৯ নভেম্বর, ২০১২

কুরানে বিগ্যান (ষষ্ঠদশ পর্ব): কুরানের অ্যানাটমি


লিখেছেন গোলাপ


কুরান কী? 

কুরান হচ্ছে মুহাম্মদের ব্যক্তি-মানস জীবনী (Psycho-Biography)। কুরানের বহু ঘটনা বিন্যাসের বর্ণনা মুহাম্মদের জীবনেরই অংশ বিশেষ। তাঁর নবী-জীবনের সংঘাতময় ঘটনাপ্রবাহের পরিপ্রেক্ষিতে পরিপার্শ্বিক মানুষের সাথে তাঁর আচরণের বর্ণনা ও চিন্তা-ভাবনার প্রতিফলন। চারণ-কবির মত তা তিনি প্রচার করেছিলেন ‘আল্লাহর বাণী’ বলে। যেহেতু কুরানের বহু ঘটনাবিন্যাসের বর্ণনা মুহাম্মদের জীবনেরই অংশ ও চিন্তা-ভাবনার প্রতিফলন; সেহেতু মুহাম্মদের কর্মজীবন ও তাঁর পারিপার্শ্বিকতার সঠিক ইতিহাস জানতে এ বইটি সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য ও নির্ভরযোগ্য। মুহাম্মদের জীবন-ইতিহাস ও মনস্তত্ত্বের (Psycho-Biography) সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ধারণা পাওয়া যায় কুরান থেকেই। বলা হয়, যে মুহাম্মদকে জানে সে ইসলাম জানে। যে মুহাম্মদকে জানে না সে ইসলাম জানে না। ইসলামকে সহি উপায়ে বুঝতে হলে মুহাম্মদকে জানতেই হবে! এর কোনোই বিকল্প নেই।

মুহাম্মদের সেই বাণীগুলো ছিল বিচ্ছিন্নভাবে, বিভিন্ন অনুসারীদের কাছে। কেউ কেউ তা লিখে রেখেছিলেন, কেউ কেউ করেছিলেন মুখস্থ। বিচ্ছিন্ন সেই বাণীগুলো মুহাম্মদের মৃত্যুর (জুন, ৬৩২) উনিশ বছর পর খলিফা উসমানের সময় একটি কমিটি কর্তৃক অত্যন্ত বিশৃঙ্খলভাবে সম্পাদিত হয়ে সম্পূর্ণ বই আকারে লিপিবদ্ধ হয়। সম্পাদিত সেই কিতাবটিই হলো কুরান। যে আলী ইবনে আবু তালেব মুহম্মদের নিজস্ব পরিবারের সদস্য, যে আলী নয় বছরে বয়সে হন মুসলমান, যে আলী মুহাম্মদকে তার কবরে শোয়ানো পর্যন্ত (৫ জন লোকের একজন যারা মুহাম্মদকে কবরে শুইয়েছিলেন) সর্বদাই ছিলেন তাঁর সঙ্গী। সেই আলীকে ঐ কমিটিতে রাখা হয়নি। সম্পাদনের সময় মুহাম্মদের জীবনের ঘটনাপ্রবাহের ধারাবাহিকতাকে (Chronology) কোনোরূপ আমলেই নেয়া হয় নাই। বাতিল (Abrogated) আয়াতগুলোকেও এ গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে কোনোরূপ টিকা-মন্তব্য (foot-note) ব্যতিরেকেই। তাই এ গ্রন্থের অন্তর্নিহিত সত্যকে অনুধাবন করা বেশ দুরূহ। এতদসত্ত্বেও এ গ্রন্থে অনেক অনেক তথ্য আছে, যা থেকে মুহাম্মদের মনস্তত্ত্ব ও তাঁর পরিপার্শ্বিক সমাজের কিছুটা সম্যক ধারণা পাওয়া যায়। প্রয়োজন নির্মোহ পক্ষপাতহীন অনুসন্ধান।

কুরানের অ্যানাটমি 

কুরানের মোট সুরা সংখ্যা ১১৪ টি। সৌদি আরবের বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ (হেরেম শরীফের খাদেম) কর্তৃক বিতরণকৃত কুরানের উৎস মোতাবেক - এর ৮৭ টি সুরা মক্কায় অবতীর্ণ। বাঁকি ২৭ টি মদিনায়। কুরানের মোট আয়াত সংখ্যা ৬২৩৬ টি। এর ৪৭০৪ টি মক্কায় এবং ১৫৩২ টি মদিনায়। মোট সময় কাল মক্কার ১২-১৩ বছর (৬১০-৬২২ খৃষ্টাব্দ) এবং মদিনায় ১০ বছর (৬২২-৬৩২ খৃষ্টাব্দ) । আয়াতের সংখ্যা ও বর্ণনায় সূত্রভেদে কিছুটা বিভিন্নতা আছে। অনেক সুরার অবতীর্ণের স্থান নিয়েও বিভিন্ন সূত্রে বিভিন্নতা আছে। বিশেষ করে কুরানের শেষের অংশের কিছু সুরার ক্ষেত্রে। কুরানের সমস্ত আয়াত দুই ভাগে বিভক্ত: 
১) মক্কায় অবতীর্ণ
২) মদীনায় অবতীর্ণ 

মদিনায় অবতীর্ণ ২৭ টি সুরাকে ছড়ার আকারে সহজে মনে রাখার উপায়:

দুই থেকে নয়, 
বাদ সাত ছয়।
বাইশ-চব্বিশ ও তেত্রিশ, 
উনপঞ্চাশ-আটচল্লিশ আর সাতচল্লিশ। 
সাতান্ন হইতে ছেষট্টি আর পাঁচ-পঞ্চাশ, 
যিলযাল-নছর-ফালাক-আর নাসে মদিনায় সাতাশ।

মক্কা ও মদিনার সুরাগুলোর সাধারণ বৈশিষ্ট্য:

১) মক্কায় অবতীর্ণ সুরা 

যাবতীয় কসম ও শপথ, পুরাকালের নবীদের গল্প-গাঁথা ও মোজেজার বর্ণনা, দোযখের বীভৎস বর্ণনার মাধ্যমে পরোক্ষ হুমকি ও ভীতি-প্রদর্শন, মাঝে মধ্যে সহনশীলতার উপদেশ ও আধ্যাত্মিক কথাবার্তা- এ সমস্ত আয়াতের জন্মস্থান হলো মক্কা। তা সে কুরানের যে অংশেই থাকুক না কেন। এ বাণীগুলো মুহাম্মদ প্রচার করেছেন মক্কায় (৬১০-৬২২) । যখন তাঁর বাহুবল ও জনবলের কোনোটাই ছিল না তাঁর নিজেরই আত্মীয়, পরিবার, পরিজন ও মক্কাবাসীদের সাথে যুদ্ধ করার। 

২) মদীনায় অবতীর্ণ সুরা 

অমুসলিমদের প্রতি যত কঠিন থেকে কঠিনতর আয়াত, প্রত্যক্ষ হুমকি ও হত্যার নির্দেশ, অমুসলিমদের সাথে সম্পর্ক ছেদের নির্দেশ, আইন ও বাধ্যবাধকতা (Rules and obligations) - এ সমস্ত আয়াতের জন্মস্থান হলো মদীনা - তা কুরানের যে অংশেই থাকুক না কেন। এ আয়াতগুলো মুহাম্মদের শক্তি-বৃদ্ধি ‘মাপকঠির’ ধারাবাহিক বর্ণনা। মুহাম্মদের (আল্লাহর) সর্বশেষ বাণী সুরা তওবাহ (৯ নম্বর সুরা)।

যদি দুই বা ততোধিক আয়াত বিপরীতধর্মী বা পরস্পরবিরোধী হয়, তবে যে আয়াতটি "পরে" নাজিল হয়েছে সেটাকেই বলবত ধরতে হবে। 

যার সরল অর্থ হল, সেরূপ ক্ষেত্রে মদীনার আয়াত (পরে নাজিলকৃত) মক্কার আয়াতগুলোকে বাতিল (Abrogate) করে। তাই বিপরীতধর্মী কোনো বিশেষ আয়াতের কোনটি গ্রহণযোগ্য, তা জানতে সে “আয়াতের জন্মস্থান" জানা অত্যন্ত জরুরী। তা না জানলে সুবিধাবাদী ইসলামিষ্ট ও পণ্ডিতদের (তথাকথিত মডারেট) 'সুবিধাজনক কুরান-উদ্ধৃতিতে’ বিভ্রান্ত হওয়া প্রায় সুনিশ্চিত। 

যে সমস্ত মৌলবাদী জেহাদি ভাইয়েরা আল্লাহর রাস্তায় জান-মাল সর্বস্ব বাজী রেখে অপরকে মারছেন এবং নিজেও মরে তাদের বিশ্বাসের গভীরতার (Extreme devotion by ultimate sacrifice) প্রমাণ দিচ্ছেন, তাঁরা কুরানের সেই আয়াতগুলোকেই মান্য করেন, যেগুলোর জন্মস্থান হচ্ছে মদীনা। বিশেষ করে ‘সুরা তওবাহর’ বাণী। মুহাম্মদের (আল্লাহর) সর্বশেষ বাণী হল সুরা তওবাহ (৯ নম্বর সুরা) । মৌলবাদী জিহাদিরা ‘একান্ত সহি ভাবে’ জানে যে, তারা সত্য পথের উপর আছে। তারা খুব ভালভাবে জানে যে, পরবর্তী সময়ে নাযিলকৃত আয়াত পূর্ববর্তী আয়াতকে নাকচ করে দিয়েছে। অত্যন্ত সহজ তাদের যুক্তি: পৃথিবীর অন্য সব আইনের মতই পরবর্তীতে জারিকৃত আইন ও নীতিমালা পূর্বের জারিকৃত আইন ও নীতিমালাকে নাকচ করে দেয়। এই সহজ বিষয়টা তথাকথিত মডারেট মুসলমানেরা বুঝতে পারে না। কারণ তারা হয় ধর্ম বিষয়ে অতিশয় অজ্ঞ অথবা বুঝতে চায় না কারণ তারা হিপোক্রাইট।

বক্তব্যের সারাংশ অনুযায়ী কুরানের আয়াতগুলোকে মোটামুটিভাবে নিম্নলিখিত শ্রেনীতে ভাগ করা যায়:

---------------------------------------------------------------------------------------------
সার বক্তব্য                                                                                    আয়াত সংখ্যা (কম পক্ষে) 
---------------------------------------------------------------------------------------------                                                                                                                           
১) পূর্ববর্তী নবীদের গল্পগাথার উপাখ্যান                                                                      ১২৪০
---------------------------------------------------------------------------------------------
২) অবিশ্বাসীদেরকে হুমকি,শাসানী, ভীতি প্রদর্শন, অসম্মান ও দোষারোপ                                    ৫২১
---------------------------------------------------------------------------------------------                                               
৩) অবিশ্বাসীদেরকে হামলা, খুন ও তাদের সাথে সম্পর্কচ্ছেদের আদেশ                                      ১৫১ 
---------------------------------------------------------------------------------------------                                                                                 
৪) অবিশ্বাসীদেরকে অভিশাপ, ও বিপথগামী করে হেদায়েত বঞ্চিতকরণ                                      ৬৬ 
---------------------------------------------------------------------------------------------                                                                                                                                                        
৫) আল্লাহ যাকে খুশী হেদায়েত দেন, যাকে খুশী শাস্তি দেন                                                     ৫০ 
---------------------------------------------------------------------------------------------                                                                                                                                          
৬) যুক্তি ও বিচারবুদ্ধিতে যার কোনো অর্থ নেই                                                                  ২০৪
---------------------------------------------------------------------------------------------
৭) পূর্ববর্তী নবীদের অলৌকিক মোজেজার বর্ণনা                                                                  ৬৫
---------------------------------------------------------------------------------------------
৮) পূর্ববর্তী নবীদের অনুরূপ 'মোজেজা' -প্রমাণ" দেখতে চায় কুরাইশরা: 
প্রতিউত্তরে মুহাম্মদের জবাব                                                                                         ৯৬ 
---------------------------------------------------------------------------------------------
৯) বেহেশতের প্রলোভন                                                                                            ২৪৩
---------------------------------------------------------------------------------------------
১০) বিধিবিধান, উপদেশ ও বাধ্যবাধকতা                                                                       ২২৯
---------------------------------------------------------------------------------------------
১১) কিয়ামত সংক্রান্ত বক্তব্য                                                                                        ৫৬
---------------------------------------------------------------------------------------------
১২) প্রসঙ্গ কুরান                                                                                                     ১৪১
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৩) বক্তা যেখানে (তৃতীয় পক্ষ): কুরান কার বাণী?                                                            ১০১
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৪) কসম ও শপথ (নিজেই নিজের শপথ x৬)                                                                  ৬৪
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৫) অবিশ্বাসীদের প্রতি চ্যালেঞ্জ                                                                                    ২২
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৬) যুদ্ধবিমুখ মুসলমানদের প্রসঙ্গে মুহাম্মদের হুশিয়ারি                                                         ৪০
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৭) বনী নাদির ও বনী কুরাইজা গোত্রের বিরুদ্ধে আক্রমণ ও সন্ত্রাসের বর্ণনা: 
তাদের বসত-বাড়ী থেকে উচ্ছেদ ও স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি লুট                                                 ১৮
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৮) যুদ্ধ ও হামলা (Raid) লুটের লব্ধ মাল ভাগাভাগি                                                        ১৩
---------------------------------------------------------------------------------------------
১৯) আগের বাণী বাতিল করে নতুন বাণী প্রবর্তন (Abrogation)                                   ২ / (১৪)
---------------------------------------------------------------------------------------------
২০) প্রসঙ্গ হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)                                                                                ১৬৭
---------------------------------------------------------------------------------------------
২১) মুহাম্মদ (সাঃ)-এর পত্নী সংক্রান্ত বাণী                                                                       ১০
---------------------------------------------------------------------------------------------
২২) মুহাম্মদের যৌনতা বিষয়ক বাণী                                                                                ৩ 
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৩) পালিত পুত্রের স্ত্রীকে বিবাহ সংক্রান্ত বাণী                                                                     ২
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৪) হিজরত: কেন মুহাম্মদ মক্কা ছেড়েছিলেন?                                                                  ২৫
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৫) নব্য মুসলিমদের তাদের পূর্বধর্মে পুনরাগমনে প্রলুব্ধ করনের চেষ্টায় কুরাইশরা                           ৫
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৬) দীক্ষিত মুসলিমদের ধর্মত্যাগের শাস্তি                                                                         ৫
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৭) ইসলামই একমাত্র গ্রহণযোগ্য ধর্ম                                                                             ৫ 
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৮) আল্লাহর সাথে অংশীদারকারীর কোন ক্ষমা নেই                                                              ৮ 
---------------------------------------------------------------------------------------------
২৯) কবিদের সমালোচনায় মুহাম্মদ                                                                                 ২
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩০) নারী প্রসঙ্গ                                                                                                       ৬১
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩১) পূরুষ-নারী বৈষম্য সংক্রান্ত                                                                                   ২৩
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩২) মেয়ে শিশু হত্যা সংক্রান্ত                                                                                       ৩
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩৩) প্যাগানরা ছিল "আল্লাহ" বিশ্বাসী                                                                            ১০
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩৪) অবিশ্বাসীদের যুক্তি: তারা কি নির্বোধ ছিলেন?                                                              ৫
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩৫) কুরানে বিজ্ঞান?                                                                                              ১৭১ 
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩৬) পৌরাণিক কাহিনী: উদাহরণ - "জ্বীন, হুদ হুদ পাখী ও বাদশাহ সোলায়মানের গল্প"                ২৮
---------------------------------------------------------------------------------------------
৩৭) প্রসঙ্গ জ্বীন জাতি                                                                                              ২৩
--------------------------------------------------------------------------------------------- 
৩৮) নামাজের ওয়াক্ত সংক্রান্ত                                                                                      ৭
--------------------------------------------------------------------------------------------- 
৩৯) অন্যান্য                                                                                                   বাকি সব
---------------------------------------------------------------------------------------------

পরিসংখ্যানে দেখা যায় যে, মক্কায় মোট ৪৭০৪ টি আয়াতের কমপক্ষে ১২৪০টি পুরাকালের উপকথা (২৬.৩ শতাংশ) । অর্থাৎ মক্কায় প্রবক্তা মুহাম্মদের প্রতি চারটি বাক্যের একটি হলো পুরাকালের নবীদের উপকথা। তার সাথে হুমকি-শাসানী-ভীতি প্রদর্শন-অসম্মান এবং হামলা-খুন-সম্পর্কচ্ছেদ ও অভিশাপ আদেশ সমন্বয়ে মোট আয়াত সংখ্যা (১২৪০+৫২১+১৫১+৬৬) = ১৯৫৮ টি, যা সমগ্র কুরানের ৩১.৩ শতাংশ। অর্থাৎ সমগ্র কুরানের প্রতি তিনটি বাক্যের একটি হুমকি-শাসানি-ত্রাস অথবা পুরাকালের নবীদের গল্প সম্বলিত। আশা করি চিন্তাশীল পাঠকদের এই তথ্যটি বিশেষ চিন্তার খোরাক যোগাবে! 

কুরানের অলৌকিকত্বের দাবীদাররা তাঁদের দাবীর সপক্ষে যে "প্রমাণ" প্রায় সব ক্ষেত্রেই উল্লেখ করেন, তা হলো একজন অক্ষরজ্ঞানহীন লোকের পক্ষে কীভাবে এতসব লেখা সম্ভব? সত্য হচ্ছে, মুহাম্মদ কিছুই লেখেননি। তিনি বলেছেন। অন্যেরা তার “বচন” মুখস্থ করেছেন, কেউ কেউ তা লিখে রেখেছেন। এখানে যে সত্যটা প্রমাণিত, তা হলো, মুহাম্মদ ছিলেন অত্যন্ত তীক্ষ্ণ মেধাসম্পন্ন ব্যক্তি। সর্বমোট ৬২৩৬ টি বাক্য চারণ (রচনা) করা হয়েছে সুদীর্ঘ ২২- ২৩ বছরে (৬১০-৬৩২ খৃষ্টাব্দ), অর্থাৎ, ৮০৩০ দিনে ৬২৩৬টি বাক্য রচনা। প্রতি দিন গড়ে “একটির ও কম” বাক্য। আরও বিশদভাবে পর্যালোচনা করলে:

মক্কায় ৪৩৮০ দিনে ৪৭০৪ টি বাক্য। অর্থাৎ, গড়ে “প্রতিদিনে একটি" বাক্য”।

মদিনায় ৩৬৫০ দিনে ১৫৩২টি বাক্য। অর্থাৎ, গড়ে "প্রতিদিনে অর্ধেক বাক্য”।

যে কোনো নিবেদিতপ্রাণ মানুষই দিনে "একটি" বাক্য অনায়াসেই রচনা করতে পারেন। মুহাম্মদ ও তাই করেছিলেন। কুরানের বহু ঘটনা বিন্যাসের বর্ণনা মুহাম্মদের জীবনেরই অংশবিশেষ। তাঁর নবী-জীবনের ঘটনাপ্রবাহ এবং পরিপার্শ্বিক মানুষদের সাথে তাঁর আচরণ, পৌরাণিক নবীদের গল্প ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিষয়াদির বর্ণনা। এসব রচনা কোনো অলৌকিকত্বের প্রমাণ নয়। 

প্রবক্তা মুহাম্মদ জানিয়েছেন:

২০:১১৩ - এমনিভাবে আমি নাযিল করেছি এবং এতে নানাভাবে সতর্কবাণী ব্যক্ত করেছি, যাতে তারা আল্লাহভীরু হয় অথবা তাদের অন্তরে চিন্তার খোরাক যোগায়।

খুবই সুন্দর বাণী! নির্মোহ ও মনোযোগী হয়ে বুঝে কুরান পড়ুন! চিন্তা করুন! সত্যকে জানুন!

[কুরানের উদ্ধৃতিগুলো সৌদি আরবের বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ (হেরেম শরীফের খাদেম) কর্তৃক বিতরণকৃত বাংলা তরজমা থেকে নেয়া; অনুবাদে ত্রুটি-বিচ্যুতির দায় অনুবাদকারীর। কুরানের ছয়জন বিশিষ্ট অনুবাদকারীর পাশাপাশি অনুবাদ এখানে।]

(চলবে)

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন