৩০ মে, ২০১৫

ফাতেমা দেবীর ফতোয়া - ১৩

লিখেছেন ফাতেমা দেবী (সঃ)

৬১.
যে লোক ৫৩ বছর বয়েসে ৬ বছরের শিশুকে বিয়ে করতে পারে, যে লোক পুত্রবধূকে বিয়ে করতে পারে, যে লোক নিজে দাসী-সম্ভোগ করে তার অনুসারীদের জন্যও তা হালাল করে দিয়ে যেতে পারে, যে লোক স্ত্রীদেরকে পেটাতে বলতে পারে, যে লোক চোরের হাত কেটে দিতে উপদেশ দিতে পারে, যে লোক প্রেমিক-প্রেমিকাকে পাথর ছুঁড়ে হত্যা করতে বলতে পারে, যে লোক অমুছলিম মেয়েদের সম্ভোগ ক'রে তার অনুগামীদেরও তা করতে উৎসাহ দিয়ে যেতে পারে, সে লোক কি কখনো খারাপ লোক হতে পারে?

৬২.
কুত্তা নাপাক। নাপাক কুত্তারে যে বানাইসে সে নাপাকের আব্বাজান।

৬৩.
আল্লাহ, যিনি উর্ধ্বদেশে স্থাপন করেছেন আকাশমন্ডলীকে স্তম্ভ ব্যতীত। তোমরা সেগুলো দেখ। অতঃপর তিনি আরশের উপর অধিষ্ঠিত হয়েছেন। (কোরান ১৩:২)

য়াল্ল্যার কাছে কুনু বাঁশ ছিল না। তাই আকাশমণ্ডলীতে স্তম্ভ দিতে পারেননি। তোমরা তো সেগুলো দেখো। দ্যাখো কি না? অতঃপর তিনি নিজে নিজে আরশের উপরে অধিষ্ঠিত হয়েছেন( আরশের উপরে অধিষ্ঠিত হয়েছেন তিনি আরশের নিচে নয় কিন্তু, খিয়াল থাকে যেনো)।

৬৪.
একদিন নবীজিরে উষ্টালাথি না দিলে মনে-দিলে শান্তি পাই না। ইছলাম যে শান্তির ধর্ম এটাই তার প্রমাণ।

৬৫.
আমাদের নবীগিকে কিছু কিছু মানুষ খালি শান্তিকামী বলে। বলি, আমাদের নবীগি কি শুধুই শান্তিকামী ছিলেন? আর কিছু কামী ছিলেন না? তিনি তো আরো অনেককিছু কামী ছিলেন। যেমন, শিশুকামী (আয়শার সহিত কাম), পুত্রবধূকামী (পুত্রবধূ যয়নাবের সহিত কাম), ভাতিজীকামী (ভ্রাতৃতুল্য বন্ধু ওমর ফারুকের কন্যা হাফসার সহিত কাম), খালাম্মাকামী (খাদিজা খালার সহিত কাম) ইত্যাকার সব্যসাচী কামী ছিলেন। তাই বলছি, আমাদের নবীগিকে শুধু শান্তিকামী বলে তাকে অবমাননা করবেন না। আমার খুব দুঃখ লাগে কিন্তুক।

অবিস্মরণ: থাবা বাবা, অভিজিৎ রায়, ওয়াশিকুর বাবু, অনন্ত বিজয় - ০৬

I am Avijit - আমিই অভিজিৎ-এর জন্য বানিয়েছেন সামিনা চৌধুরী এ্যানি




জাকির নায়েক - আল্লাহ, নাকি প্রতারক?

লিখেছেন সমকোণী বৃত্ত

অনেকেই, দেখছি, জাকির নায়েককে অনেক অনেক বড় কিছু মনে করে। আমি তাকে আরো বড় মনে করি - একেবারে আল্লার মতো বড়। বিশ্বাস হচ্ছে না তো?

আসুন, প্রমাণ করি - জাকির নায়েকই আল্লাহ!

জাকির নায়েক তার লেকচারে সমগ্র মানবজাতিকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, সমগ্র কুরানে একটা সিঙ্গেল আয়াতেও ভুল নেই। এবং তিনি কুরানের সকল আয়াতেরই ব্যাখ্যা জানেন এবং যুক্তিপূর্ণ (তার এবং তার সাপোর্টারদের মতে যুক্তিপূর্ণ) ব্যাখ্যা দিয়ে থাকেন।

এবার আসুন, দেখি, কুরান কী বলে।
তিনিই আপনার প্রতি কিতাব নাযিল করেছেন। তাতে কিছু আয়াত রয়েছে সুস্পষ্ট, সেগুলোই কিতাবের আসল অংশ। আর অন্যগুলো রূপক। সুতরাং যাদের অন্তরে কুটিলতা রয়েছে, তারা অনুসরণ করে ফিৎনা বিস্তার এবং অপব্যাখ্যার উদ্দেশে তন্মধ্যেকার রূপকগুলোর। আর সেগুলোর ব্যাখ্যা আল্লাহ ব্যতীত কেউ জানে না। আর যারা জ্ঞানে সুগভীর, তারা বলেনঃ আমরা এর প্রতি ঈমান এনেছি। এই সবই আমাদের পালনকর্তার পক্ষ থেকে অবতীর্ণ হয়েছে। আর বোধশক্তি সম্পন্নেরা ছাড়া অপর কেউ শিক্ষা গ্রহণ করে না।
(সূরা আল ইমরান, আয়াত ৭)
খেয়াল করুন:
আর সেগুলোর ব্যাখ্যা আল্লাহ ব্যতিত কেউ জানে না।
তাহলে তিনি কীভাবে সমগ্র কুরানের ব্যাখ্যা জানেন? 

আবার তিনি এটাও বলেন, "কেউ কুরানের সিঙ্গেল আয়াতেরও ভুল বের করতে পারবে না।" 

কেউ একটা সিঙ্গেল আয়াতের ভুল ধরলে তিনি সেই সিঙ্গেল আয়াতেরও ব্যাখ্যা দিয়ে সেটাকে 'শুদ্ধ' প্রমাণ করেন। আর এভাবে প্রতিটা সিঙ্গেল আয়াত মিলেই তো পুরো কুরান, তাই না? তো এভাবে প্রতিটা সিঙ্গেল আয়াতের ব্যাখ্যা দিতে দিতে পুরো কুরানেরই ব্যাখা দিয়ে ফেলেছেন তিনি।

অথচ আল্লাহ নিজেই বলেছেন, এটা আল্লাহ ছাড়া সম্ভব নয়।

অতএব প্রমাণিত হল, জাকির নায়েকই আল্লাহ। 

নয়তো প্রতারক।

* এই পোস্টটি জাকির নায়েকের ভক্তদের উৎসর্গ করলাম।

২৯ মে, ২০১৫

একটি নিরীহ ছবি


খন্দক যুদ্ধ -৩: সালমান ফারসীর উপাখ্যান!: কুরানে বিগ্যান (পর্ব- ৭৯): ত্রাস, হত্যা ও হামলার আদেশ – তেপ্পান্ন

লিখেছেন গোলাপ

পর্ব ১ > পর্ব ২ > পর্ব ৩ > পর্ব ৪ > পর্ব ৫ > পর্ব ৬ > পর্ব ৭ > পর্ব ৮ > পর্ব ৯ > পর্ব ১০ > পর্ব ১১ > পর্ব ১২ > পর্ব ১৩ > পর্ব ১৪ > পর্ব ১৫ > পর্ব ১৬ > পর্ব ১৭ > পর্ব ১৮ > পর্ব ১৯ > পর্ব ২০ > পর্ব ২১ > পর্ব ২২ > পর্ব ২৩ > পর্ব ২৪ > পর্ব ২৫ > পর্ব ২৬ > পর্ব ২৭ > পর্ব ২৮ > পর্ব ২৯ > পর্ব ৩০ > পর্ব ৩১ > পর্ব ৩২ > পর্ব ৩৩ > পর্ব ৩৪ > পর্ব ৩৫ > পর্ব ৩৬ > পর্ব ৩৭ > পর্ব ৩৮ > পর্ব ৩৯পর্ব ৪০ > পর্ব ৪১ > পর্ব ৪২ > পর্ব ৪৩ > পর্ব ৪৪ > পর্ব ৪৫ > পর্ব ৪৬ > পর্ব ৪৭ > পর্ব ৪৮ > পর্ব ৪৯ > পর্ব ৫০ > পর্ব ৫১ > পর্ব ৫২ > পর্ব ৫৩ > পর্ব ৫৪ > পর্ব ৫৫ > পর্ব ৫৬ > পর্ব ৫৭ > পর্ব ৫৮ > পর্ব ৫৯ > পর্ব ৬০ > পর্ব ৬১ > পর্ব ৬২ > পর্ব ৬৩ > পর্ব ৬৪ > পর্ব ৬৫ > পর্ব ৬৬ > পর্ব ৬৭ > পর্ব ৬৮ > পর্ব ৬৯ > পর্ব ৭০ > পর্ব ৭১ > পর্ব ৭২ > পর্ব ৭৩ > পর্ব ৭৪ > পর্ব ৭৫ > পর্ব ৭৬ > পর্ব ৭৭ > পর্ব ৭৮

সালমান ফারসী নামের এক অনুসারীর পরামর্শে স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) ও তাঁর অনুসারীরা মদিনার উত্তর দিকে কীভাবে খন্দক খনন করেছিলেন; খন্দকটি তারা কোথা থেকে কোথায় সংযোগ করেছিলেন; মুহাম্মদের নেতৃত্বে মুসলমান বাহিনী, আবু সুফিয়ান ইবনে হারবের নেতৃত্বে কুরাইশ বাহিনী এবং ইউয়েনা বিন হিসন, আল-হারিথ বিন আউফ ও মিসা'র বিন রুখায়েলার নেতৃত্বে ঘাতাফান বাহিনী যুদ্ধক্ষেত্রের কোথায় অবস্থান নিয়েছিলেন; মদিনার তিনটি সম্পদশালী ইহুদি গোত্রের দুইটিকে মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা জোরপূর্বক বিতাড়িত করার পর একমাত্র অবশিষ্ট বনি কুরাইজা গোত্রের অবস্থান কোথায় ছিল - ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের বিস্তারিত আলোচনা আগের পর্বে করা হয়েছে। 

খন্দক খননের মাধ্যমে শত্রুর আক্রমণ মোকাবেলা করার কৌশল তৎকালীন আরবের লোকেরা জানতেন না। মুহাম্মদও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না।

কিন্তু পারস্যবাসীরা তা জানতেন। শত্রু-কবলিত হওয়ার আশংকা কালে প্রয়োজনবোধে তারা এই প্রতিরক্ষা কৌশলটি অবলম্বন করতেন। সালমান ফারসীর 'খন্দক খনন পরামর্শ ও তার বাস্তবায়নের' মাধ্যমে মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা খন্দক যুদ্ধে তাদের সম্ভাব্য চরম বিপর্যয় এড়াতে সক্ষম হয়েছিলেন।

কে এই সালমান ফারসী?

মুহাম্মদ ইবনে ইশাক "কীভাবে সালমান মুসলমান হয়েছিলেন (How Salman became a Muslim)" শিরোনামে সালমান ফারসীর উপাখ্যান লিপিবদ্ধ করেছেন। 

মুহাম্মদ ইবনে ইশাকের (৭০৪-৭৬৮ সাল) সেই বর্ণনার সংক্ষিপ্তসার: [1]

আবদুল্লাহ বিন আব্বাসের কাছ থেকে প্রাপ্ত মাহমুদ বিন লাবিদের তথ্যের ভিত্তিতে, আসিম বিন উমর বিন কাতাদা আল-আনসারি আমাকে [মুহাম্মদ ইবনে ইশাক] যা বর্ণনা করেছেন:

সালমানের নিজের বর্ণনায় আমি [আবদুল্লাহ বিন আব্বাস] যা শুনেছি তা হলো,

“আমার আদি নিবাস ছিল পারস্যের [বর্তমান ইরান] ইস্পাহান প্রদেশের জেয়য়ি (Jayy) নামক গ্রামে। আমার পিতা ছিলেন ঐ গ্রামের প্রধান জোতদার (land owner), তার কাছে আমি ছিলাম পৃথিবীর সবচেয়ে প্রিয় মানুষ। আমার প্রতি তাঁর স্নেহ এত গভীর ছিল যে, তিনি আমাকে সর্বদাই বাড়ির ভেতরে রাখতেন, যেন আমি ছিলাম এক ক্রীতদাস।

আমি প্রবল আগ্রহে পারস্য পুরোহিতদের মত ‘পবিত্র অগ্নিশিখা’ জ্বালিয়ে রাখার কাজে নিজেকে এমনভাবে নিয়োজিত করেছিলাম যে, আমি এক মুহূর্তের জন্যও অগ্নি নির্বাপিত হতে দিতাম না।

আমার পিতা ছিলেন এক বিশাল কৃষি ফার্মের মালিক। একদিন যখন তিনি তাঁর ফার্মে উপস্থিত হতে পারেননি, তিনি তখন আমাকে সেখানে যেতে বলেন ও এ বিষয়ে জ্ঞান লাভের চেষ্টা করতে বলেন। এ ব্যাপারে তিনি আমাকে কিছু নির্দেশ দেন। 

তিনি বলেন, ‘ওখানকার কাজে নিজেকে বেশিক্ষণ আটকে রাখবে না, কারণ তুমি আমার কাছে এই ফার্মের চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ; তাতে তোমাকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আমার কাজের ব্যাঘাত হবে।’

তাই আমি ফার্মে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হই। যখন আমি একটি খ্রিষ্টান চার্চের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলাম, আমি সেখানকার লোকদের প্রার্থনার শব্দ শুনতে পাই। আমি তাদের সম্পর্কে কিছুই জানতাম না, কারণ আমার পিতা আমাকে বাড়ি থেকে বের হতে দিতেন না।

তাদের প্রার্থনার শব্দ শোনার পর তারা কী করছে তা দেখার জন্য আমি সেখানে যাই। তাদের প্রার্থনা আমাকে তৃপ্ত করে ও আমি তাদের উপাসনায় আকৃষ্ট হয়ে পড়ি এবং আমার মনে হয়, তাদের ধর্ম আমাদের ধর্মের চেয়ে উত্তম। আমি সিদ্ধান্ত নিই, সূর্যাস্তের আগে আমি তাদেরকে ছেড়ে চলে যাব না। তাই আমার আর ফার্মে যাওয়া হয় না।

যখন আমি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করি যে, তাদের ধর্মের উৎস স্থান কোথায়, তারা বলে, 'সিরিয়া'।

আমি আমার পিতার কাছে ফিরে আসি। তিনি আমাকে খোঁজার জন্য লোক পাঠিয়েছিলেন ও আমার জন্য এমন দুশ্চিন্তায় ছিলেন যে, তাঁর সারাদিনের সমস্ত কাজে ব্যাঘাত ঘটেছিল। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করে জানতে চান, আমি কোথায় ছিলাম। তাঁর নির্দেশ পালন না করার জন্য তিনি আমাকে বকাবকি করেন। 

আমি তাকে জানাই যে, চার্চে প্রার্থনারত কিছু লোকের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তা দেখে তাদের ধর্মের প্রতি আমি এতই মুগ্ধ হয়ে পড়ি যে, সূর্যাস্ত পর্যন্ত আমি তাদের সঙ্গেই সময় কাটাই।

তিনি বলেন, 'বৎস, ঐ ধর্ম ভাল নয়; তোমার পূর্বপুরুষের ধর্ম তার চেয়ে ভাল।'

আমি বলি, 'না! তাদের ধর্ম আমাদের ধর্মের চেয়ে ভাল।'

আমি কী করবো, তা ভেবে আমার পিতা শঙ্কিত হয়ে পড়েন, তাই তিনি আমার পায়ে শেকল বেঁধে বাড়িতে বন্দী করে রাখেন।

আমি ঐ খ্রিষ্টানদের কাছে খবর পাঠিয়ে জানতে চাই, কখন সিরিয়া থেকে খ্রিষ্টান বণিকদের কাফেলা আসবে। তারা তা আমাকে জানায় এবং আমি তাদেরকে বলি:

'যখন তারা তাদের ব্যবসার কাজ শেষ করে নিজ দেশে ফিরে যেতে চাইবে, তখন তাদের জিজ্ঞাসা করে দেখবেন, তারা আমাকে তাদের সঙ্গে নিয়ে যাবে কি না।'

তারা তা-ই করে। আমি আমার পায়ের শেকল ছিঁড়ে তাদের সাথে সিরিয়ার উদ্দেশে রওনা হই।

সেখানে পৌঁছার পর আমি জানতে চাই, তাদের ধর্মের সবচেয়ে জ্ঞানী ব্যক্তিটি কে; তারা তাদের বিশপের [উচ্চপদস্থ খ্রিষ্টীয় যাজক] প্রতি আমাকে নির্দেশ করে। আমি তার কাছে গমন করি ও তাকে বলি যে, তাদের ধর্ম আমার পছন্দ এবং আমি তার সঙ্গে থেকে গির্জায় সাহায্য, ধর্ম শিক্ষা ও প্রার্থনা করতে আগ্রহী। সে আমাকে ভিতরে ঢোকার আমন্ত্রণ করে ও আমি তা-ই করি।

তবে সে ছিল অসৎ প্রকৃতির লোক। সে ভক্তদের হুকুম করতো দান-খয়রাত করতে ও এই কাজে তাদের রাজি করাতো। যখন ভক্তরা তার কাছে টাকা-পয়সা নিয়ে আসতো, তখন সে তা গরীবদের মধ্যে বিতরণ না করে নিজের ভাণ্ডারে জমা করতো। এভাবে সে সাত ভাণ্ড (jar) ভর্তি সোনা ও রূপা মজুত করে।

এই দৃশ্য অবলোকন করার পর তার প্রতি আমার প্রচণ্ড ঘৃণা জন্মে। কিছুদিন পর যখন সে মারা যায় ও খ্রিষ্টানরা তাকে সমাহিত করার জন্য একত্রে জড়ো হয়, আমি তাদেরকে তার অসৎ কর্মের খবর জানাই।

তারা আমাকে জিজ্ঞাসা করে জানতে চায়, কীভাবে আমি এই খবরগুলো জানতে পেরেছি। আমি তাদেরকে তার অর্থ-ভাণ্ডারের (Treasure) কাছে নিয়ে যাই ও জায়গাটি দেখাই। তারা সেখান থেকে সাত ভাণ্ড সোনা ও রূপা উদ্ধার করে।

সেগুলো প্রত্যক্ষ করা মাত্র তারা বলে,

'খোদার কসম, আমরা এই লোককে কখনো সমাধিস্থ করবো না’; তারা তাকে ক্রুশবিদ্ধ করে ও তার ওপর পাথর নিক্ষেপ করে। এরপর তারা নতুন বিশপ নিয়োগ করে।

আমি এমন কোনো অ-মুসলিমকে দেখিনি, যে এই লোকটির [নব-নিযুক্ত বিশপ] চেয়ে অধিক ধর্মচারী, তপস্বী, পরকালে ব্রতী ও দৃঢ়-সর্বদা। আমি তাঁর অনুরাগী হয়ে পড়ি। এর আগে আমি কখনো কারও অনুরাগী হইনি।

বহু বছর যাবত আমি তাঁর সাহচর্যে অবস্থান করি, যতদিনে না তাঁর মৃত্যুকাল উপস্থিত হয়। তাঁর প্রতি আমার কীরূপ শ্রদ্ধা ও ভালবাসা, তা তার মৃত্যুকালে আমি তাঁকে অবহিত করি ও তাঁর কাছে আমি জানতে চাই, তাঁর এই শেষ অবস্থায় তিনি আমাকে কার উপর আস্থা রাখার পরামর্শ দেবেন ও কী আদেশ মান্য করতে বলবেন।  

তিনি বলেন, 'বৎস, আমি এমন কাউকে জানি না, যে আমার মত। অধিকাংশ লোক তাদের আসল ধর্ম হয় বিকৃত করে অথবা বর্জন করে, ব্যতিক্রম হলো 'মওসিল (Mausil)' এর এক লোক; যে লোকটি আমার মতই বিশ্বাসী, তুমি নিজেকে তার সঙ্গে সম্পৃক্ত করো।'

তাই তার মৃত্যু ও সমাধিকর্ম সম্পন্ন করার পর, আমি নিজেকে মওসিলের বিশপের সাথে জড়িত করি। আমি তাকে বলি, অমুক লোক [আগের বিশপ], তাঁর মৃত্যুকালে আমাকে তার সন্ধান জানিয়েছেন। 

আমি তাঁর সঙ্গে অবস্থান করি ও আবিষ্কার করি যে, তাঁর সম্বন্ধে আমাকে যা যা বলা হয়েছিল, তা অক্ষরে অক্ষরে সত্যি। কিন্তু অচিরেই তাঁর মৃত্যুকাল উপস্থিত হয় ও আগের বিশপের মত তাঁর কাছেও আমি সেই একই প্রশ্ন করি।

তিনি জবাবে বলেন যে, 'নাসবিন (Nasibin)' নামক স্থানে একজন আছে, যে তাঁর মত একই পথ অনুসরণ করে; তিনি আমাকে তাঁর কাছে যাওয়ার সুপারিশ করেন।

(তারপর বিভিন্ন স্থানে একইরূপ ঘটনার পুনরাবৃত্তি; একইরূপ বাক্য প্রয়োগ ও বিস্তারিত বর্ণনা, পার্থক্য শুধু স্থানের নাম: মওসিল (Mausil), নাসবিন (Nasibin), আম্মূরিয়া (Ammuriya) ও অবশেষে মুহাম্মদ - তাই অনুবাদকারী তাঁর অনুবাদ সংক্ষিপ্ত করেছেন)

আমি নাসবিনের সেই ভাল লোকটির সাথে কিছুদিন অবস্থান করি। তার মৃত্যুর আগে তিনি আমাকে আম্মূরিয়ায় তার এক সহকর্মীর কাছে যাওয়ার সুপারিশ করেন।

আমি তার সাথে কিছুদিন অবস্থান করি ও নিজেকে শ্রমসাধ্য কাজে নিয়োজিত করার মাধ্যমে কিছু গবাদিপশু ও ছোট এক পাল ভেড়ার মালিক হই। তারপর যখন তাঁর মৃত্যুকাল উপস্থিত হয়, তিনি কোন লোকের সুপারিশ করেন কি না, আমি তা জিজ্ঞাসা করি।

তিনি বলেন, এমন কাউকে তিনি চেনেন না, যে তাঁর মতই জীবন অতিবাহিত করে; কিন্তু ইব্রাহিমের ধর্ম প্রচারের দায়িত্ব নিয়ে শীঘ্রই এক নবীর আবির্ভাব ঘটবে। তাঁর জন্ম হবে আরবে ও দেশান্তরিত হয়ে (migrate) তিনি যাবেন এমন এক দেশে, যার অবস্থান হবে দুই লাভা বেল্টের মাঝখানে ও যার মাঝখানে থাকবে পাম গাছ (তালজাতীয় বৃক্ষ)। 

যে চিহ্নের সাহায্যে তাঁকে অভ্রান্ত ভাবে চেনা যাবে তা হলো:

১) তাঁকে কোনো কিছু খাবারের জন্য দেয়া হলে তা তিনি ভক্ষণ করবেন; তবে
২) তাঁকে কোনো দানসামগ্রী (Alms) দেয়া হলে তা থেকে তিনি কিছুই নেবেন না; আর
৩) তাঁর দুই স্কন্ধের মাঝখানে থাকবে নবুয়তের সীল। [পর্ব: ৪৬]।

'যদি তুমি সক্ষম হও, তবে সেই দেশে গমন করো।'

(“He told me that he knew of no one who followed his way of life, but that a prophet was about to arise who would be sent with the religion of Abraham; he would come forth in Arabia and would migrate to a country between two lava belts, between which were palms. He has unmistakable marks. He will eat what is given to him but not things given as alms. Between his shoulders is the seal of prophecy.  ‘If you are able to go to that country, do so.’”) 

তার মৃত্যুর পর আল্লাহর যতদিন ইচ্ছা ছিল ততদিন আমি আম্মূরিয়ায় অবস্থান করি। এরপর কালবাইট (Kalbite) গোত্রের বণিকদের একটি দল আমাদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আমি তাদেরকে জিজ্ঞাসা করি, আমার মালিকানাধীন গবাদি-পশু ও ভেড়ার পালের বিনিময়ে তারা আমাকে তাদের সঙ্গে আরবে নিয়ে যেতে রাজি কি না। [2]

আমার সেই প্রস্তাবে তারা রাজি হয় ও আমি তাদের সঙ্গে আরবের উদ্দেশে যাত্রা করি। কিন্তু ওয়াদি'ল কুরা (Wadi’l Qura) নামক স্থানে পৌঁছার পর তারা আমাকে এক ইহুদির কাছে দাস হিসাবে বিক্রি করে দেয়।

আমি অনেকগুলো পাম গাছ দেখি ও আশা করি, হয়তো এইটিই সেই শহর, যার বর্ণনা আমার গুরু (Master) আমাকে দিয়েছিলেন, কিন্তু আমি নিশ্চিত ছিলাম না। 

অতঃপর মদিনার বানু-কুরাইজা গোত্রের অন্তর্ভুক্ত আমার মনিবের এক জ্ঞাতি ভাই (cousin) আমাকে কিনে নেয় ও মদিনায় নিয়ে আসে। আল্লাহর কসম, এই জায়গাটি দেখামাত্র আমার গুরুর বর্ণনা মতে আমি তা চিনতে পারি।

আমি সেখানেই বসবাস করি, আর আল্লাহ নবী প্রেরিত হন ও বসবাস করেন মক্কায়। কিন্তু আমি তার কোন খবর জানাতাম না, কারণ আমি সম্পূর্ণরূপে দাসত্বের বন্ধনে আবদ্ধ।  অতঃপর তিনি মদিনায় হিজরত করেন।

আমার মনিবের এক পাম গাছের চুড়ায় যখন আমি কাজে নিয়োজিত ছিলাম ও আমার মনিব ঐ গাছের নিচে বসেছিলেন, তখন হঠাৎ মনিবের এক জ্ঞাতিভাই (Cousin) তার কাছ এসে বলে, 

'বানু কেইলার (‘Qayla’) উপর আল্লাহর গজব পড়ুক! তারা এই মুহূর্তে কুবায় ('Quba') এক লোককে ঘিরে সমবেত হয়েছে, লোকটি আজকে মক্কা থেকে এসেছে ও দাবি করছে যে, সে একজন নবী।' [3]

আমি তা শুনতে পেয়ে থরথর করে কেঁপে উঠি, আমার মনে হয়, আমি মনিবের ওপর পড়ে যাব। আমি পাম গাছ থেকে নিচে নামি ও তার জ্ঞাতিভাই কে বলা শুরু করি,

'কী বললে? কী বললে তুমি?"

আমার মনিব ভীষণ ক্ষেপে ওঠেন ও আমাকে একটা ঘুষি দিয়ে বলেন, 'এর দ্বারা তুই কী বুঝাতে চাস? তুই তোর কাজে যা?'

আমি বলি, 'কিছু মনে করবেন না, আমি শুধু এই খবরের সত্যতা জানতে চাচ্ছিলাম।'

আমার কাছে সামান্য কিছু খাবার ছিল, যা আমি সংরক্ষণ করেছিলাম। সেই সন্ধ্যায় তা নিয়ে আমি আল্লাহর নবীর কাছে গমন করি; তিনি তখন কুবায়। আমি তাঁকে বলি, 'আমি শুনেছি যে আপনি একজন সৎ মানুষ ও আপনার সহচররা অপরিচিত বিদেশী। এখানে কিছু দানসামগ্রী আছে ও আমি মনে করি, এর ওপর আপনার দাবি অন্যদের চেয়ে বেশি।'

তারপর আমি তাকে সেটা দিই। আল্লাহর নবী তাঁর সহচরদের বলেন, 'খাও!', কিন্তু তিনি নিজে তাতে তাঁর হাত লাগালেন না ও তার কিছুই খেলেন না। আমি নিজেকে বলি, 'এটি হলো এক।'

তারপর আমি আল্লাহর নবীর কাছ থেকে চলে আসি ও কিছু খাবার সংগ্রহ করি। অত:পর তা আমি তার কাছে নিয়ে আসি ও বলি, 'আমি দেখেছি যে আপনি দানসামগ্রী খাদ্য থেকে কিছুই খান না; এখানে কিছু খাবার আছে, যা আমি স্বেচ্ছায় আপনাকে দিলাম।' আল্লাহর নবী তা খেলেন ও তাঁর অনুসারীদেরও কিছু দিলেন। আমি মনে মনে বলি, 'এই হলো দুই!' 

তারপর আমি আল্লাহর নবীর কাছে আবার আসি, তখন তিনি ছিলেন ‘বাকি উল-ঘারকাদ ('Baqi`u-'l-Gharqad')’; যেখানে তিনি তাঁর এক সহচরের লাশের কফিন বহনকারী লোকদের অনুসরণ করছিলেন। [4]

যখন তিনি তাঁর সহচরদের সাথে বসেছিলেন, আমি তাঁকে সালাম করি ও তাঁর পিছন দিকে এসে তাঁর পিঠের 'সীল' দেখার চেষ্টা করি; যার বর্ণনা আমার গুরু আমাকে দিয়েছিলেন।  

যখন আল্লাহর নবী দেখতে পান যে আমি তার পিঠ দেখার চেষ্টা করছি, তিনি বুঝতে পারেন যে আমি সত্যকে জানার চেষ্টা করছি। তাই তিনি তাঁর চাদরটি ফেলে দেন ও তাঁর পৃষ্ঠদেশ অনাবৃত রেখে শুয়ে পড়েন। তার পিঠের সীলটি দেখে আমি তা চিনতে পারি।

তারপর আমি তাঁর দিকে ঝুঁকে পড়ি, তাঁকে চুম্বন করি ও কাঁদতে থাকি।

আল্লাহর নবী বলেন, 'এখানে এসো।'

আমি তাঁর সামনে এসে বসে পড়ি ও আমার ঘটনাগুলো তাঁকে খুলে বলি; যা আমি তোমাকে শোনাচ্ছি, হে ইবনে আব্বাস।

আল্লাহর নবী চাইতেন যে, আমার জীবনের ঘটনাগুলো তাঁর সহচররা শুনুক।"

তারপর,

মুহাম্মদের পরামর্শে সালমান তার ইহুদি মনিবের সাথে 'মুক্তিপণের' ব্যাপারে এই চুক্তিতে রাজি হন যে, তিনি ৩০০ টি গর্ত খুঁড়ে সেখানে তার মনিবের জন্য ৩০০টি পাম-গাছ লাগিয়ে দেবেন; এবং আরও দেবেন ৪০ ওকিয়া (okes/Uqiyahs) সোনা। মুহাম্মদ ও তাঁর অনুসারীরা সালমানকে এ ব্যাপারে সাহায্য করেন। সেই 'মুক্তিপণের' বিণিময়ে সালমান হন দাসত্ব-মুক্ত, এক মুক্ত মানুষ। [5]

দাসত্বের কারণে সালমান বদর ও ওহুদ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে পারেন নাই। দাসত্বে মুক্ত হয়ে মুক্ত মানুষ হিসাবে সালমান খন্দক যুদ্ধেই প্রথম অংশ গ্রহণ করেন

- (অনুবাদ, টাইটেল, [**] ও নম্বর যোগ - লেখক)।

>>> A. GUILLAUME অনুদিত মুহাম্মদ ইবনে ইশাক রচিত ও ইবনে হিশাম সম্পাদিত 'সিরাত রাসুল আল্লাহ’ নামক ৬২১ পৃষ্ঠার মুহাম্মদের সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ জীবনীগ্রন্থে (Complete Biography) "নব্য মুসলমানদের ওপর কুরাইশদের অকথ্য অত্যাচারের উপাখ্যান" লিপিবদ্ধ আছে মাত্র আড়াই পৃষ্ঠা।

অন্যদিকে ঐ একই গ্রন্থে "কী ভাবে সালমান মুসলমান হয়েছিলেন" তার বর্ণনা লিপিবদ্ধ আছে চার পৃষ্ঠা ব্যাপী!

অর্থাৎ,

মুসলমানদের ওপর কুরাইশদের অকথ্য অত্যাচারের বর্ণনার চেয়ে সালমান ফারসীর মুসলমান হওয়ার বর্ণনা দেড়গুণেরও বেশি!

শুধু তাইই নয়, 'মদিনা সনদ' উপাখ্যানের মতই, মুসলমানদের ওপর কুরাইশদের অকথ্য অত্যাচারের বর্ণনায় ও মুহাম্মদ ইবনে ইশাক কোন তথ্য-সূত্রের (ইসনাদ) উল্লেখ করেননি। কিন্তু সালমান ফারসীর মুসলমান হওয়ার বর্ণনায় তিনি উদ্ধৃত করেছেন সু-নির্দিষ্ট তথ্য-সূত্র। (পর্ব: ৪৪-৪৫)

তা সত্ত্বেও,

কী কারণে সালমান ফারসীর উপাখ্যানের সাথে সাধারণ মুসলমানদের পরিচিতি “যৎসামান্য”; অথচ নব্য মুসলমানদের ওপর কুরাইশদের অকথ্য অত্যাচারের উপাখ্যান জগতের প্রায় প্রত্যেকটি ইসলাম বিশ্বাসী ও অনেক অবিশ্বাসীর "অতি পরিচিত” তার বিস্তারিত আলোচনা পর্ব: ৪৩-এ করা হয়েছে।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:

[1] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: মুহাম্মদ ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ:  A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা ৯৫-৯৮

[2] কালবাইট গোত্র: সম্ভবত, তারা আরবের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে বসবাস করতেন।

[3] 'বানু কেইলার (‘Qayla’):  জনসাধারণের পরিগণিত ধারণা এই যে, আউস ও খাজরাজ গোত্রের লোকেরা ছিলেন মাতা 'কেইলার' বংশধর’ (পর্ব-৪৬)। 'কেইলা' ছিলেন কাহিল বিন উধরা বিন সা"দ বিন যায়েদ বিন লেইথ বিন সু'দ বিন আসলাম বিন আল-হাফ বিন কুদাহর কন্যা (Ibid: ইবনে ইশাক- পৃষ্ঠা ৭১৩)।

[4] ‘বাকি উল-ঘারকাদ ('Baqi`u-'l-Gharqad')’: মদিনার এক কবরস্থান, যার অবস্থান ছিল শহরের বাহিরে।

[5] ওকিয়া (oke/Uqiyah): একটি সাধারণ মধ্যযুগীয় পণ্য ওজন পরিমাপ। এক ওকিয়া (oke/Uqiyah) = মোটামুটি এক আউন্স।

বেদ্বীনবাণী - ৩৯



২৮ মে, ২০১৫

অন্তঃসত্ত্বা হাতের ছবি

অবিয়াইত্যা (ও কিছু বিয়াইত্যা) ঈমানদাঁড় মোমিন ভাইয়েরা, খিয়াল কৈরা! উত্থিত ঈমানদণ্ডরে আপনারা কি দোয়া-দরুদ-সুরা পইড়া ঠাণ্ডা করেন? তাইলে অবশ্য কুনো সমিস্যা নাই। তয় ইহলৌকিক ও পারলৌকিক বেহেশতী হুরি-গেলমান কল্পনা কইরা হস্তের দ্বারস্থ হইতে হইলে সেইটা খালি বিশাল গুনাহ্ই না, আখেরে এর পরিণতিও ভয়াবহ।

ইহজীবনে হস্তমৈথুন করার মানে আখিরাতে আপনার হাত অন্তঃসত্ত্বা হইয়া পড়বে এবং জন্ম নেওয়া সন্তানরে অনন্তকাল ধইরা দেখাশুনা করতে বাধ্য হইবেন। 

ভাবতেসেন, মশকরা করতেসি? জ্বী না। এক তুর্কী ইছলামবাজ টিভিতে এক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠানে বলসে এই কথা। এক মুছলিম ফোন কইরা বলসিল, বউ থাকা সত্ত্বেও সে হস্তশিল্পের অনুরক্ত, এমনকি ওমরাহ করার সময়ও (নাউজুবিল্যা!) সে হস্তমৈথুনসুখ থেকে নিজেরে বঞ্চিত করতে ব্যর্থ হইসে।

এর উত্তরে মোল্লা ওই ভীতিজগানিয়া কথাগুলান কইসে।

খবরটা পড়ার পর থেকেই ভাবতেসিলাম, অন্তঃসত্ত্বা হাত দেখতে কেমন হইবো? কোনও আইডিয়া আসতেসিল না মাথায়। তখন একখান ছবি পাঠাইয়া সমাধান দিলেন সায়ন। 


আমি হইলে অবশ্য মোল্লারে পাল্টা কোচ্চেন করতাম, "কনডম পইরা নিয়া হাতের সাথে ভালোবাসাবাসি করলেও কি হাত প্রেগন্যান্ট হইবো?"

দুষ্টু যাজিকারা - ২০



ধর্মীয় প্রশ্নের ব্যাঙগানিক উত্তর - ১৯

[ফেইসবুকে একটা মজাদার পেইজ খোলা হয়েছে "ধর্মীয় প্রশ্নের ব্যাঙগানিক উত্তর" নামে। কেউ একজন একটা মজাদার, বিটকেলে বা আপাত নিরীহ প্রশ্ন করছে, আর অমনি অন্যেরা ঝাঁপিয়ে পড়ে সরবরাহ করছে সেটার বৈচিত্র্যময় ব্যাঙগানিক (ব্যঙ্গ + বৈজ্ঞানিক) উত্তর। 

সেই পেইজ থেকে নির্বাচিত প্রশ্নোত্তরের ধারাবাহিক সংকলন প্রশ্নকারী ও উত্তরদাতাদের নামসহ ধর্মকারীতে প্রকাশ করা হবে নিয়মিত। বলে রাখা প্রয়োজন, এই নির্বাচনটি একান্তভাবেই ধর্মপচারকের পছন্দভিত্তিক। ফলে ভালো কোনও প্রশ্নোত্তর আমার চোখ এড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা তো আছেই, তবে সবচেয়ে বেশি আছে অন্যদের সঙ্গে মতভেদের সম্ভাবনা। নিজ গুণে (ভাগে, যোগে, বিয়োগে) মাফ কইরা দিয়েন।]

১৮১.
- উগ্র নাস্তিক মানে কী? (সেক্যুলার ফ্রাইডে)
- যে নাস্তিক ভগবানেশ্বরাল্লাহ এবং তাদের চ্যালা নবী/অবতার/দেব-দেবীদের সর্বদা চাপাতি লইয়া দোড়ের উপ্রে রাখে। (ফাহিম আল হামিম)

১৮২.
- সাহাবী কাকে বলে? মুমিন মানে কী? সাহাবী আর মুমিনের মধ্যে পার্থক্য কী? (তুমবাজ চাকমা)
- একজন ব্যক্তি সরাসরি ছাগল দেখছে এবং অন্য ব্যক্তি ছাগলের কথা শুনছে। (রুহুল আমিন)

১৮৩.
- কারা প্রকৃত মুসলমান - ১. আইসিস, ২. তালেবান, ৩. বোকো হারাম, ৪. আল কায়েদা? (মোঃ জামসেদ হোসেন)
- মডারেট বাংলাদেশী মুসলমানরা। বাকিরা কেউ সহিহ নয়। (দাঁড়িপাল্লা ধমাধম)

১৮৪.
- দাড়িতে নাকি ৭০ জন ফেরেস্তা ঝুইলা দোল দোল খেলে। দাড়ি কাইটা ফালাইলে ফেরেস্তারা কই যায়? (বাঙাল চাষা)
- পিউবিক হেয়ার অর্থাৎ শ্রোণীকেশে। (রহমান বিবি)

১৮৫.
- আল্লার আরশ কী দিয়া তৈরি? কাঠ, ইট, বালু, সিমেন্ট, রড, বাঁশ, প্লাস্টিক, তামা, পিতল, সোনা, রুপা নাকি অন্য কিছু? (ফাহিম আল হামিম)
- চাপা দিয়া। (দাঁড়িপাল্লা ধমাধম)

১৮৬.
- আচ্ছা, বৌদ্ধধর্মে তো "জীবহত্যা মহাপাপ" বলে উল্লেখিত আছে… প্রশ্ন হইলো, কোনো বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীর চেতনাদণ্ডে যদি একখান মশা বসে… সেক্ষেত্রে তিনি কী করিবেন? (আজাদ ফেরদৌস)
- উহা দ্বারা ভালোবাসিবেন। (খাদিজা বেগম)

১৮৭.
- আল্লাহ কি স্বাধীন? (পুতুল হক)
- অসম্ভব, তিনি মুমিনদের অধীন। মুমিনরা না থাকলে তার তো অক্সিজেন সাপ্লাই-ই বন্ধ হইয়া যাইব। (রুদ্র রাসেল)

১৮৮.
- আচ্ছা বলুন তো, খাস মুমিন বান্দারা বাংলিশে লিখে কেন? (শহীদুজ্জামান সরকার)
- আরবীতে বাংলা লিখতে পারে না, তাই। (অনুসন্ধানী আবাহন)

১৮৯.
- মহোন্মাদের স্রষ্টা আল্লা, নাকি আল্লার স্রষ্টা মহোন্মাদ? (সুরমা মেহজাবিন)
- য়্যাল্লার স্রষ্টা মহাম্মদ না, মহাম্মদের স্বপ্নদোষ য়্যাল্লা। (মাসুম রহমান)

১৯০.
- ভূমিকম্প শুরু হলে হিন্দুরা উলু দিয়া শঙ্খ-ঘন্টা-কাঁসা বাজায় ক্যান? (অরূপ রত্নাকর)
- যে কারণে বিয়ের সময় উলুধ্বনি দেয়। আসলে দুইটাই দুর্ঘটনা তো! (ভাবের মানুষ)

আগের পর্বগুলো:

দ্বীনবানের দীন বাণী - ১৫


২৭ মে, ২০১৫

হজ্ব অপেক্ষা জিহাদ উত্তম

লিখেছেন সেক্যুলার ফ্রাইডে

হজ্বকে বলা হয় ইসলাম ধর্মের পঞ্চম স্তম্ভ এবং আর্থিক ও শারীরিকভাবে সক্ষম প্রতিটি মুসলমানের জন্য জীবনে অন্তত একবার হজ্ব করা ফরজ বলেই বিবেচিত। মরু-সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদ বেশ সুচারুরূপেই এই ধারণাটি মুসলমানদের মনে ঢুকিয়ে দিতে পেরেছে।

শুধুমাত্র ২০১২ সালেই হজ্ব ও উমরাহ মিলিয়ে সৌদি আরবের আয় ছিল এক হাজার ৬৫০ কোটি ডলারেরও বেশি, যা মোট জিডিপি'র প্রায় ৬ শতাংশ। গালফ নিউজ-এর সাম্প্রতিক বিশ্লেষণে অনুমান করা হয়েছে, হজ্বকেন্দ্রিক আর্থিক লেনদেনের পরিমাণ অন্তত তিন হাজার কোটি ডলার। বিজনেস মনিটর ইন্টারন্যাশনালের সমীক্ষা অনুসারে, হজ্বের সময় উপহারসামগ্রী ও স্মারক বেচাকেনার পরিমাণ অন্তত ১১০ কোটি ডলার। এসব সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে টুপি, তসবিহ, জায়নামাজ, স্কার্ফ, হিজাব ইত্যাদি।

বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর লক্ষাধিক হজ্বযাত্রী সৌদি আরবে যান; প্রতি জনে গড়ে ৩ লক্ষ টাকা ব্যয় নির্বাহ করলে এই খাতে মোট অর্থব্যয়ের পরিমান দাঁড়ায় ৩ হাজার কোটিরও বেশি, যা সম্পূর্ণ অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় হয়। দরিদ্র এই রাষ্ট্রের জন্য অযাচিত এই ব্যয়ভার বহন অত্যন্ত অযৌক্তিক ও অপ্রয়োজনীয়।

ইসলামকে শান্তির ধর্ম দাবি করা মুসলমানদেরা ধারণাই নেই যে, প্রকৃত মুসলমানের জন্য হজ্ব করার চাইতে জিহাদ করা অনেক, অনেক বেশি জরুরি; ইসলামের নামে ধর্মের ডাণ্ডাবেড়ির প্রবর্তক যুদ্ধবাজ নবীর প্রদর্শিত প্রকৃত পথ এটিই।

মুহাম্মদ নিজেই হজ্বের চাইতে যুদ্ধ বেশি করেছেন। নিচের হাদিসগুলোয় তার প্রমাণ মেলে।
রিয়াযুস স্বা-লিহীন, বই ১২, হাদিস ১৩৪১
হযরত আবু হুরাইরা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) বলেছেন: যে ব্যক্তি জিহাদ করেনি এবং জিহাদের কোন চিন্তাও তার অন্তরে আসেনি এমন অবস্থায় মারা গেল, তার মৃত্যু হলো নিফাকের (মুনাফেকীর) এক শাখার ওপর। (মুসলিম)
রিয়াযুস স্বা-লিহীন, বই ১২, হাদিস ১২৮৫
আবু হুরাইরা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা) কে জিজ্ঞেস করা হলো, কোন্ কাজটি উত্তম? তিনি বললেনঃ আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি ঈমান আনা। বলা হলোঃ তারপর কোনটি? তিনি বললেনঃ আল্লাহর পথে জিহাদ করা। বলা হলোঃ তারপর কোনটি। তিনি বললেনঃ ‘মাবরুর’ (আল্লাহর নিকট মকবুল) হজ্ব। (বুখারী ও মুসলিম)
সর্বোপরি নিচের হাদিসটি মুহাম্মদের যুদ্ধবাজ চরিত্র আরও স্পষ্ট করে তোলে...
সহিহ মুসলিম, বই ১৯, হাদিস ৪৪৬৫
আবু বাকর ইবন শায়বা (র)......যায়দ ইবন আরকাম (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, রাসুলুল্লাহ (সা) ঊনিশটি যুদ্ধ করেছেন । হিজরতের পর একটি মাত্র হজ্জ করেছিলেন, যেটি ছাড়া আর কোন হজ্জ করেননি তা হল বিদায় হজ্জ।
এরপরও মুসলমানেরা কেনই বা হজ্ব পাগল, আর কেনই বা নিজ দেশের অর্থ অকাতরে ভিনদেশে বিলিয়ে আসে, তা বোঝা সত্যিই দুষ্কর।

হা-হা-হাদিস – ১৩৪

লিখেছেন শ্রোডিঞ্জারের বিড়াল


ধি-আল-খালাসা ছিল ইয়েমেনের কাবা নামে পরিচিত, দাউস গোত্রের লোকেরা একে প্রার্থনা করতো। ইয়েমেনের ধি- আল-খালাসা নামক এই আইডল বহুকাল আগেই ধ্বংস ও নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে।

তাই ইয়েমেনের কোনো নারীরই একে ঘিরে পাছা দুলিয়ে নাচার কোনো সম্ভাবনা সদূরতম ভবিষ্যতেও নেই।

আর এ থেকে আমরা সিদ্ধান্তে আসতে পারি যে, তথাকথিত কেয়ামতও কোনোদিন হবার কোনো সম্ভাবনাই নেই। এটা হাদিস দ্বারাই প্রমাণিত।

হিন্দু পেটানোর ছহীহ কারণসমূহ

লিখেছেন শুভদীপ চন্দ

বাংলাদেশ একটি উদার গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক দেশ। এ দেশে কারণ ছাড়া হিন্দু পেটানো হয় না। কারণগুলো খোঁজার চেষ্টা করছি:

১. হিন্দু নার্স ইনজেকশন পুশ করার পর রোগী মারা গেলে

২. হিন্দুরা পূজার জন্য মূর্তি বানালে

৩. যুদ্ধাপরাধীর বিচারের রায় হলে

৪. কোন বুজুর্গ আলেমকে চাঁদে দেখা গেলে

৫. হিন্দুরা দল বেঁধে ভোট দিতে গেলে

৬. নব্বই শতাংশ মুসলিমের দেশে কোনো হিন্দু প্রধান বিচারপতি হলে

৭. ফেসবুকে কোনো হিন্দুকে ইসলাম অবমাননাকারী কিছু ট্যগ দিলে

৮. ভারতের সাথে খেলায় বাংলাদেশ হারলে

৯. হিন্দু মুসলিম প্রেমের বিয়েয় মেয়েটি যদি মুসলিম হলে

১০. ভারতে বাবরি মসজিদ ভাঙ্গলে

১১. ছোট ঘরের হিন্দু বাড়িতে সুন্দরী কুমারী মেয়ে থাকলে

১২. কোনো হিন্দুর প্রয়োজনের অতিরিক্ত ভূ-সম্পত্তি থাকলে

১৩. ইসরায়েল, আমেরিকাসহ পৃথিবীর যে কোনো প্রান্তে মুসলিম নির্যাতন হলে

১৪. বিশেষ বিশেষ দিবস ও বিশেষ বিশেষ উপলক্ষে

১৫. ‌ঈমান কমে গেলে ঈমানী দায়িত্ব হিসেবে

এছাড়াও বিশিষ্ট সম্পাদক, বুদ্ধিজীবী ও কবি সায়ীদ জামিল মনে করেন: 'সাতশ-আটশ বছর আগে সুলতানী শাসনের পূর্বে ভারতবর্ষে হিন্দু শাসন ছিল। সে প্রতিশোধ নিতে এখন টুকটাক হিন্দু পেটানো যেতেই পারে।'

২৬ মে, ২০১৫

গরুপূজারি গাধাগুলো - ১১৬

পাঠিয়েছেন আশীষ 


আল্যা-রাসুলের স্বরূপ

লিখেছেন শেখ মিলন

আল্লাহ সর্বশক্তিমান

(শুধু কোথাও কোথাও শয়তান আল্লাহকে হারিয়ে দেয় )

রাসুলের আঙুলের ইশারায় চাঁদ দ্বিখণ্ডিত হয়

(অথচ উহুদের যুদ্ধে শত্রু তার দাঁত ভেঙ্গে দেয়)

রাসুলকে সৃষ্টি করা হয়েছে বলেই মহাবিশ্বের সৃষ্টি হয়েছে

(অথচ ক্ষুদ্র একটি শহর থেকে শত্রুর ভয়ে রাতের আঁধারে তাঁকে পালিয়ে যেতে হয়)

আসনভেদে দোয়া-মোনাজাত-প্রার্থনার ফলাফল



২৫ মে, ২০১৫

বাঙালি মুসলমান মানস

লিখেছেন জুলিয়াস সিজার

১.
ফিলিস্তিনের মুসলমানের জন্য কাঁদতে-মুততে সাগর বয়ে যায়।
মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের জন্য কাঁদতে-মুততে মহাসাগর বয়ে যায়।
শুধু নিজ দেশ বাংলাদেশের অমুসলিমদের ওপরে সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের বিরুদ্ধে মুখ দিয়ে একটা স্রেফ একটা শব্দ বের হয় না।
ওখানে কাদের কথা বলা হচ্ছে? তারা কারা? তারা দেখতে কেমন?

উত্তর: দেখতে তারা মানুষের মতন। হাত, পা, নাক, চোখ, মুখ, কান সবই আছে, কিন্তু তারা মানুষ নয়। তারা হচ্ছে বাঙালি মুসলমান। মানুষের মতো দেখতে একটা জন্তু মাত্র। যাদের সবচেয়ে বড় পরিচয় - তারা সবার আগে মুসলমান। তাই তারা আগেভাগে মুসলমানদেরকেই খুঁজে নেয়। মানুষকে কখনোই নয়।

২.
হিন্দু এবং বৌদ্ধ ডাক্তার-নার্স যাঁরা আছেন, তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি:

গোপালগঞ্জের টুঙ্গি পাড়ায় হিন্দু ডাক্তার মুসলমান রোগীকে ইনজেকশন দিয়ে মেরে ফেলেছে গুজব ছড়িয়ে কী ধোলাইটি দিলো, দেখেছেন নিশ্চয়। 

এরপর নিজেরাও ধোলাই খাওয়ার আগে সতর্ক হোন। ডাক্তার, নার্স হয়েছেন তো কী হয়েছে? নামে তো মালাউন। রোগী মুসলমান হলে আপনারা অপারেশন করবেন না। সহকর্মী মুসলিম ডাক্তারদের হাতে দিয়ে দেবেন। কারণ আপনাদের করা অপারেশন সফল না হলে ধোলাই খাবেন।

কোনো সিরিয়াস রোগী এলে আপনারা চিকিৎসা দেবেন না। শেষে মারা গেলে গুজব ছড়াবে - রামু হামলার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য ইচ্ছে করেই মেরে ফেলেছে।

এখন থেকে আপনারা শুধু সর্দি-কাশি এসবের চিকিৎসা দেবেন। প্যারাসিটামল,স্যালাইন, ডাবের পানি, ভাতের মাড়। কখনো সুযোগ পেলে কাঁঠালপাতাও দিয়ে দেবেন। 

দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। জয় বাংলা বলে আগে বাড়ো।

৩.
"লালমনিরহাটে হিন্দু পল্লীতে হামলা, প্রতিমা ভাঙচুর।"

এটা একটা সাম্প্রতিক খবর। হিন্দুদের বাড়িঘর এবং প্রতিমা ভাঙচুর নিয়ে আর কিছু লেখার নেই। অসাম্প্রদায়িক (!) বাংলাদেশে এসব প্রতিদিনই হয়। আমার খারাপ লাগে সাংবাদিকদের লেখার ধরন দেখলে।

বৌদ্ধ পল্লীতে হামলা, হিন্দু পল্লীতে হামলা, আদিবাসী পল্লীতে হামলা! অনেকটা পতিতা পল্লী, যৌনপল্লীর মতো করে বিষয়টাকে উপস্থাপন করা। কাটা গায়ে নুন-মরিচের ছিঁটা।

কেন? হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামে সাম্প্রদায়িক হামলা লেখা যায় না? বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপরে হামলা লিখা যায় না? কিংবা লেখা যায় না পাহাড়ে আদিবাসীদের ওপরে বাঙালিঅদের হামলা? কিন্তু এভাবে লেখা হবে না। লেখা হবে হিন্দুপল্লীতে হামলা। মনোভাব এমন, বাংলাদেশের কিছু মানুষ, যারা মুসলিম নয়, অসহায় তারা। তারা বাংলাদেশের আশ্রিত। তারা পল্লীতে থাকে। তাদের ওপরে হামলা করা যায়। একটা নিষিদ্ধ বা অস্বাভাবিক এলাকা পল্লী, সেখানে তারা বসবাস করে।

হয়তো সাংবাদিকেরা বাংলাদেশের মানুষের মানসিকতা মাথায় রেখেই লেখালেখি করেন। বাংলাদেশের অনেক মুসলিমের কাছেই হিন্দু, বৌদ্ধ মেয়েদের গায়ের গন্ধ অন্যরকম। তারা শাড়ি পরে, বোরকা পরে না, তাই তাদের পতিতার মতো দেখায়। হিন্দু মেয়ের সাথে সেক্স করতে পারলে কোমরের ব্যথা সেরে যাবে, এমন মনে করা মুসলমানের সংখ্যাও কয়েক কোটি। আর আদিবাসী মেয়েগুলো তো তাদের কাছে শুধুই মাল।

বিশ্বাস হয় না? গ্রামে চায়ের দোকানে বসে হিন্দু মেয়ে নিয়ে আলাপ শুনতে পারেন। বড়ুয়াত মাইয়াগুলো নাকি পুতুলের মতো! শহরে কোনো আদিবাসী মেয়ে হাঁটার সময় আপনার আশেপাশে মুমিন বান্দাদের কথাবার্তা খেয়াল করবেন। আমি আমাদের ভার্সিটির শাটল ট্রেনেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে এমন ছেলের মুখে পাহাড়ি মেয়েদের নিয়ে এমন বাজে কমেন্ট শুনেছি, যা শুনলেই আপনার গা ঘিনঘিন করবে। অথচ তার নোট খাতায় নামের আগে বড় করে মোহাম্মদ লেখা ছিল।

নিত্য নবীরে স্মরি – ১৯০



অধিকার চাই

লিখেছেন অপ্রিয় কথা

মাননীয় রাষ্ট্রচালক, 

হ্যাঁ, আমি নাস্তিক! আমি প্রকাশ্যে এই অধিকার নিয়ে বাঁচতে চাই! আমি পাসপোর্ট বা যে কোনো ফরমে লিখতে চাই - আমি নাস্তিক। ধর্মের অপশনে কোনো ধার্মিক যদি হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ খ্রিষ্টান লিখতে পারে, তবে আমি কেন পারবো না নাস্তিক লিখতে? আমার অপশন কই?

সকল ধার্মিক যদি প্রকাশ্যে অদৃশ্য ও অপ্রমাণিত আল্লাহ-ঈশ্বর-গড-ভগবানের জিকির করতে পারে, তবে আমি কেন প্রকাশ্যে বলতে পারবো না আল্লাহ-ঈশ্বর-গড-ভগবান বলতে পৃথিবীতে কিছু নেই? এবং সব মানুষের সৃষ্টি? কেন বলতে পারবো না, আমি অবিশ্বাসী?

আমি নাস্তিক। কিন্তু কারো গায়ে হাত তোলা, কাউকে হত্যা করা, নিজের মত কারো উপর জোর করে চাপিয়ে দেয়া, ভিন্নধর্মীদের নিন্দা করা, নাক ফুলিয়ে ভ্রু কুঁচকে মানুষকে ঘৃণা করা - এসব শিক্ষা আমার মাঝে নেই। আমি নিজেকে সেই শিক্ষায় গড়িনি।

আমি নাস্তিক। আমি মানবিক অবক্ষয়ের বিরূদ্ধে! কোনো মুসলমান নির্যাতিত হলে আমি ব্যথিত হই, হিন্দু অত্যাচারিত হলে একই ব্যথা অনুভব করি। ফিলিস্তিনীর মুসলিমের ওপর ইসরাইল আঘাত হানলে আমি তার প্রতিবাদ করি! আইএস-এর মুসলিমরা ধরে ধরে খ্রিষ্টান জবাই করলে আমি তারও প্রতিবাদ করি। বাংলাদেশে মুসলিমরা সংখ্যালঘু নির্যাতন, তাদের মন্দির, বাড়িঘর ভেঙে দিলে আমি তারো প্রতিবাদ করি! হিন্দুরা বাবরি মসজিদ ভাঙলে আমি তার নিন্দা জানাই! বাঙালীরা পাহাড়ীদের নির্যাতন-ধর্ষণ করলে আমি বিষন্ন হই, প্রতিবাদ করি!

আমি নাস্তিক। আমি কারো অধিকার হরণ চাই না। কেউ নামাজ পড়ুক, প্রার্থনা করুক, প্রণাম করুক, গির্জায় যাক, চার্চে যাক, আমি তাদের আটকাই না। আমি চাই, তাদেরও অধিকার থাকুক, চাই তারাও নির্বিঘ্নে তাদের ধর্ম পালন করুক। তাতে আমার আপত্তি নেই।

কিন্তু আমার কেন অধিকার থাকবে না এদেশে নাস্তিক পরিচয়ে বাঁচার? মানুষ পরিচয়ে বাঁচার? কেন আমাকে পাসপোর্টে লিখতে হবে হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান? আমি তো কোনো প্রচলিত ধর্মে বিশ্বাসী নই।

মাননীয় রাষ্ট্রপ্রধান, আমি নাস্তিক পরিচয়ে বাঁচতে চাই, মানুষ পরিচয়ে বাঁচতে চাই, ধর্মের পরিচয়ে নয়। তার জন্য কী আইন পাশ করতে হবে, করুন। কী সিস্টেম পাল্টাতে হবে, পাল্টান। কিন্তু আমি আমার অধিকার চাইই চাই!

২৪ মে, ২০১৫

নারী যখন ধর্মের সপক্ষে

প্রাসঙ্গিক পাঠ্য:

ইসলামী ইতরামি

লিখেছেন নিলয় নীল

১.
সিরিয়াতে আবারও একসাথে দু'জনের শিরশ্ছেদ করলো আইএস। খোলা মাঠের মধ্যে শত শত আইএস যোদ্ধা ঘিরে ধরে চোখ বেঁধে একে একে শিরচ্ছেদ করলো দু'জনকে। প্রথমজনের অপরাধ গুপ্তচরবৃত্তি আর দ্বিতীয় জনের অপরাধ হলো আল্লাহ্‌কে অসম্মান করা। এবারের শিরচ্ছেদের সময় হত্যাকারীকে আর মুখোশ পরতে হয়নি। 

২.
একজন নারীকে বাধ্য করা হয়েছে ২০ জন আইএস জঙ্গিকে বিয়ে করতে। সবচেয়ে অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, প্রতি বার তাকে কুমারিত্ব ফিরে পেতে অস্ত্রোপচার করতে হয়েছে! অর্থাৎ বারবার একেবারে নতুন ভার্জিন হয়ে আইএস স্বামীকে বিয়ে করে বৈধভাবে যৌনতৃপ্তি দিতে বাধ্য হয়েছে। 

৩.
ঘটনা সৌদি আরবে। ডিভোর্সের হাত থেকে একটুর জন্য রক্ষা পেলো স্ত্রী। বিয়ের প্রথম রাতে স্ত্রীর সাথে মিলিত হয়েই স্বামীর স্ত্রীকে সন্দেহ হয়, সে ভার্জিন নয়। স্ত্রী যে ভার্জিন নয়, তার প্রমাণ হিসেবে তিনি দাবি করেন, বিয়ের রাতে স্ত্রীর সাথে মিলিত হলে স্ত্রীর রক্তপাত হয়নি।নাউজুবিল্লাহ! শুধু এটুকুতেই সীমাবদ্ধ ছিল না সৌদি সেই জামাই, সে তার স্ত্রীর পরিবারের কাছে জানায় যে, তাদের মেয়ে ভার্জিন নয় এবং সে এই মেয়েকে ডিভোর্স দেবে। পরিবার অবশ্য দাবি করে যে, তাদের মেয়ে ভার্জিন এবং মেয়ে নিজেও একই কথা বলে। অবশেষে মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে পরীক্ষা করা হয় এবং আলহামদুলিল্লাহ্‌ সোবাহানাল্লাহ ভালো খবর এই যে, ডাক্তারি পরীক্ষায় প্রমাণিত হয় যে মেয়ে ভার্জিন।

৪.
লক্ষ্মী-নারায়ণ মূর্তি রাস্তা দিয়ে নিয়ে আসার সময় কদমতলা হাফিজিয়া মাদ্রাসার কয়েকজন ছাত্র হিন্দুদের দেব-দেবী নিয়ে অকথ্য ও নোংরা ভাষায় গালাগাল করে। এসময় হিন্দুদের কয়েকজন এর প্রতিবাদ জানায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই মাদ্রাসার ছাত্ররা স্থানীয় কিছু উগ্রপন্থী লোকজনের সঙ্গে সমবেত হয়ে লাঠি সোডা নিয়ে ওই হিন্দু গ্রামে অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় তারা মন্দির, মন্দিরের মূর্তি ও তাদের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। হামলা থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয় ১০০টি পরিবারের হিন্দুরা সবাই বাড়ি ঘর ছেড়ে নিরাপদে আশ্রয় নেয় বলে তাঁরা জানান। 

৫.
মুসলমানেরা ইহুদি-নাছারাদের দেশে গিয়ে গণ্ডায় গণ্ডায় মসজিদ বানায়, বাধা পেলে মানবাধিকার লংঘন হচ্ছে গলে গলা ফাঠায়। তবে... মালয়েশিয়ার কুয়ালা সিলঙ্গার জেলার পুঞ্চাক আলাম (Puncak Alam) শহরে মুসলিমপ্রধান এলাকায় মন্দির স্থাপনের বিরোধিতা করছে সংখ্যাগুরু মুসলমানরা। তাদের যুক্তি, অধিবাসীদের সাথে আলাপ আলোচনা না করেই ৯৫ ভাগ মুসলমানের এলাকায় মন্দির প্রতিষ্ঠার ধৃষ্টতা সরকার কীভাবে দেখিয়েছে! 

#

পরবর্তী সংবাদগুলো ধর্মকারী সংকলিত।

১.
ইছলামের নবী ৯ বছর বয়সী আয়েশাকে শয্যাসঙ্গী বানাতে পারলে তার উম্মত সপ্তম শ্রেণীতে পড়া বালিকার সঙ্গে একই কাজ করতে পারবে না কেন? কেন তাকে গ্রেপ্তার করা হবে? আমরা কি এরকম মদিনা সনদের দেশ চেয়েছিলাম?

২.
পৃথিবীর পবিত্রতম দেশ চৌদি আজবের পবিত্রতম শহর মক্কায় চালু করা হয়েছে হালাল সেক্স শপ

৩.
সবচেয়ে বড়ো মুছলিম দেশ ইন্দোনেশিয়ায় ছাত্রীরা তাদের ডিগ্রি পাবে না, যদি তারা বিবাহবহির্ভুত যৌনসম্পর্ক স্থাপন করে থাকে, অর্থাৎ তারা যদি কুমারী না হয়।

৪.
শত শত যুদ্ধবন্দিনীকে গনিমতের মাল বিবেচনা করে ধর্ষণ করেছে বোকো হারামের ইছলামী যোদ্ধারা। তাদের কেউ কেউ ধর্ষণ শুরু করার আগে দোয়া পড়ে নিয়েছে।

৫.
অমুছলিম নারীদেরকে ধর্ষণ করার অনুমতি দেয়ার জন্য আল্যার কাছে শুকরিয়া আদায় করেছে ছহীহ ইছলামী জঙ্গিদের দল আইসিস।

৬.
গ্রীষ্মকালীন ইছলামী স্কুলে ছয় বছর বয়সী এক বালকের ওপর যৌননির্যাতন চালিয়েছে ৬৩ বছর বয়সী মুছলিম।

৭.
বিশ্বব্যাপী ইছলামী সন্ত্রাসের প্রধান স্পন্সর চৌদি আজব এবং সেই দেশের মাটিতে সংঘটিত হয়েছে ইছলামী আত্মঘাতী হামলা: পবিত্র জুম্মার নামাজের সময় শিয়া মসজিদে পবিত্র হামলা চালিয়ে ২১ জনকে হত্যা করা হয়। এর আগে গত এপ্রিল মাসে মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদের ইমাম শিয়াদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধের আহবান জানিয়েছিল। মাশাল্যা! মুছলিম-মুছলিম ভাই-ভাই। 

৮.
মুছলিমদের ইতরামিতে অতিষ্ঠ হয়ে মুছলিমপ্রধান দেশ তাজিকিস্তানে আরবি নাম রাখা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সে দেশের সরকার। এ ছাড়া দাড়ি রাখা, হিজাব পরা এবং নাবালকদের মসজিদে ঢোকার ওপরেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

৯.
'বেসিনের ওপরে পা তুলে পা ধোয়া নিষিদ্ধ' - এমন একটি সাইন পুরুষদের টয়লেটে ঝোলানোর ঘটনাকে 'বর্ণবাদী' আচরণ ('বর্ণবাদ' কাকে বলে, সে সম্পর্কে কোনও ধারণা তাদের নেই যদিও) বলে আখ্যা দিয়েছে অজুর সময় বেসিনের ওপরে পা তোলা মুছলিমরা।

১০.
বোকো হারামের কাছ থেকে উদ্ধার করা ২১৪ জন মেয়ে সন্তানসম্ভবা। দেখা যাচ্ছে, ইছলামী যোদ্ধারা নবী-অনুমোদিত ধর্ষণ যথাযথভাবে পালন করলেও নবী-প্রস্তাবিত আজল পদ্ধতি (যৌনাঙ্গের বাইরে বীর্যত্যাগ) প্রযোগ করেনি। মুক্ত নারীদের বর্ণনায় বোকো হারামের বর্বরতার কথা পড়ুন (বাংলায়)। এদিকে আইসিস ৯ বছর বয়সী বালিকাকেও (নবীজির সুন্নত) গর্ভবতী বানিয়েছে। 

১১.
'চাহিবামাত্র দিতে বাধ্য থাকিবে' - কথাটা মুছলিম স্ত্রীর শিরোধার্য। অর্থাৎ স্বামীর কামনায় সাড়া না দেয়ার কোনও অধিকার নেই স্ত্রীর। ইছলামে প্রচলিত এই বিধানটির কথা আবারও স্মরণ করিয়ে দিয়েছে এক ইছলামবাজ। আরেক ইছলামবাজও জানাচ্ছে, যৌনসঙ্গমের জন্য স্ত্রীর সম্মতির প্রয়োজন স্বামীর নেই

১২.
কোরান পোড়ানোর অভিযোগ তুলে পাশবিক উপায়ে এক নারীকে হত্যা করা ৮ ব্যক্তিকে ষোলো বছরের জেল দেয়া হয়েছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, আফগানিস্তানের কাছ থেকে শিক্ষা নেয়ার সময় এসেছে বাংলাদেশের।

১৩.
মসজিদের ইমাম তার নিজের ১৩ বছর বয়সী কন্যাকে ধর্ষণ করেছে।

১৪.
আল্যার হুকুম ছাড়া গাছের পাতাও নড়ে না এবং তেলের মূল্যও নির্ধারণ করে দেয় আল্যাই - জানিয়েছে চৌদি মন্ত্রী।

১৫.
ইরাকে সংখ্যালঘু ইয়াজিদি সম্প্রদায়ের প্রায় ৩০০ জন জিম্মিকে হত্যা করেছে ইছলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিরা।

১৬.
আইসিস অনুমোদিত প্রথম বার্থ সার্টিফিকেটসহ নবজাতকের ছবি দেখুন। শিশুটির মাথার দু'পাশে রাখা আছে পিস্তল ও গ্রেনেড।

১৭.
অমুছলিম অবস্থায় স্টুডেন্ট লোন নিয়ে ধর্মান্তরিত হয়ে ইছলামের পুশিতল শায়াতলে আসার পরে এক নব মুছলিম লোনের সুদ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে, কারণ ইছলামে সুদ হারাম।

১৮.
অনুমতি না নিয়ে বাড়ির বাইরে গিয়েছিল বলে স্ত্রীর গায়ে পেট্রল ঢেলে তাকে আগুনে পুড়িয়ে মেরেছে তার স্বামী এবং এ কাজে তাকে পূর্ণ সহযোগিতা জুগিয়েছে তার পিতা। ঘটনাটি ঘটেছে শ্রেষ্ঠ অনার কিলিং-এর দেশ হিসেবে অনার পাওয়া ফাকিস্তানে।

১৯.
খোদ চৌদি আজবের পবিত্রতম শহর মক্কায় আল্যার ঘর মসজিদে এক পুরুষ বোরখা পরে নারীদের উত্যক্ত করেছে।
(লিংক: টোস্টার)

২০.
নৌকায় চেপে অবৈধ উপায়ে ইহুদি-নাছারাদের দেশ ইতালিতে যাবার পথে মুছলিমেরা নৌকা থেকে ১২ জন খ্রিষ্টানকে ফেলে দিয়ে হত্যা করেছে। তাদের অপরাধ ছিলো - তারা খ্রিষ্টান।

২১.
অন্য সব ধর্মের মতোই ইছলামও নারীর কুমারিত্ব বিষয়ে ঘোর বাতিকগ্রস্ত। তাই ইছলাম অস্ট্রেলিয়ার এক ইছলামিক স্কুলে দৌড় প্রতিযোগিতায় মেয়েদের অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে, কারণ এর ফলে মেয়েরা তাদের কুমারিত্ব হারিয়ে ফেলতে পারে।

২২.
অমুছলিমদের ওপর হামলা করার সুযোগ মুছলিমরা মিস করে না। এমনকি প্রয়োজনে সুযোগ তারা নিজেরা সৃষ্টি করে নেয়! “মুছলমান রোগীকে হিন্দু নার্স ইনজেকশন দিয়ে মেরে ফেলেছে” - এই গুজব তুলে হিন্দু ধর্মাবলম্বী ডাক্তার ও নার্সের ওপর হামলা করেছে শান্তিকামী মুছলিমদের দল।

২৩.
ইহুদি-নাছারাদের দেশে থাকবো, সেখানকার সমস্ত সুযোগ-সুবিধা দু'হাত পেতে নেবো, কিন্তু সে দেশের গণতন্ত্র বা প্রগতিশীলতার বিরোধিতা করবো - এটাই হচ্ছে টিপিক্যাল মুছলিম মনোভাব। ওয়েলসে ভোটের আগে মুছলিমরা প্রচার চালিয়েছে: "গণতন্ত্র - আল্যার বিধানবিরোধী।"

২৪.
গত মার্চ মাসে ওমরাহ্‌ শেষে দেশে ফেরার পথে জেদ্দা বিমান বন্দরে ক'জন সৌদি নিরাপত্তা কর্মকর্তা দুই ইরানি কিশোরের ওপর যৌন নির্যাতন চালায়।

২৫.
খাছ ইছলামী জঙ্গিদের দল আইসিস কোরানে বর্ণিত ছহীহ ইছলামী পদ্ধতিতে চোরের হাত কেটে ফেলার চর্চা করছে। ভয়াবহ সচিত্র রিপোর্ট।

২৬.
আইসিস ৪০০ জন শিশুকে তাদের দলে গ্রহণ করে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। তাদের নাম দেয়া হয়েছে 'খলিফতের শাবক'।

২৭.
ইছলাম টয়লেট পেপারকে দিয়েছে ঢিলা-কুলুখের সম্মান ও মর্যাদা। তুরস্কে টয়লেট পেপারকে হালাল ঘোষণা করা হয়েছে।

২৮.
চৌদি গ্র্যান্ড মুফতি ঘোষণা দিয়েছে, চূড়ান্ত খিদের সময় কোনও মুছলিম পুরুষ তার স্ত্রীর শরীরের কোনও একটি অঙ্গ কেটে খেতে পারবে। কারণ ইছলাম নারীকে দিয়েছে সর্বোচ্চ সম্মান। এবং দেখা যাচ্ছে, দূরদর্শী নবী প্রস্তাবিত এক পুরুষের চারটি স্ত্রী থাকার বিধানটি বড়োই সুবিধাজনক। স্বামীর অনেক দিনের খোরাক হতে পারবে তারা।

২৯.
মালয়েশিয়ায় হিন্দু-কার্যক্রম চালিয়ে গেলে হিন্দু আধ্যাত্মিক নেতাকে হত্যা করা হবে - হুমকি দিয়েছে আইসিস। কারণ 'বিশ্বে শুধু নড়িবেক তারই লেজটুকু'।

৩০.
কেনিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা চালিয়ে শিক্ষাবিমুখ ও শিক্ষাবিদ্বেষী মুছলিমদের দল ৭০ জনকে হত্যা করেছে। (খবরটা পুরনো, তবু আর্কাইভের জন্য তুলে রাখা হলো)

৩১.
খেলনা ও খাদ্য চুরির অপরাধে কোরানের বিধান অনুসরণ করে চার শিশুর হাত কেটে নিয়েছে আইসিস

৩২.
ইছলামী মুতাহ বিবাহ পদ্ধতি অনুসরণ করে এক মুছলিমা যৌনকর্মী গুনাহমুক্ত সেক্স-সেশন অতিবাহন করছে একের পর এক।

৩৩.
চার কিশোরীর ওপরে যৌননির্যাতন চালানো মুছলিম পুরুষ আদালতে বলেছে, ওটা ঘটেছিল রমজান মাসে, এবং সে তখন রোজা পালন করছিল বলে জানতো না, সে কী করছে।