১৩ জুন, ২০১২

ইসলামী ইতরামি


১.
ব্রিটেনে সাম্প্রতিককালে কমবয়সী ব্রিটিশ বালিকাদের ওপরে ছলে-বলে যৌননিপীড়ন ও ক্ষেত্রবিশেষে যৌনব্যবসায় বাধ্য করার দায়ে অভিযুক্তদের সকলেই কেন যে মুসলিম, সে এক রহস্য। অজস্র উদাহরণের একটি। 
(লিংক: নাস্তিক আলী) 

২. 
বিবাহবহির্ভুত যৌনসম্পর্ক স্থাপনের অভিযোগে ২০ বছর বয়সী এক মেয়েকে পাথর ছুঁড়ে হত্যা করার রায় দিয়েছে সুদানের আদালত। ছহীহ ইছলামী বিচার। বলুন, সোবহানাল্লাহ।

৩. 
What if there is raki (traditional anisette drink) in paradise but not in hell, while there is Chivas Regal (scotch) in hell and not in paradise? - এই মর্মে একটি টুইটারের মাধ্যমে এক খ্যাতনামা মুসলিম পিয়ানোবাদক মমিনদের ধর্মানুনুভূতিতে নির্মম আঘাত হেনেছে বলে তাঁকে দাঁড় করানো হচ্ছে আদালতের মুখোমুখি। 

৪.
মেয়ের বয়স দশ? অবশ্যই সে বিবাহযোগ্যা। নবীজি তো নয় বছর বয়সী মেয়ের সঙ্গে সহবাস করেছে। তাই চৌদি মুফতি দশ বছর বয়সী মেয়ের বিয়ে করা হালাল ঘোষণা করতেই পারে। তাছাড়া বিয়ের উপযুক্ত বয়সসীমা বাড়ানোর পক্ষপাতীদের কঠোর সমালোচনাও করেছে সে। 

৫. 
ধর্মোন্মত্ত পিতা-মাতা নিজ হাতে হত্যা করেছে তাদের ১৭ বছর বয়সীকে কন্যাকে। ব্রিটেনবাসী এই মেয়ের অপরাধ ছিলো - অনৈসলামিক পোশাক পরিধান, ছেলেদের সঙ্গে কথা বলা... 
(লিংক: টোস্টার) 

৬. 
'শিক্ষালাভের জন্য সুদূর চীন পর্যন্ত যাও' - এমন কথা নবীজি বলেছিল বলে মমিনেরা দাবি করে ইছলামের শিক্ষাভীতি চাপা দেয়ার চেষ্টা করে থাকে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, অমন বাণীর অস্তিত্ব কোরান-হাদিসে নেই। ভুয়া একটা প্রচার মাত্র। প্রকৃত শিক্ষার আলো ইসলামী নূর দূরীভূত করে দেয় এবং, সবচেয়ে বড়ো কথা, নারীদেরকে শিক্ষিত করে। তাই ইছলামী ষণ্ডদের ক্ষোভ বালিকা বিদ্যালয়গুলোর ওপরেই বেশি।
(লিংক: হযরত নালায়েক)

৭. 
বিয়ের অনুষ্ঠানে একসঙ্গে নাচ-গান করার অপরাধে চার নারী ও দুই পুরুষকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে ইসলামে আকণ্ঠ নিমজ্জিত দেশ ফাকিস্তানে। 
(লিংক: হযরত নালায়েক) 

৮. 
শিশুকামপ্রবৃত্তি ছহীহ উপায়ে চরিতার্থ করতে চাইলে ইছলামগ্রহণই সঠিক পথ। হয়তো সেটাই ভেবেছিল ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম বনে যাওয়া ইব্রাহিম এলাহি। কিন্তু তার জন্যে দুঃখের কথা এই যে, বাংলাদেশের আইন আর ইছলামী আইন-রীতি-ঐতিহ্য এক নয়। তাই সে ১০ বছর বয়সী আদিবাসী শিশু সুজাতা চাকমাকে ধর্ষণ করে হত্যা করার পরে গ্রেপ্তার হয়। সুজাতা চাকমার দু'টি মর্মবিদারী ছবি দেখুন।
(লিংক ও ছবি: টোস্টার)

৯. 
ইছলামী জোশে বলীয়ান মমিনেরা তাঞ্জানিয়ার জানজিবারে দুটো চার্চে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। 

১০. 
কাফেরদের দেশে গিয়ে মসজিদ নির্মাণসহ ধর্মচর্চার সমস্ত সুযোগ আদায় করতে না পারলে মুসলিমরা উচ্চকণ্ঠ হয় বটে, তবে মুসলিম দেশে অন্য ধর্মগুলোর চর্চা ব্যাহত বা বিড়ম্বিত করতে তারা সদা সক্রিয়। ইন্দোনেশিয়ায় এক চার্চের রীতিসিদ্ধ ধর্মপালনে বাধা দিতে মুসলিমরা প্রথমে প্রবল শব্দদুষণের আয়োজন করে। এর পরেও কাফেররা নিরস্ত না হলে তাদের ওপরে বর্ষণ করা হচ্ছে মূত্র, নর্দমার ময়লা, ব্যাঙ। সে দেশের মমিন পুলিশেরা সঙ্গত কারণেই নিষ্ক্রিয়।

১১. 
পৃথিবীজুড়ে অসংখ্য মসজিদের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদের প্রত্যক্ষ যোগাযোগ। এ প্রসঙ্গে পূর্ব লন্ডনের একটি মসজিদ সম্পর্কিত সাম্প্রতিক ভিডিও-রিপোর্ট।

১২. 
গত পাঁচ বছরে অসংখ্য চেচেন নারীর পরিত্যাক্ত লাশ পাওয়া গেছে গ্রোজনির বনে, পথে-ঘাটে। চেচেন প্রেসিডেন্ট রামজান কাদিরভ বলেছে, এরা ছিলো দুশ্চরিত্রা নারী এবং তাদেরকে খুব ন্যায়সঙ্গত কারণে হত্যা করেছে তাদের আত্মীয়স্বজনেরা। সে আরও বলেছে, নারীরা তাদের স্বামীদের সম্পত্তি। সুবহানাল্লাহ। একেবারে ছহীহ ইছলামী বাণী। 

১৩.
গত মে মাসে বিশ্বজুড়ে ইসলামী জিহাদীরা আক্রমণ করেছে ১৮৫ বার (অর্থাৎ দিনে গড়ে ছয়বার), হত্যা করেছে ৯৩৫ জনকে (অর্থাৎ দিনে তিরিশজনেরও বেশি), ভয়াবহভাবে আহত করেছে ২২৩৫ জনকে। আলহামদুলিল্লাহ। বিস্তারিত দেখুন এখানে

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন