সোমবার, ১৬ জুলাই, ২০১২

কুরানে বিগ্যান (চতুর্থ পর্ব): মানব-তত্ব


লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩

করুণাময় আল্লাহ!

মানুষের চিন্তা শক্তির উদ্ভবের ঊষালগ্ন থেকেই সে নিজেকে প্রশ্ন করেছে, "কোথা থকে সে এসেছে?”
মহা জ্ঞানী সর্বজ্ঞ আল্লাহ পবিত্র কুরানে এরশাদ ফরমাইয়েছেন মানুষ সৃষ্টির আদি উৎস।
কোত্থেকে?

এক ব্যক্তি (আদম) থেকে:

৪:১ - হে মানব সমাজ! তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে এক ব্যক্তি থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং যিনি তার থেকে তার সঙ্গীনীকে সৃষ্টি করেছেন; আর বিস্তার করেছেন তাদের দু’জন থেকে অগণিত পুরুষ ও নারী--|
৬:৯৮,- তিনিই তোমাদের কে এক ব্যক্তি থেকে সৃষ্টি করেছেন| অনন্তর একটি হচ্ছে তোমাদের স্খায়ী ঠিকানা ও একটি হচ্ছে গচ্ছিত স্খল| 
৭:১৮৯- তিনিই সে সত্তা যিনি তোমাদিগকে সৃষ্টি করেছেন একটি মাত্র সত্তা থেকে; আর তার থেকেই তৈরী করেছেন তার জোড়া, যাতে তার কাছে স্বস্তি পেতে পারে|
৩৯:৬৯ -তিনি সৃষ্টি করেছেন তোমাদেরকে একই ব্যক্তি থেকে। অতঃপর তা থেকে তার যুগল সৃষ্টি করেছেন --

আধুনিক বিজ্ঞান

১) কুরানে যত “উদ্ভট” ঘটনার বর্ণনা আছে তার সর্বশ্রেষ্ঠটি হলো আদম-হাওয়ার উপাখ্যান! বিজ্ঞানে "ব্যক্তি আদমের" কোনো অস্তিত্ব নেই।

২) প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে বিজ্ঞান প্রমাণ করেছে যে, মানুষসহ পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণই "আদি প্রাণ" থেকে বিবর্তিত হয়ে আজকের অবস্থানে পৌঁছেছে। আর সে "আদি প্রাণের" উদ্ভব হয়েছিল আজ থেকে প্রায় সাড়ে তিন শত কোটি বছর আগে। যে প্রাণটিকে বিজ্ঞান Last Universal Common Ancestor (LUCA) আখ্যা দেয়। সে কোনো ব্যক্তি ছিল না। তার কোনো সঙ্গিনী ছিল না। সে ছিল অত্যন্ত সাধারণ "এক কোষী" প্রাণ। তার উদ্ভব হয়েছিল "পানিতে"। কোনো "উদ্যানে" নয়।

৩) আর কোনো নির্দিষ্ট প্রজাতির Most Recent Common Ancestor (MRCA) বলতে বোঝানো হয়, সেই প্রজাতির (species) নিকটতম অতীতের সাধারণ পূর্বপুরুষটিকে, যারা দুই বা ততোধিক প্রজাতির  নিকটতম সাধারণ পূর্ব-পুরুষ Last Common Ancestor (LCAথেকে দুটি আলাদা প্রজাতিতে বিবর্তিত। উদাহরণ, মানুষ ও শিম্পাঞ্জি তাদের সাধারণ পূর্ব পুরুষ (LCA) থেকে আনুমানিক ৬০-৭০ লক্ষ বছর আগে বিচ্ছিন্ন (mutation) হয়ে দুটি আলাদা প্রজাতিতে বিবর্তিত হয়েছে। মানুষের DNA ও শিম্পাঞ্জির DNA-এর হুবহু মিল ৯৮.৪ শতাংশ। একজন মানুষের DNA-এর সাথে অনাত্মীয় অন্য একজন মানুষের DNA-এর হুবহু মিল শতকরা ৯৯.৬ শতাংশ। হুবহু যমজ (Mono zygotic twin) ভাই কিংবা বোনের DNA-এর হুবহু মিল একশত ভাগ। একজন মানুষের DNA-এর সাথে ইঁদুরের DNA-এর হুবহু মিল ৮৫ শতাংশ, কলাগাছের DNA-এর সাথে ৫০ শতাংশেরও বেশী। অর্থাৎ, একটি জীবনের সাথে আরেকটি জীবনের বংশানুগতিক (Genetic) মিল যত কাছের, তাদের পারস্পরিক DNA-এর হুবহু মিল তত বেশী। শিম্পাঞ্জী মানুষের (Human species) নিকটতম আত্মীয় (মাত্র এক শতাংশ DNA পার্থক্য), ইঁদুর একটু দূরের, কলাগাছ আরও দুরের। পৃথিবীর প্রতিটি "প্রাণ (life)" একই উৎস (LUCA) থেকে বিবর্তিত। আমরা সবাই একে অপরের আত্মীয়।

৪) অনেক ইমানদার পাবলিক ও ধর্মপণ্ডিত মাঝে মাঝে Y-chromosome Adam (Y-MRCA) এবং MitochondrialEve-কে বাইবেল-কুরানের আদম-হাওয়ার উপাখ্যানের সাথে জুড়ে দিয়ে  “অপবিজ্ঞান" প্রচার করার চেষ্টা করে। বিজ্ঞানীরা Y-chromosomal Adam এবং Mitochondrial Eve (matrilineal-MRCA) বলতে কুরান/বাইবেলের আদম-হাওয়া কে বোঝান না। তাদের নাম অনুসারে এদের নামকরণ করা হয়েছে মাত্র। Y-MRCA Adam বলতে "একটি মাত্র" মানুষ বোঝানো হয় না। তারা হলেন বর্তমান মানুষ প্রজাতির" পুরুষ (Male Ape like Human), যারা অতীতের "মানুষ এবং শিম্পাঞ্জি প্রজাতির" সাধারণ পূর্ব-পুরুষ থেকে আলাদা (mutation) হয়ে প্রথম “মানুষ-প্রজাতির” পুরুষের বৈশিষ্ট্যে (male) বিবর্তিত হয়েছে। বিভ্রান্তি এড়ানোর জন্য ব্যাপারটাকে একটু খোলসা করা দরকার। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের শরীর ৫০-১০০ ট্রিলিয়ন কোষের সমষ্টি। এর মাত্র ১০ শতাংশ তার নিজস্ব। বাকি ৯০ শতাংশ বাহিরের (Harboring bacteria)। নিজস্ব কোষগুলোকে মূলত: দুই ভাগে ভাগ করা যায়। Sex cell (Germ cell) এবং Somatic Cell (Body cell)। পুরুষের শুক্রাণু এবং মেয়েদের ডিম্বাণু হলো Sex Cell। বাকি সমস্তই Body Cell। Sex cell এর ক্রোমোসম সংখ্যা ২৩ টি (Body cell এর ক্রোমোসম সংখ্যা ২৩ জোড়া)। ডিম্বাণুতে সর্বদাই তা ২২+X (কোন 'Y' নেই)। কিন্তু শুক্রাণুতে তা ২২+X, অথবা “22+Y” ডিম্বাণুর মিলন যদি শুক্রানুর ২২+X এর সাথে হয় তাহলে সন্তান হবে "মেয়ে", ডিম্বানুর মিলন শুক্রানুর ২২+Y এর সাথে হলে সন্তান হবে "ছেলে"। অর্থাৎ "Y" ক্রোমোসমটির উৎস সর্বদাই পুরুষ। সুতরাং, মানুষ প্রজাতির Y-chromosome এর যাবতীয় পরিবর্তনকে (mutation) অতীতের দিকে অনুসরণ করে (tracing back only along the paternal lines of their family tree) আমরা আদি পিতা Y-MRCA(Y-chromosomal Adam)এর অবস্থানকাল জানতে পারি। বর্তমানের তথ্য অনুযায়ী Y-MRCA Adam এর অবস্থানকাল ছিল এখন থেকে প্রায় ১৪২,০০০ বছর আগের পৃথিবীতে। একই ভাবে Mitochondrial DNA "শুধু মেয়েদের" কাছ থেকে অক্ষত অবস্থায় পরবর্তী বংশধরদের মাঝে স্থানান্তরিত হয়। অর্থাৎ, Mitochondrial DNA এর উৎস সর্বদাই মহিলা। Y-MRCA Adam এর মত একইভাবে Mitochondrial DNA এর যাবতীয় পরিবর্তনকে (mutation) অতীতের দিকে অনুসরণ করে (tracing back only along the maternal lines of their family tree) আমরা আদি মাতা Mitochondrial Eve (Female Ape like Human) এর অবস্থানকাল জানতে পারি। বর্তমানের তথ্য অনুযায়ী Mitochondrial Eve অবস্থানকাল ছিল এখন থেকে প্রায় ১৯০,০০০-২০০,০০০ বছর আগের পৃথিবীতে। সংক্ষেপে, বিজ্ঞানে নামাঙ্কিত এই Y-MRCA-আদম ও Mitochondrial ইভ:

(১) ধর্ম-গ্রন্থে বর্ণিত আদম-হাওয়া নয়
(২) তাদের মধ্যে সময়ের ব্যবধান কমপক্ষে ৫০,০০০ বছর
(৩) M-ইভ আগে, Y-আদম পরে।

একটি অসাধারণ ভিডিওWhat Darwin never Knew                         

[কুরানের উদ্ধৃতিগুলো সৌদি আরবের বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ (হেরেম শরীফের খাদেম) কর্তৃক বিতরণকৃত বাংলা তরজমা থেকে নেয়া; অনুবাদে ত্রুটি-বিচ্যুতির দায় অনুবাদকারীর।]

(চলবে)

blog comments powered by Disqus