৩ জানু, ২০১৫

কে বলে ইসলামে বিজ্ঞান নাই: কবিরাজি

লিখেছেন শান্তনু আদিব

এইবার আমরা আসল ব্যাপারে আসিব। ইসলামি টোটকা বা কবিরাজি শিখার জন্য অনেকেই বসে আছেন, বুঝতে পারতেছি। কে চায় শুধু শুধু হেকিমি ইউনানি দাওয়াখানায় পয়সা ঢালতে। তাহলে বন্ধুরা আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করছি।

টোটকা ১:
ওষুধ হলো উটের পেচ্ছাব।
(Sahih Bukhari 7:71:590)
আমি জানি, এটা না লিখলেও হত, কেননা এই টোটকা আমাদের মুছলমান ভাইয়েরা সবাই ব্যাবহার করেন নিয়মিত। তারপরেও রাখতে হয় বলে রাখছি।

টোটকা ২:
সকল রোগের মহাওষুধ কালিজিরা।
(Sahih Bukhari 7:71:592)
জ্বর হয়েছে, রোগীকে ঠেসে খাওয়ান কালিজিরা; পাতলা পায়খানা - তার ওষুধ ও কালিজিরা; পাইলস হয়েছে, তাহলে বেশি করে মরিচ সহযোগে কালিজিরা ভর্তা করে পেছন দিয়ে ভরে দিন; কাটাছেঁড়ার ক্ষেত্রেও কালিজিরার ভর্তা ব্যাপক উপকারী। শুধু মাত্র এইডস সারাতে পারে না, কারণ এইডস-এর অপর নাম মৃত্যু। আর মহানবী বলে গিয়েছেন মৃত্যু ছাড়া সকল রোগের মহৌষধ কালিজিরা। তাই এইডস-এর ক্ষেত্রে কালিজিরার উপরে ভরসা না করে কনডম ব্যবহার করুন।

টোটকা ৩:
মাছির এক পাখায় রোগের প্রতিষেধক থাকে।
(Sahih Bukhari 4:54:537)
মাছির পাখা টাইফয়েড, ম্যালেরিয়া, কলেরা, ডাইরিয়া, সাধারণ পাতলা পায়খানা ইত্যাদি পেটের ব্যামো সারাতে পারে। তবে কোন পাখায় যে প্রতিষেধক থাকে, তা বের করা একটু ঝামেলার আছে। কারণ একেক মাছির মনে হয় একেক পাখায় থাকে। তাই আমি বলিব, শিউর না হয়ে মাছির পাখা খাবেন না। এ ব্যাপারে হেকিম বাবুনগরীর পরামর্শ নিতে পারেন।

টোটকা ৪:
বিষের অ্যাকশন নষ্ট করার জন্য ৭ খানা খেজুরই যথেষ্ট।
(Sahih Bukhari 7:65:356)
সাপের বিষ, আর্সেনিক, মৌমাছির বিষ, পিপড়ার বিষ, ফুড পয়সনিং, মার্কারি পয়সনিং সহ যে কোন বিষের প্রতিষেধক হলও ৭ খানা খেজুর। গোপন খবরে জানা গেছে যে, নাস্তিক ওষুধ কোম্পানিগুলো নানা রঙের প্যাকেটে কমপ্রেসড খেজুর বেচে বিষের প্রতিষেধক বলে।

টোটকা ৫:
মধু, ডাইরিয়ার মহাওউষধ।
(Sahih Bukhari 7:71:614)
মাছির পাখার সাথে মধু ঘুঁটা করে খেলে ডাবল অ্যাকশন।

টোটকা ৬:
বিছের হুলের চিকিৎসা করতে হয় জাদুটোনার মাধ্যমে।
(Abu Dawud 28:3875)
এদিকে জাদুটোনা করা ইসলামে হারাম, তাই এ ক্ষেত্রে ৭ টা খেজুর এবং কালিজিরার ভর্তার উপরে নির্ভর করতে বলা হচ্ছে। তবে কেউ যদি জাদুটোনার মাধ্যমে বিছের বিষ নামিয়ে দেয়, সেক্ষেত্রে রোগীর কোনো পাপ হবে না।

টোটকা ৭:
কন্দকবক বা ট্রফল এর পানি চোখের ওষুধ সারিয়ে দেয়।
(Sahih Bukhari 7:71:609)
ডু নট আসক মি হোয়াট ইস কন্দকবক অথবা ট্রফল। শুধু জানি অনেক দামী জিনিস, সবখানে পাবেন না। আর এটা জন্মায়ও মাটির নিচে। তাই হাতের কাছে যদি না পাওয়া যায়, তাহলে নাগা মরিচ (ফ্লেভার এর জন্য) দিয়ে কালিজিরা ভর্তা করে চোখের মাঝে প্রলেপ দিতে হবে। এইরূপে এক সপ্তাহ নিয়মিত প্রলেপ দিলে ইনশাল্লা চোখে কোনো ব্যথা-বেদনা থাকবে না, দৃষ্টিশক্তি হইবে সুপারম্যানের ন্যায়।

আশা করি আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা চেষ্টা আপনাদের ভালো লাগিবে। কোন হাদিয়া ছাড়াই ইসলামের জন্য আমি ঠিক করেছি নিয়মিত লিখে যাবো।