে, আমি মক্কাবাসীদের সম্বন্ধে তার চেয়ে অনেক ভাল জানি: সন্ধ্যার সময় তারা তার প্রাঙ্গণে পানি ছিটায় ও তাতে বসে থাকে, ফলে চিত্রবিচিত্র ঘোড়ার চেয়েও বেশি সহজে তারা আমাকে চিনতে পারবে।

কিন্তু সে আমাকে সেই অনুরোধ করতেই থাকে যতক্ষণ না সে যেটা চেয়েছে আমরা তা-ই করি। যখন আমরা ক্বাবা থেকে বের হয়ে তাদের সেই জটলার একটির পাশ দিয়ে যাই, তখন এক লোক আমাকে চিনে ফেলে ও তার গলার সমস্ত শক্তি দিয়ে চিৎকার করে বলে,

"এই সেই 'আমর বিন উমাইয়া'!"

তারপর মক্কাবাসীরা আমাদের দিকে দৌড়ে আসে. ও বলে, "আল্লাহর কসম, ‘আমর’ কোনো ভাল কাজে আসেনি। সে অনিষ্ট ছাড়া কখনো কোনো ভাল কিছু নিয়ে আসে না;" কারণ ধর্মহীন সময়ে ‘আমর’ ছিল হিংস্র (Violent) ও অবাধ্য (Unruly) এক ব্যক্তি।

তারা আমাদের পিছু পিছু ছুটে আসে এবং আমি আমার সঙ্গীকে পালাতে বলি। কারণ আমি যে আশংকাটি করেছিলাম, ঠিক তাইই ঘটেছে, এই অবস্থায় আবু সুফিয়ানকে পাবার কোনো উপায়ই নেই।

আমরা অত্যন্ত দ্রুত গতিতে বের হয়ে আসি এবং পাহাড়ের ওপর উঠি ও এক গুহার ভেতর ঢুকে সেখানে রাত্রিযাপন করি; তাদের কাছ থেকে আমরা সফলভাবে পলায়ন করি, তারা মক্কায় ফিরে যায়।

গুহার ভেতরে ঢুকে আমি তার প্রবেশপথ আড়াল করার জন্য কিছু পাথর জড় করে রাখি ও আমার সঙ্গীকে তাদের পশ্চাদ্ধাবন বন্ধ হবার পূর্ব পর্যন্ত চুপ থাকতে বলি; কারণ তারা সেই রাতে ও তার পরের দিন সন্ধ্যা পর্যন্ত আমাদের সন্ধান করতে পারে।

যখন আমরা গুহার ভেতরে, তখন ওসমান বিন মালিক বিন ওবায়েদুল্লাহ আল-তায়েমি তার ঘোড়ার ঘাস কাটার জন্য সেখানে আসে। সে আমাদের নিকটে আসতেই থাকে, যতক্ষণ পর্যন্ত না সে গুহার প্রবেশ পথের একদম সামনে এসে হাজির হয়।

আমি আমার বন্ধুকে তার পরিচয় বলি এবং আরও বলি যে, সে আমাদেরকে মক্কাবাসীদের কাছে ধরিয়ে দিতে পারে; আমি বাহিরে বের হয়ে আসি ও ছুরিটি দিয়ে তার বুকে ছুরিকাঘাত করি।

সে এত জোরে চিৎকার করে যে, মক্কাবাসীরা তার চিৎকার শুনতে পায় ও তারা তার দিকে ছুটে আসতে থাকে।

আমি গুহার মধ্যে ফিরে যাই ও আমার বন্ধুকে বলি যে, যেখানে সে আছে, সেখানেই যেন সে অবস্থান করে।

মক্কাবাসীরা তার চিৎকার অনুসরণ করে ছুটে আসে; তারা যখন তার সন্ধান পায়, তখন সে মুমূর্ষু অবস্থায়। তারা তাকে জিজ্ঞেস করে, কে তাকে ছুরিকাঘাত করেছে; সে তাদেরকে বলে যে, আমিই ছিলাম সেই ব্যক্তি, তারপর তার মৃত্যু হয়।

তারা জানতে পারে না, আমরা কোথায় আছি, তারা বলে, "আল্লাহর কসম, আমরা জানতাম যে ‘আমর’ কোনো ভাল উদ্দেশ্য নিয়ে আসেনি।"

তারা মৃত ব্যক্তিটিকে নিয়ে ও তাকে বহন করে নিয়ে যাওয়া নিয়ে এতই ব্যতিব্যস্ত ছিল যে, তারা আমাদের কোনো খোঁজ করেনি। পরিস্থিতি শান্ত হওয়া নাগাদ আমরা কিছুদিন গুহার মধ্যেই অবস্থান করি।

তারপর আমরা আল-তানিমে গমন করি এবং খুবায়েব কে ক্রুশ বিদ্ধ (Cross) অবস্থায় দেখি। আমার বন্ধু জিজ্ঞেস করে, তাকে ক্রুশ থেকে নিচে নামানো আমাদের উচিত কি না, কারণ সে তখন ওখানেই [বধ-কাষ্ঠে] ছিল।

আমি তাকে এই বিষয়টি আমার ওপর ছেড়ে দিতে বলি এবং তাকে আমার কাছ থেকে দূরে চলে যেতে বলি, কারণ এটির চারপাশে ছিল প্রহরী মোতায়েন; যদি সে এমন কিছু দেখে, যা তাকে ভীতিগ্রস্ত করে, তবে সে যেন অবশ্যই উটটি নিয়ে চলে যায় এবং যা কিছু ঘটেছে তা আল্লাহর নবীকে গিয়ে বলে।

আমি খুবায়েবের বধ-কাষ্ঠের ওপর উঠি, তার লাশটি তা থেকে মুক্ত করি ও আমার পিঠে করে নিয়ে আসি। খুব বেশি হলে আমার চল্লিশ ধাপ যাওয়ার পর তারা আমার উপস্থিতি জানতে পায়; আমি তার লাশটি নিচে নিক্ষেপ করি ও সেটি ধড়াস্ শব্দে পতিত হয়, যা আমি ভুলতে পারি না।

তারা আমার পেছনে দৌড়ে আসে এবং আমি আল-সাফরা যাওয়ার পথ ধরি; তারা আমার পশ্চাদ্ধাবনে পরিশ্রান্ত হয়ে ফিরে যায়। আমার বন্ধু আল্লাহর নবীর কাছে ফিরে এসে তাঁকে আমাদের ঘটনা গুলো জানায়।

আমি পদব্রজে চলতে থাকি, যতক্ষণ পর্যন্ত না আমি দাজনান (মক্কার অদূরের এক পাহাড়) উপত্যকা দেখতে পাই। আমি আমার তীর ও ধনুক নিয়ে সেখানকার এক গুহার মধ্যে প্রবেশ করি।

আমার সেখানে অবস্থানরত অবস্থায় বানু আল-দিল গোত্রের এক-চোখওয়ালা এক লোক আসে, সে তার ভেড়াগুলো চড়াচ্ছিল।

যখন সে জিজ্ঞেস করে, আমি কে, আমি বলি, আমি বানু বকর গোত্রের একজন। সে বলে যে, সে-ও বানু বকর গোত্রের অন্তর্ভুক্ত, আল-দিল গোত্রের। [5]

তারপর সে আমার পাশেই শুয়ে পড়ে ও গলার শব্দ উঁচু করে গান গাইতে শুরু করে:

'হবো না মুসলমান যতদিন থাকবো বেঁচে,
দেব না মনোযোগ তাদের ধর্মে।'

আমি মনে মনে বলি, "তুই শীঘ্রই টের পাবি!"

যেইমাত্র সে ঘুমিয়ে পড়েছে ও নাক ডাকা শুরু করেছে, আমি উঠে দাঁড়াই ও তাকে এমন ভয়ঙ্করভাবে খুন করি যা অন্য কোনো মানুষকে করা হয়নি। আমি আমার ধনুকের আগাটি তার সতেজ চোখের উপর স্থাপন করি, তারপর তাতে তা  সজোরে ছেঁদা করে (Bore down) প্রবিষ্ট করাই, যতক্ষণ পর্যন্ত না তা তার ঘাড়ের পিছন দিক দিয়ে বের হয়ে আসে।

তারপর আমি শিকারের জন্তুর মত সেখান থেকে বের হয়ে আসি এবং বড় রাস্তা দিয়ে ঈগলের মত ছুটতে থাকি, গ্রামের পর গ্রাম, তারপর রাকুবায় ও তারপর আল-নাকি; হঠাৎ সেখানে দুইজন মক্কাবাসী এসে হাজির হয়, যাদেরকে কুরাইশরা আল্লাহর নবীর ওপর গুপ্তচরবৃত্তি করতে পাঠিয়েছিল।

আমি তাদের চিনতে পারি ও তাদেরকে আত্মসমর্পণ করার আহ্বান করি; যখন তারা তা প্রত্যাখ্যান করে আমি তাদের একজনকে তীর নিক্ষেপে হত্যা করি, আর অন্যজন করে আত্মসমর্পণ। আমি তাকে বেঁধে ফেলি ও আল্লাহর নবীর কাছে হাজির করি।

[আল-তাবারী <] ইবনে হুমায়েদ হইতে < সালামাহ হইতে < ইবনে ইশাক হইতে <সুলেয়মান বিন ওয়ারদান হইতে <তার পিতা হইতে < আমর বিন উমাইয়া হইতে বর্ণিত:

'মদিনায় পৌঁছার পর যখন আমি [আমর বিন উমাইয়া] কিছু শায়েখ (shaykhs) আনসারদের পাশ অতিক্রম করি, তারা আমাকে দেখে আশ্চর্য হয়; কিছু নবীন লোক আমার নামটি শুনে ফেলে ও তারা দৌড়ে গিয়ে আল্লাহর নবীর কাছে খবর পৌঁছায়।

আমি আমার ধনুকের দড়ি (bow string) দিয়ে বন্দীর দুই হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি বেঁধে ফেলেছিলাম; আল্লাহর নবী তাকে দেখে এমনভাবে হেসে ওঠেন যে, তাঁর পেছনের দাঁতগুলো দৃষ্টিগোচর হয়।

তিনি আমার খবর জানতে চান এবং যখন আমি যা যা ঘটেছে তা তাঁকে বলি, তিনি আমাকে আশীর্বাদ করেন।’

ইসলামী ইতিহাসের ঊষালগ্ন থেকে আজ অবধি প্রায় প্রতিটি ইসলাম বিশ্বাসী প্রকৃত ইতিহাস জেনে বা না জেনে ইতিহাসের এ সকল অমানবিক অধ্যায়গুলো যাবতীয় চতুরতার মাধ্যমে বৈধতা দিয়ে এসেছেন। বিষয়গুলো অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় বাংলা অনুবাদের সাথে মূল ইংরেজি অনুবাদের অংশটিও সংযুক্ত করছি। - অনুবাদ, টাইটেল ও [**] যোগ - লেখক।]

The narrative of Muhammad Ibne Ishaq (704-768 AD) and Al-Tabari:

Ibn Hamayd told us from < Salama b. al-Fadl from < Muhammad b. Ishaq from < Jafar b. al-Fadl b. al-Hasan b. Amr b. Umayya that the last-named said:

‘After the killing of Khubayb and his companions the apostle sent an Ansari with me telling us to go and kill Abu Sufyan, so we set out.

My companion had no camel and his leg was injured, so I carried him on my beast as far as the valley of Ya'jaj where we tethered our beast in the corner of a pass and rested there.

I suggested to my companion that we should go to Abu Sufyan's house and I would try to kill him while he kept watch. If there was a commotion or he feared danger he should take to his camel and go to Medina and tell the prophet the news; he could leave me because I knew the country well and was fleet-footed.

When we entered Mecca I had a small dagger like an eagle's feather which I held in readiness: if anyone laid hold of me I could kill him with it.

My companion asked that we might begin by going round the Ka'ba seven times and pray a couple of rak'as.

I told him that I knew more about the Meccans than he: in the evening their courts are sprinkled with water and they sit there, and I am more easily recognizable than a piebald horse.
                                                              
However, he kept on at me until we did as he wanted, and as we came out of the Ka'ba we passed by one of their groups and a man recognized me and called out at the top of his voice,

`This is `Amr b. Umayya!'

Thereupon the Meccans rushed at us, saying, `By God,`Amr has come for no good. He has never brought anything but evil,' for Amr was a violent unruly fellow in heathen days.

They got up to pursue us and I told my companion to escape, for the very thing I feared had happened, and as to Abu Sufyan there was no means of getting at him.

So we made off with all speed and climbed the mountain and went into a cave where we spent the night, having successfully eluded them so that they returned to Mecca.

When we entered the cave I put some rocks at the entrance as a screen and told my companion to keep quiet until the pursuit should die down, for they would search for us that night and the following day until the evening.

While we were in the cave up came `Uthmaan b. Malik b. `Ubaydullah al-Taymi cutting grass for a horse of his. He kept coming nearer until he was at the very entrance of the cave.

I told my friend who he was and that he would give us away to the Meccans, and I went out and stabbed him under the breast with the dagger. He shrieked so loud that the Meccans heard him and came towards him.

I went back to the cave and told my friend to stay where he was. The Meccans hastened in the direction of the sound and found him at the last gasp. They asked him who had stabbed him and he told them that it was I, and died.

They did not get to know where we were and said, ‘By God, we knew Amr was up to no good.'

They were so occupied with the dead man whom they carried off that they could not look for us, and we stayed a couple of days in the cave until the pursuit died down.

Then we went to al-Tanim, and lo, Khubayb's cross. My friend asked if we should take him down from the cross, for there he was. I told him to leave the matter to me and to get away from me for guards were posted round it. If he was afraid of anything he must go to his camel and tell the apostle what had happened.

I ran up to Khubayb's cross, freed him from it, and carried him on my back.
Hardly had I taken forty steps when they became aware of me and I threw him down and I cannot forget the thud when he dropped.

They ran after me and I took the way to al-Saafra' and when they wearied of the pursuit they went back and my friend rode to the prophet and told him our news.
I continued on foot until I looked down on the valley of Dajnan (A mount near Mecca). I went into a cave there taking my bow and arrows, and while I was there in came a one-eyed man of B. al-Dil driving a sheep of his.
When he asked who I was I told him that I was one of B. Bakr. He said that he was also, adding of B. al-Dil clan [5]. Then he lay down beside me and lifting up his voice began to sing:

I won't be a Muslim as long as I live,
Nor heed to their religion give.

I said (to myself), `You will soon know!' and as soon as the badu was asleep and snoring I got up and killed him in a more horrible way than any man has been killed. I put the end of my bow in his sound eye, then I bore down on it until I forced it out at the back of his neck.

Then I came out like a beast of prey and took the highroad like an eagle hastening until I came out at a village which, (said the narrator), he described; then to Rakuba and al-Naqi where suddenly there appeared two Meccans whom Quraysh had sent to spy on the apostle.

I recognized them and called on them to surrender, and when they refused I shot one and killed him, and the other surrendered.  I bound him and took him to the apostle.’

According to Ibn Humayd < from Salamah < Ibn Ishaq from < Sulayman b. Wardan < from his father <`Amr b. Umayya:

‘When I got to Medina I passed some shaykhs of the Ansar and when they exclaimed at me some young men heard my name and ran to tell the apostle.

Now I had bound my prisoner's thumbs with my bow string, and when the apostle looked at him he laughed so that one could see his back teeth.

He asked my news and when I told him what had happened he blessed me'.

>>> আবু আফাক, আসমা-বিনতে মারওয়ান, কাব বিন আল-আশরাফ ও আবু রাফিকে হত্যার জন্য মুহাম্মদ যে গুপ্তঘাতকদের পাঠিয়েছিলেন তারা সকলেই ছিলেন সফলকাম। ঐ লোকগুলোকে অমানুষিক নৃশংসতায় হত্যা করে ঘাতকরা মুহাম্মদের আশীর্বাদপুষ্ট হয়েছিলেন (পর্ব: ৪৬-৫০)। 

আবু সুফিয়ানকে হত্যার লক্ষ্যে মুহাম্মদের পাঠানো এই ঘাতক আমর বিন উমাইয়া তার উদ্দেশ্য সাধনে বিফলকাম হয়েছিলেন সত্যি, কিন্তু পথিমধ্যে তিনজন লোককে খুন ও একজনকে বন্দী করে ধরে নিয়ে আসার কৃতিত্বে সেও হয়েছিল মুহাম্মদের আশীর্বাদপুষ্ট ।

তথাকথিত মডারেট মুসলমানদের (ইসলামে কোনো কমল, মডারেট বা উগ্রবাদী শ্রেণীবিভাগ নেই) সিংহভাগই "মদিনায় মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীদের এ সকল অমানুষিক নৃশংস কর্ম-কাণ্ডের ইতিহাস সম্বন্ধে সম্পূর্ণ অজ্ঞ” - 'সিরাতে' যার পরিমাণ হলো মুহাম্মদের নবুয়ত পরবর্তী জীবনের ৮২ শতাংশ। (পর্ব-৪৫)।

আদি উৎসের বিশিষ্ট মুহাম্মদ-অনুসারীদেরই ভাষ্য সংগৃহীত ও লিখিত এই প্রাণবন্ত উপাখ্যানগুলো বর্ণিত হয়েছে মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীদের শৌর্য-বীর্যের অলংকার হিসাবে। তাঁদের পক্ষে ধারণা করাও সম্ভব ছিল না যে, মুহাম্মদের মৃত্যুর শত/সহস্র বছর পরে একদিন তা সর্বজনগৃহীত মানবতার মাপকাঠিতে চরম নেতিবাচক আচরণ বলে পরিচিত হবে।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:
[1] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1,
ইবনে হিশামের নোট নম্বর ৬১৮, পৃষ্ঠা ৬৭৩

[2] Ibid “সিরাত রসুল আল্লাহ”, ইবনে হিশামের নোট নম্বর ৯১৩, পৃষ্ঠা ৭৯০

[3] Ibid “সিরাত রসুল আল্লাহ”, A. Guillaume এর ভূমিকা (Introduction), পৃষ্ঠা xlii

[4] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৭, ইংরেজী অনুবাদ: W. Montogomery Watt and M.V. McDonald, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, পৃষ্ঠা (Leiden) ১৪৩৭-১৪৪১ http://books.google.com/books?id=efOFhaeNhAwC&printsec=frontcover&source=gbs_ge_summary_r&cad=0#v=onepage&q&f=false

[5] 'আমর' ছিল দামরা গোত্রের, যেটি ছিল বানু বকর গোত্রের এক অংশ। আল-দিল গোত্রটিও ছিল বানু বকর গোত্রের এক অংশ।